ট্রফি নেবে না মোহামেডান

প্রকাশ : ০৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ০০:০০

ক্রীড়া প্রতিবেদক
ama ami

গত বছর জুন মাসে হওয়া প্রিমিয়ার হকি লিগের অসমাপ্ত ম্যাচের ফলাফল ঘোষণা হয়েছিল পাঁচ মাস পর অক্টোবরে। তারও চার মাস পর আজ সন্ধ্যায় দেওয়া হবে সেই লিগের চ্যাম্পিয়ন ও রানার্সআপ দলকে ট্রফি। কিন্তু চ্যাম্পিয়ন মোহামেডান ট্রফি নেবে না। বাংলাদেশ হকি ফেডারেশন ট্রফি প্রদান অনুষ্ঠান আয়োজন করেছে তেজগাঁওয়ে বাংলাদেশ বিমানবাহিনীর ফ্যালকন হলে। অনুষ্ঠান বর্জনের ঘোষণা দিয়েছে সাদা-কালো শিবির।

গত বছর ৭ জুনের মোহামেডান-মেরিনার্সের ম্যাচটি ছিল ঘটনাবহুল। ৪৪ মিনিট পর দুই চাইনিজ আম্পায়ারের সিদ্ধান্তকে কেন্দ্র করে গ-গোল হলে ম্যাচ আর শেষ হয়নি। ৩০ অক্টোবর ওই ম্যাচের ভাগ্য নির্ধারণ করে বাংলাদেশ হকি ফেডারেশন। ম্যাচটি ১-১ গোলে ড্র ঘোষণা করলে চ্যাম্পিয়ন হয় মোহামেডান। আর রানার্সআপ আবাহনী।

তারও প্রায় এক মাস পর গত ২৬ নভেম্বর হকি ফেডারেশনের নির্বাহী কমিটির সভায় শাস্তি দেওয়া হয় মোহামেডান ও মেরিনার্স ইয়াংসের চার কর্মকর্তাকে। তাদের বিভিন্ন মেয়াদে হকিতে নিষিদ্ধ করে ফেডারেশন। সঙ্গে জরিমানাও। ফেডারেশনের ওই সিদ্ধান্তের পরই হকিতে নেমে আসে অন্ধকার। সে ঝামেলা না মিটিয়েই ফেডারেশন চ্যাম্পিয়ন ও রানার্সআপ দলকে ট্রফি প্রদানের সিদ্ধান্ত নেয়।

মজার বিষয় হলো, চ্যাম্পিয়ন মোহামেডানকে ট্রফি প্রদান অনুষ্ঠানে যে আমন্ত্রণপত্র দেওয়া হয়েছে, সেখানে নিষিদ্ধ কর্মকর্তাদের অনুষ্ঠানে না আসার কথা উল্লেখ আছে। আমন্ত্রণপত্রে লেখা হয়েছে (হুবহু), ‘ওই অনুষ্ঠানে আপনার ক্লাবের চ্যাম্পিয়ন পুরস্কার ও আর্থিক অনুদান গ্রহণের জন্য সর্বমোট ১০ জনকে উপস্থিত থাকার জন্য বিনীত আমন্ত্রণ জানাচ্ছি। এখানে উল্লেখ্য, ফেডারেশনের সভাপতি মহোদয়ের পরামর্শক্রমে বাংলাদেশ হকি ফেডারেশন কর্তৃক চলমান শাস্তিপ্রাাপ্ত কোনো কর্মকর্তা-খেলোয়াড়কে অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ না করার পরামর্শ দিয়েছেন।’

আমন্ত্রিত অতিথির সংখ্যা ১০ জনে নির্ধারণ করে দেওয়া এবং আমন্ত্রণপত্রে শাস্তিপ্রাপ্তদের উপস্থিত না হওয়ার নির্দেশনা দেওয়ার বিষয়টি মর্যাদায় লেগেছে চ্যাম্পিয়ন মোহামেডানের। এ বিষয়টিকে সহজভাবে নিতে পারেনি মোহামেডান। ট্রফি নেওয়ার চিঠি পাওয়ার পর যেখানে চ্যাম্পিয়ন দলের আনন্দে উদ্বেলিত হওয়ার কথা সেখানে হয়েছে উল্টোটা। হকি ফেডারেশনের এ ধরনের চিঠিকে মর্যাদাহানিকর হিসেবে উল্লেখ করে ট্রফি প্রদান অনুষ্ঠান বর্জনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে মোহামেডান।

মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাবের ডিরেক্টর ইনচার্জ লোকমান হোসেন ভূঁইয়া জানিয়েছেন, ‘ফেডারেশন এ ধরনের আমন্ত্রণপত্র দিয়ে আমাদের মর্যাদাহানি করেছে। আমরা এমন অনুষ্ঠানে যেতে পারি না।’

হকি দলে ২০ খেলোয়াড় ও কোচ-কর্মকর্তা মিলে থাকেন ২৪ জন। অথচ চ্যাম্পিয়ন দলকে ট্রফি আনতে যেতে হবে ১০ জনকে। হকি অঙ্গনের সবাই ফেডারেশনের এমন সিদ্ধান্তকে হাস্যকর হিসেবে উল্লেখ করেছেন। অতিথি ১০ জনে বেঁধে রাখলে ক্লাব কাকে পাঠাবে অনুষ্ঠানে? যারা খেলে ক্লাবকে ট্রফি এনে দিলেন তারা ট্রফি আনতে যেতে পারবেন না?Ñ এ প্রশ্ন এখন হকি অঙ্গনে। এই ২৪ জনের বাইরে ক্লাবের সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক, হকি কমিটির চেয়ারম্যান, সম্পাদক, লিগ কমিটিতে ক্লাবের প্রতিনিধিও আমন্ত্রণ পাওয়ার যোগ্য। অথচ ফেডারেশন বলেছে সর্বোচ্চ ১০ জন!

"