রিয়ালের আজ আয়াক্স মিশন

আজ টটেনহামের অগ্নিপরীক্ষা

প্রকাশ : ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ০০:০০

ক্রীড়া ডেস্ক

চলতি মৌসুমের শুরু থেকে একের পর এক ধাক্কা সামাল দিতে হয়েছে রিয়াল মাদ্রিদকে। মাঝখানে ক্লাব বিশ্বকাপের শিরোপা জিতলেও লা লিগায় নিজেদের ছায়া হয়েই ছিল লস ব্লাঙ্কোসরা। তার মধ্যে ন্যু-ক্যাম্পের প্রথম এল ক্লাসিকোতে রিয়াল বিধ্বস্ত হওয়ার পর চাকরিচ্যুত হন কোচ হুলেন লোপেতেগি। পরে অন্তর্বর্তীকালীন কোচের দায়িত্ব নিয়ে অলহোয়াইটদের ট্র্যাকে ফেরান সান্তিয়াগো সোলারি। একসময় লা লিগার পয়েন্ট টেবিলের ষষ্ঠ স্থানে থাকা রিযাল স্প্যানিশ কোচের অধীনে উঠে এসেছে দ্বিতীয় স্থানে।

লা লিগার অবস্থান যা হোক না কেন, উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগ এলেই নড়েচড়ে উঠে ব্লাঙ্কোসরা। গত তিন আসরের রেকর্ড চ্যাম্পিয়ন তারা। শুধু তা-ই নয়, চ্যাম্পিয়নস লিগের সর্বোচ্চ ১৩ শিরোপার মালিকও রিয়াল। গত আসরে লিভারপুলকে হারিয়ে শিরোপা জিতেছে তারা। আজ শিরোপা ধরে রাখার মিশনে সোলারির দল শেষ ষোলোর প্রথম লেগে অ্যাওয়ে ম্যাচ খেলবে নেদারল্যান্ডসের ক্লাব আয়াক্সের বিপক্ষে।

গত আসরের মতো এবারও কি ছড়ি ঘুরাতে পারবে রিয়াল? প্রশ্নটা থেকেই যাচ্ছে। টানা তিনটি শিরোপা এনে দেওয়া কোচ জিনেদিন জিদান ও ফরওয়ার্ড ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোকে হারিয়ে ফেলেছে তারা। দুই কিংবদন্তির অভাবটা ঠিকই মৌসুমের শুরু থেকে টের পেয়েছে স্প্যানিশ জায়ান্টরা। অবশ্য সুখবর হচ্ছে, ফর্মে ফিরেছেন করিম বেনজেমা, লুকা মডরিচ ও টনি ক্রুসরা। আর সদ্য চোট থেকে ফিরেছেন গ্যারেথ বেলও। অভিজ্ঞদের পাশাপাশি রিয়ালকে স্বপ্ন দেখাচ্ছেন ব্রাজিলের ১৮ বছর বয়সি ফরওয়ার্ড ভিনিসিয়াস জুনিয়রও।

তবে ঘরের মাঠ ছেড়ে কথা বলবে না আয়াক্স। গ্রুপ পর্বের ম্যাচে বায়ার্ন মিউনিখের মতো দলকেও রুখে দিয়েছিল তারা। চ্যাম্পিয়নস লিগে নিজেদের ইতিহাসও বেশ সমৃদ্ধ আয়াক্সের। পাঁচবারের শিরোপাজয়ীরা একসময় জন্ম দিয়েছে ইউরোপা মাতানো এডগার ডেভিডস, ক্লারেন্স সিডর্ফ, প্যাট্রিক ক্লুইভার্টের মতো তারকাদের। এবার শেষ ষোলোতে তারা পা রেখেছে ‘ই’ গ্রুপে রানার্সআপ হয়ে। অন্যদিকে রিয়াল ‘জি’ গ্রুপে চ্যাম্পিয়ন হয়েই উঠেছে নকআউট পর্বে। দুই দলের সাক্ষাতে অবশ্য ইতিহাস পক্ষে আছে রিয়ালের। শেষ তিনবারের দেখায় প্রত্যেকবার জয় পেয়েছে ব্লাঙ্কোসরা।

রাতের আরেক ম্যাচে শেষ ষোলোর প্রথম লেগে ঘরের মাঠ ওয়েম্বলি স্টেডিয়ামে জার্মান ক্লাব বরুশিয়া ডর্টমুন্ডকে স্বাগত জানাবে টটেনহাম। এবার রোমাঞ্চ ছড়িয়ে দ্বিতীয় পর্বে উঠেছে। ইন্টার মিলানের সমান আট পয়েন্ট পেলেও গোল ব্যবধানে এগিয়ে থাকায় ‘বি’ গ্রুপে দ্বিতীয় হয়ে শেষ ষোলো নিশ্চিত করে কোচ মাউরিসিও পচেত্তিনোর শিষ্যরা। শেষ ম্যাচে নাটকীয়ভাবে ন্যু-ক্যাম্পে বার্সেলোনার বিপক্ষে ড্র করে তারা বিদায় ঘণ্টা বাজিয়ে দেয় নেরাজ্জুরিদের।

তবে আজকের ম্যাচে পচেত্তিনোর দুশ্চিন্তার কারণ হ্যারি কেনকে নিয়ে। চোটে পড়ে নির্বাসনে চলে গেছেন স্পার্স অধিনায়ক। অন্যদিকে এই মৌসুমে দুর্দান্ত ফর্মে আছে ডর্টমুন্ড। বায়ার্নকে টপকে শীর্ষে আছে তারা। ইতিহাস অবশ্য আজ পক্ষে আছে টটেনহামের। চ্যাম্পিয়নস লিগের শেষ তিনবারের সাক্ষাতে দুবার জিতেছে তারা। তবে ২০১৬ সালে ওয়েম্বলিতেই তাদের হার উপহার দিয়েছিল ডর্টমুন্ড।

"