অপ্রতিরোধ্য জুভেন্টাসের রেকর্ড

প্রকাশ : ০৯ ডিসেম্বর ২০১৮, ০০:০০

ক্রীড়া ডেস্ক

টানা ছয় বছর ধরে জুভেন্টাসের মাঠ তুরিনে জয়হীন ইন্টার মিলান। এই ছয় বছরে অনেক উত্থান-পতন হয়েছে নেরাজ্জুরিদের। অবশ্য চলতি মৌসুমে কোচ লুসিয়ানো স্পেলেত্তির অধীনে বেশ গুছানো ফুটবল খেলছে ইতালিয়ান ক্লাবটি। কিন্তু এবারও তুরিন ফাঁড়াটা কাটাতে পারেনি ইন্টার। ডার্বি ডি’ইতালিয়াতে সমানে সমান লড়ার পরও জুভেন্টাসের বিপক্ষে ১-০ গোলে হেরেছে স্পেলেত্তির দল। অন্যদিকে এই জয়ে ইউরোপের শীর্ষ পাঁচ লিগের মধ্যে মৌসুমের প্রথম ১৫ ম্যাচের মধ্যে সর্বোচ্চ ৪৩ পয়েন্ট নিয়ে রেকর্ড গড়েছে তুরিনের বুড়িরা।

গত সপ্তাহে মৌসুমের ১৫ ম্যাচে রেকর্ডটি গড়েছিল ফ্রেঞ্চ লিগ ওয়ানের ক্লাব পিএসজি। স্ত্রাসবুর্গের বিপক্ষে শেষ ম্যাচে পয়েন্ট ভাগাভাগি করায় কোচ টমাস টুখেলের দলের পয়েন্ট এখন ১৬ ম্যাচে ৪৪। জুভেন্টাসের সামনে সুযোগ আছে পরের ম্যাচেই পিএসজিকে টপকে যাওয়ার। ফরাসি জায়ান্টদের রেকর্ডটি নিজেদের করে নেওয়ার দিনে জুভেন্টাসের হয়ে একমাত্র ও জয়সূচক গোলটি করেছেন মারিও মানজুকিচ। ৬৬ মিনিটে হুয়াও কানসালোর ক্রস থেকে হেডে ক্রোয়েশিয়ান ফরওয়ার্ড বল জড়িয়ে দেন ইন্টারের জালে। অবশ্য স্বাগতিকদের বিপক্ষে সমানতালেই লড়েছে স্পেলেত্তির দল। দুই দলের বল পজিসনই ছিল ফিফটি-ফিফটি।

জয় পেলেও ইন্টার ভুগিয়েছে জুভেন্টাসকে। ম্যাচ শেষে স্কাই স্পোর্টসকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে সেই কথাটি বলেছেন তুরিনের কোচ ম্যাসিমিলিয়ানো অ্যালেগ্রি, ‘প্রথমার্ধে ইন্টার আমাদের যথেষ্ট সমস্যার কারণ হয়ে উঠেছিল। ম্যাচের শুরুতেই হুয়াও মারিও ও গ্যাগলিয়ার্দিনি জুটি আমাদের চেপে ধরেছিল। তবে আমরা লড়াই করেছি। এটা সত্য যে, প্রথমার্ধে আমাদেরও এগিয়ে যাওয়ার সুযোগ ছিল। মানজুকিচকে আমি বাঁ-দিকে সরিয়ে নিয়েছিলাম। আর তাতেই ফল আসে।’

গত সাত মৌসুম ধরে ইতালিয়ান সিরি’এ লিগের ‘স্কুডেট্টো’টা একক মালিক বনে গেছে জুভেন্টাস। সেই ২০১১-১২ মৌসুম থেকে শুরু। এর আগের মৌসুমে শিরোপা জিতেছিল এসি মিলান। তারও আগে টানা চার ‘স্কুডেট্টো’ জিতেছে ইন্টার মিলান। চলতি মৌসুমেও শিরোপা ধরে রাখার দিকে এগিয়ে চলেছে জুভেন্টাস। শেষ ১৫ ম্যাচে মাত্র একটিতে ড্র ছাড়া বাকি প্রত্যেকটিতে জয় পেয়েছে অ্যালেগ্রির দল।

সিরি’এ লিগে পয়েন্ট টেবিলে ৩২ পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে থাকা নাপোলি থেকে ১১ পয়েন্ট এগিয়ে আছে জুভেন্টাস। সমান ম্যাচে ২৯ পয়েন্ট নিয়ে পরশু হারলেও তৃতীয় স্থানটা ধরে রেখে রেখেছে ইন্টার মিলান। ইন্টারের নগর প্রতিদ্বন্দ্বী এসি মিলান ২৫ পয়েন্ট নিয়ে আছে টেবিলের চতুর্থ স্থানে।

"