রাজদণ্ড এখন মডরিচের হাতে

প্রকাশ : ০৫ ডিসেম্বর ২০১৮, ০০:০০

ক্রীড়া ডেস্ক

উয়েফার বর্ষসেরার পুরস্কার জিতেছিলেন লুকা মডরিচ। ফিফা দ্য বেস্ট অ্যাওয়ার্ডেরও সেরা হয়েছিলেন ক্রোয়েশিয়া অধিনায়ক। রিয়াল মাদ্রিদ প্লে-মেকার যে ব্যালন ডি’অরও জিততে যাচ্ছেন সেটার ইঙ্গিতটা পাওয়া যাচ্ছিল। আভাসটাই শেষাবধি সত্যি হলো। লিওনেল মেসি ও ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোর এক দশকের রাজত্ব গুঁড়িয়ে সিংহাসনে বসলেন মডরিচ।

মেসি-রোনালদোর বাইরে সর্বশেষ ২০০৭ সালে ফিফা ব্যালন ডি’অর জিতেছিলেন কাকা। ব্রাজিলিয়ান মিডফিল্ডার তখন জানতেন না, ব্যতিক্রমী এক ইতিহাসের অংশ হতে যাচ্ছেন তিনি। বর্ষসেরা ফুটবলারের ট্রফি জিতে কাকা এমনিতেই ইতিহাসে নাম লিখিয়েছিলেন। পরে সবাই এক রকম ভেবেই নিয়েছিল, মেসি ও রোনালদো অবসর নেওয়ার আগ পর্যন্ত তাদের বাইরে কাকাই সর্বশেষ ব্যালন ডি’অর জয়ী। ভুলটা ভাঙালেন মডরিচ। এবার ব্যালন ডি’অর জিতে রাজদন্ড হাতে তুলে নিলেন তিনি।

কাকার পর গত এক দশকে পাঁচবার করে বর্ষসেরার এই ট্রফি জিতেছেন মেসি ও রোনালদো। এবার মেসি অবশ্য বেশ পিছিয়ে ছিলেন। বিশ্বকাপে তেমন ভালো করতে পারেনি তার দেশ আর্জেন্টিনা। আর ইউরোপের ক্লাব ফুটবলেও গত মৌসুমে বড় কোনো সাফল্য পায়নি মেসির ক্লাব বার্সেলোনা। গত মৌসুমে রিয়াল মাদ্রিদের হয়ে টানা তৃতীয় চ্যাম্পিয়নস লিগজয়ী রোনালদোর সম্ভাবনা ছিল। এ ছাড়া ফ্রান্সকে বিশ্বকাপ জেতানো অ্যান্তনিও গ্রিজম্যানও ছিলেন সম্ভাব্য বিজয়ীদের আলোচনায়। কিন্তু সংবাদকর্মীদের ভোটে সবাইকে পেছনে ফেলে প্রথম ক্রোয়েশিয়ান হিসেবে ব্যালন ডি’অর জিতলেন মডরিচ।

প্যারিসে পরশু রাতে এক জমকালো অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে মডরিচের হাতে তুলে দেওয়া হয় ‘ফ্রান্স ফুটবল’ সাময়িকীর এই পুরস্কার। সর্বোচ্চ ৭৫৩ পয়েন্ট নিয়ে এই ট্রফি জিতলেন তিনি। ৪৭৮ পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় রোনালদো এবং ৪১৪ পয়েন্ট নিয়ে তৃতীয় হয়েছেন গ্রিজম্যান। মডরিচ যে এবার মেসি-রোনালদোর আধিপত্য ভেঙে দেবেন, তা মোটামুটি ধারণা করেছিলেন বিশ্লেষকরা। আর সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমেও ট্রফি দেওয়ার কয়েক ঘণ্টা আগেই ফাঁস হয়ে যায় কে কত ভোট পেয়েছেন, সেই তালিকায়। সেখানে মডরিচই ছিলেন বিজয়ী।

গত আগস্টে রোনালদো ও মোহাম্মদ সালাহকে পেছনে ফেলে উয়েফা বর্ষসেরা খেলোয়াড়ের ট্রফি জিতেছিলেন মডরিচ। পরের মাসে ফিফা বর্ষসেরা ‘বেস্ট’ ট্রফিও তিনি জিতে নেন ওই দুজনকে পেছনে ফেলে। গত মৌসুমে রিয়ালের হয়ে চ্যাম্পিয়নস লিগ জেতা ছাড়াও উয়েফা সুপার কাপ, স্প্যানিশ সুপার কাপ ও ফিফা ক্লাব বিশ্বকাপের শিরোপাও জেতেন মডরিচ। এ ছাড়া ক্রোয়েশিয়াকে প্রথমবারের মতো তুলেছিলেন বিশ্বকাপের ফাইনালে। রাশিয়ায় বিশ্বকাপের সেরা খেলোয়াড়ের পুরস্কার ‘গোল্ডেন বল’ও জিতেছেন ৩৩ বছর বয়সী এই মিডফিল্ডার।

৩৪৭ পয়েন্ট নিয়ে গ্রিজমানের পর চতুর্থ কিলিয়ান এমবাপ্পে। ২০০৭ সালের পর এবারই প্রথমবারের মতো শীর্ষ তিনের বাইরে ছিটকে পড়েছেন মেসি। পঞ্চম হয়ে সন্তুষ্ট থাকতে হয়েছে তাকে। ফ্রান্সের হয়ে বিশ্বকাপজয়ী এই ফরওয়ার্ড জিতেছেন বর্ষসেরা তরুণ খেলোয়াড়ের পুরস্কার ‘কোপা’ ট্রফি। অনূর্ধ্ব-২১ বছর খেলোয়াড়দের জন্য এবারই প্রথম চালু করা হয়েছে এই ট্রফি। মেয়েদের বর্ষসেরা ফুটবলারের ট্রফি জিতেছেন লিঁওতে খেলা নরওয়ের স্ট্রাইকার আডা হেগেরবার্গ।

গত এক দশকে মেসি-রোনালদোর আধিপত্যে অনেকেই ব্যালন ডি’অর জিততে পারেননি। আন্দ্রেস ইনিয়েস্তা, জাভি কিংবা ওয়েসলি স্নেইডারদের মতো খেলোয়াড়েরা পেছনে পড়েছেন এ দুজনের। মডরিচ তার জেতা ট্রফিটি উৎসর্গ করলেন এসব যোগ্য কিন্তু ‘বঞ্চিত’ খেলোয়াড়দের প্রতি, ‘এর আগে বেশ কয়েকজন এ পুরস্কার জয়ের যোগ্য ছিল। ইনিয়েস্তা, জাভি কিংবা স্নেইডারের কথাই ধরুন। এই ট্রফি সেই সব খেলোয়াড়দের প্রতি যারা যোগ্য হয়েও জিততে পারেনি। এ বছরটা আমার জন্য সত্যিই বিশেষকিছু।’

 

"