বাংলাদেশ-নিউজিল্যান্ড ওয়ানডে সিরিজ আজ শুরু

সীমিত দিয়ে সেরার প্রতিশ্রুতি

প্রকাশ : ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ০০:০০

ক্রীড়া ডেস্ক
ama ami

নিউজিল্যান্ডের মাটিতে কখনোই জয়ের নজির নেই বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের। তা সেটা যে কোনো ফরমেটেই হোক। রাগবির দেশে সবশেষ সফরে কয়েকটা ম্যাচেই আশা জাগিয়েছিল টাইগাররা। কিন্তু জয়ের স্বপ্ন পূরণ হয়নি তাতে। দুর্দান্ত সেই পারফরম্যান্স লাল-সবুজের প্রতিনিধিদের আশার পালে দিয়েছিল বাড়তি হাওয়া। সেটা ফুটো হয়ে গেল সিরিজ শুরুর আগেই।

আজ সকাল সাতটা থেকে শুরু হয়েছে বাংলাদেশের নিউজিল্যান্ড মিশন। টাইগারদের এই যাত্রায় নেই বিশ্বের সেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। ইনজুরি তাকে ছিটকে দিয়েছে নিউজিল্যান্ড সফর থেকে। দীর্ঘ দিন পর জাতীয় দলে ফিরলেও আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে আপাতত আবার ফেরা হচ্ছে না তাসকিন আহমেদের। চোট মাঠের বাইরে পাঠিয়ে দিয়েছে ডানহাতি এই পেসারকেও।

দুই বিভাগের গুরুত্বপূর্ণ দুই জনের ইনজুরি বাংলাদেশ শিবিরে ফেলে দিয়েছে দুুশ্চিন্তার ভাঁজ। প্রতিপক্ষ নিউজিল্যান্ড বলেই সাকিবের হাহাকারটা বারবার সামনে চলে আসছে টাইগারদের সামনে। বাংলাদেশ কোচ স্টিভ রোডস অবশ্য প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন সীমিত দিয়েই সেরাটা দেওয়ার।

লড়াইটা অধরাকে ধরার। তবে সেই অভিযান শুরুর আগেই হারাতে হয়েছে সবচেয়ে বড় অস্ত্রকে। দল অবশ্য তাতে ভড়কে যাচ্ছে না। সাকিব আল হাসানকে না পাওয়া বড় ধাক্কা, মানছেন স্টিভ রোডস। তবে বাংলাদেশ কোচের বিশ্বাস, দলের সেরা ক্রিকেটারকে ছাড়াও বাংলাদেশ উপহার দিতে পারে বিস্ময়।

নিউজিল্যান্ডে স্বাগতিকদের বিপক্ষে কখনোই কোনো সংস্করণে জয়ের মুখ দেখেনি বাংলাদেশ। ওয়ানডেতে বাংলাদেশ দারুণ খেলে বলেই এবার আশা ছিল খরা কাটানোর। তবে সেই আশায় বড় ধাক্কা লেগেছে সাকিবের আঙুলের চোটে। শুধু বাংলাদেশের সেরা ক্রিকেটার বলেই নয়, সাকিব না থাকলে দলের ভারসাম্য মেলাতেই হিমশিম খেতে হয় অনেক সময়। এবার আক্ষেপটা বেশি প্রতিপক্ষ নিউজিল্যান্ড বলেও। বরাবরই সাকিবের প্রিয় প্রতিপক্ষ কিউইরা, তাদের বিপক্ষে বাংলাদেশের সবচেয়ে বেশি রান ও উইকেট, দুটিই সাকিবের।

সাকিব না থাকা তাই কত বড় শূন্যতা, খুব ভালো করেই জানা আছে রোডসের। সিরিজ শুরুর আগে নেপিয়ারে সংবাদমাধ্যমের সামনে তিনি বলেছেন, ‘অবশ্যই আমাদের জন্য এটি বড় আঘাত, একজন সাকিব আল হাসান তো বিশ্বেই খুব বেশি একটা নেই। আমাদের জন্য বড় ধাক্কা ওকে না পাওয়া। ওকে ছাড়া খেলা অনেক বড় চ্যালেঞ্জ।’ রোডস আরো বলেছেন, ‘তবে অধিনায়ক মাশরাফি সংবাদমাধ্যমে যেমনটি বলেছেন, সাকিব নেই মানেই আমরা জিততে পারব না, এমন নয়। সম্প্রতি ওয়েস্ট ইন্ডিজকে ওয়ানডে সিরিজে হারিয়েছি আমরা। যদিও নিউজিল্যান্ডে এসে জেতাটা অনেক কঠিন। তবে আন্ডারডগ হয়ে আমাদের খারাপ লাগছে না। আমরা অনেককেই চমকে দিতে পারি। আমার ধারণা, নিউজিল্যান্ডও জানে, আমাদের হারাতে হলে খুব ভালো খেলতে হবে।’

উভয় দলের সবশেষ লড়াই অবশ্য স্মরণীয় হয়ে আছে বাংলাদেশের জন্য। ২০১৭ চ্যাম্পিয়নস ট্রফিতে নিউজিল্যান্ডকে বিদায় করে দিয়ে সেমি-ফাইনালের পথে এগিয়ে গিয়েছিল বাংলাদেশ। ওই ম্যাচের অনেকেই আছেন এই সিরিজ। সেই প্রেরণা তো আছেই, বাংলাদেশ কোচ ভরসা রাখছেন দলের অভিজ্ঞতায়ও। ‘আমাদের অনেকেরই সেই ম্যাচের কথা মনে আছে। নিউজিল্যান্ডের অনেকেরও আছে। শুধু আমাদের জন্য নয়, ওদের জন্যও আসলে অনুপ্রেরণা হতে পারে। তবে আমাদের দলটির মূল ব্যাপার হলো, এই দল এখন অনেক অভিজ্ঞ। ওয়ানডে ম্যাচ অনেক খেলেছে। বিশ্বকাপকে সামনে রেখে, এই ধরণের টুর্নামেন্টে অভিজ্ঞতা সবসময়ই বড় একটি ব্যাপার।’ রোডস আরো বলেছেন, ‘বিশ্বকাপের আগে এই সিরিজ দারুণ কাজে দেবে। নিউ জিল্যান্ডের কন্ডিশনে ম্যাচ জয়ের চেষ্টা অনেক বড় চ্যালেঞ্জ। আমাদের কয়েকজন আছে, এখানে দুই-তিনবার সফরে এসেছে।’ আশা করি আমরা ভালো করব।’

"