বড় আশা নিয়ে নিউজিল্যান্ড যাত্রা টাইগারদের

প্রকাশ : ০৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ০০:০০

ক্রীড়া প্রতিবেদক
ama ami

ঘরের মাটিতে সিরিজ জিতলেও নিউজিল্যান্ডের মাটিতে তা অধরাই থেকে গেছে বাংলাদেশের। দেড় যুগের পথচলা। তিন সংস্করণ মিলিয়ে ২১ ম্যাচ। কিন্তু অধরা জয়। নিউজিল্যান্ডে কখনোই স্বাগতিকদের বিপক্ষে জিততে পারেনি বাংলাদেশ। এমনকি ড্র করতেও পারেনি একটি ম্যাচ। এবার সেই ইতিহাস বদলাতে চায় বাংলাদেশ। দেশ ছাড়ার আগে কোচ স্টিভ রোডস বলে গেলেন, এবার কিছু ম্যাচ জিততে চায় দল।

কিউইদের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজ খেলতে বাংলাদেশ স্কোয়াডের প্রথম ভাগ ঢাকা ছেড়েছে গতকাল দুপুরে। বিপিএলের ফাইনালের লড়াইয়ে না থাকা আট ক্রিকেটারের সঙ্গে গিয়েছেন কোচ স্টিভ রোডস ও ম্যানেজার খালেদ মাসুদ। বাকি সাতজন যাবেন শনিবার রাতে। তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ দিয়ে শুরু সফরে তিনটি টেস্টও খেলবে বাংলাদেশ।

বাংলাদেশের জন্য নিউজিল্যান্ড সফর কতটা কঠিন, সেটি ফুটিয়ে তুলছে পরিসংখ্যানই। তবে এবার জয়ের শূন্য খাতায় কিছু ওয়ানডেতে ছাপ রাখার প্রত্যয় জানিয়ে গেলেন রোডস, ‘আশা করি, এবার কিছু ম্যাচ জিতব। জিততে পারলে দারুণ হবে। কাজটা খুব সহজ নয়, আমাদের সবশেষ সফরেও সেটি প্রমাণ হয়েছে। তবে দল নিয়ে আমরা খুশি এবার। ক্রিকেটারদের সাম্প্রতিক পারফরম্যান্সে আমরা খুশি। ওয়ানডেতে আমরা ভালো খেলি, এই সংস্করণে আমরা গর্ব খুঁজে নেই। ওয়ানডেতে তাই সেরা ফলের আশা করছি। টেস্ট ম্যাচগুলো খুব কঠিন হবে। তবে, দেশের বাইরে খেলতে আগের চেয়ে আমরা এখন বেশি প্রস্তুত। আশা করি, টেস্ট ম্যাচেও এবার ভালো করতে পারব।’

সবশেষ ২০১৬-১৭ মৌসুমে নিউজিল্যান্ডে পূর্ণাঙ্গ সফরে গিয়েছিল বাংলাদেশ। এবার তাই দুই সফরের মধ্যে বিরতি অনেক লম্বা ছিল না। অলরাউন্ডার মেহেদী হাসান মিরাজের আশা, আগের অভিজ্ঞতা কাজে লাগবে এবার, ‘আমরা বেশ কিছুদিন আগেই যাচ্ছি। অনুশীলনের কয়েকটি দিন সময় পাব। নিউজিল্যান্ডে আমরা আগেও গিয়েছি। কন্ডিশন সম্পর্কে আমার একটু ধারণা আছে। যত দ্রুত মানিয়ে নেওয়া যায়, সেই চেষ্টা করব। আমরা যারা আগে যাচ্ছি। আশা করি প্রস্তুতি ভালো হবে।’

আগের সফরগুলোর অভিজ্ঞতা কাজে লাগানোর কথা শোনা গেল সদ্য দলে ফেরা সাব্বির রহমানের কণ্ঠে, ‘এর আগে দুবার গিয়েছি নিউজিল্যান্ডে, অভিজ্ঞতা আছে। আবহাওয়া কেমন, ধারণা আছে। আশা করি, দ্রুত মানিয়ে নিতে পারব ও ভালো খেলার চেষ্টা করব।’

আগামী বুধবার নেপিয়ারে শুরু হবে ওয়ানডে সিরিজ। তার আগে ১০ মার্চ লিংকনে একটি প্রস্তুতি ম্যাচ খেলবে বাংলাদেশ। প্রথম ভাগে যাওয়া আট ক্রিকেটারের সঙ্গে স্থানীয় ক্রিকেটারদের নিয়ে ওই ম্যাচ খেলবে দল। দ্বিতীয় ভাগে যারা যাবে, সেই সাতজন সরাসরি দলের সঙ্গে যোগ দেবে নেপিয়ারে।

"