৪৯ বছরের ব্যর্থতা ঘুচাল নিউজিল্যান্ড

প্রকাশ : ০৮ ডিসেম্বর ২০১৮, ০০:০০

ক্রীড়া ডেস্ক

গত মাসে আবুধাবিতেই নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে সিরিজের প্রথম টেস্টে চরম নাটকীয়তার পর মাত্র চার রানে হেরেছিল পাকিস্তান। দুবাইতে দ্বিতীয় টেস্টে ১৬ রানে জিতে সিরিজে সমতায় ফিরেছিল তারা। তবে যে মাঠে মাত্র চার রানের ব্যবধানে হেরেছিল, সেই একই মাঠে কিউদের বিপক্ষে সিরিজ জয়ের লক্ষ্যে খেলতে এসে উল্টো গো হারা হারল পাকিস্তান। তিন টেস্ট ২-১ ব্যবধানে সিরিজ জিতেছে সফরকারী নিউজিল্যান্ড।

ব্যাটসম্যানদের নিদারুণ ব্যর্থতার কারণে এই টেস্টে কিউইদের কাছে ১২৩ রানের ব্যবধানে হেরে গেছে সরফরাজ আহমেদের দল। ১৯৬৯ সালের পর, অর্থাৎ ৪৯ বছর পর নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে হোম সিরিজ হারল পাকিস্তান।

দ্বিতীয় ইনিংসে জয়ের জন্য পাকিস্তানকে ২৮০ রানের লক্ষ্য বেধে দিয়েছিল নিউজিল্যান্ড। কেন উইলিয়ামসন এবং হেনরি নিকোলসের জোড়া সেঞ্চুরির সুবাদে দ্বিতীয় ইনিংসে নিউজিল্যান্ড সাত উইকেট হারিয়ে গড়ে ৩৫৩ রানের বড় স্কো। ইনিংসে পাকিস্তানের চেয়ে পিছিয়ে ছিল কিউইরা। যে কারণে জয়ের জন্য সরফরাজ আহমেদের দলের প্রয়োজন হয় ২৮০ রান।

জবাব দিতে নেমে একমাত্র বাবর আজম ছাড়া পাকিস্তানের কারো ব্যাট কথা বলেনি। ১১৪ বল খেলে বাবর সর্বোচ্চ ৫১ রান করেন। ২৮ রান করেন সরফরাজ। ২২ রান করে ইমাম-উল হক। ব্যাটসম্যানদের ব্যর্থতায় ১৫৬ রানে অলআউট হয়ে যায় পাকিস্তান এবং হার মানে ১২৩ রানের বড় ব্যবধানে। কিউইদের পক্ষে তিনটি করে উইকেট শিকার করেন টিম সাউদি, অ্যাজাজ প্যাটেল এবং উইলিয়াম সামারভিল। বাকি উইকেট নিয়েছেন কলিন ডি গ্র্যান্ডহোম।

দ্বিতীয় ইনিংসের শুরুতে ধাক্কা খায় পাকিস্তান। দলীয় ১৯ রানের মধ্যে ক্যারিয়ারের শেষ টেস্ট খেলতে নামা মোহাম্মদ হাফিকে ব্যক্তিগত আট রানের মধ্যে হারিয়ে চাপে পড়েন তারা। এরপর স্কোরবোর্ডে ৫৫ রান যোগ হতেই হারিয়ে ফেলে পাঁচ উইকেট। পরে বাবর আর সরফরাজ মিলে রানকে ৯৮ এর কোটায় নিয়ে যাওয়ার পর আবারও অভিষিক্ত বোলার সামারভিলের হাতে বিচ্ছিন্ন হতে হয় এই জুটিকে। ২৮ রান করে এই কিউই স্পিনারের বলে বোল্ড হয়ে যান সরফরাজ। এরপর বিলাল আসিফ এসে ১২ রান করে আরেকটা জুটি গড়ার চেষ্টা করেন। কিন্তু এটাও ব্যর্থ। আউট হয়ে গেলেন তিনি সাউদির বলে।

শেষ পর্যন্ত চেষ্টা করেছিলেন বাবর। কিন্তু হাফ সেঞ্চুরিটা পূরণ হওয়ার পর তিনি আর টিকতে পারলেন না। প্যাটেলের বলে উইকেট দিয়ে আসতে হয়। ১৫৬ রানের মাথায় হাসান আলি আউট হতেই ম্যাচ ও সিরিজ জয়ের বিজয়ের উল্লাসে মেতে ওঠে নিউজিল্যান্ডের ক্রিকেটাররা। সেঞ্চুরির জন্য ম্যাচ সেরা হয়েছেন ব্ল্যাক ক্যাপ অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসন। আর দুর্দান্ত বোলিংয়ের জন্য সিরিজ সেরা হন ইয়াসির শাহ্।

 

তৃতীয় টেস্ট, আবুধাবি

নিউজিল্যান্ড-২৭৪/১০ ও

৩৫৩/৭ (ডি.)

পাকিস্তান-৩৪৮/১০ ও ১৫৬/১০

"