শেখ জামালকে উড়িয়ে ফাইনালে আবাহনী

প্রকাশ : ২০ নভেম্বর ২০১৮, ০০:০০

ক্রীড়া প্রতিবেদক

শেখ জামালের জন্য ম্যাচটি ছিল প্রতিশোধের। কিন্তু বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে কাল প্রথম সেমিফাইনালে ৪-২ গোলে আবাহনীর বিপক্ষে আরেকবার স্বপ্ন বিসর্জন দিয়েছে তারা। এই জয়ে হ্যাটট্রিক শিরোপার দিকে এক পা এগিয়ে গেল আবাহনী। ফাইনালে কোচ জাকারিয়া বাবুর শিষ্যরা মুখোমুখি হবে শেষ সেমিফাইনাল জয়ী দলের বিপক্ষে। ফাইনালে উঠার লড়াইয়ে আজ শেখ রাসেল ক্রীড়া চক্র মুখোমুখি হবে বসুন্ধরা কিংসের বিপক্ষে। কাল দুই দলের প্রথমার্ধটা শেষ হয়েছিল গোলশূন্য ব্যবধানে। তবে দ্বিতীয়ার্ধে সানডে চিজোবার হ্যাটট্রিকে ফাইনাল টানা তৃতীয় ফাইনাল নিশ্চিত করে আবাহনী।

ম্যাচের শুরু থেকে দুই দল লড়াই করেছে সমানতালে। তবে ৫৬ মিনিটে কাক্সিক্ষত সাফল্যের দেখা পায় ১০ বারের চ্যাম্পিয়ন আবাহনী। বাঁ-দিক থেকে রুবেল মিয়ার ফ্রি-কিক ডি-বক্সে পড়ার পর শেখ জামালের ডিফেন্ডাররা বিপদমুক্ত করতে পারেননি। ত্বরিত শটে সুযোগ কাজে লাগান আফগানিস্তানের ফরওয়ার্ড মাসিহ সাইঘানি।

৬৪ মিনিটে ডি-বক্সের মধ্যে শ্যামল মিয়া চিজোবাকে ফাউল করলে পেনাল্টির বাঁশি বাজান রেফারি। সফল স্পট কিকে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন এই নাইজেরিয়ান ফরওয়ার্ড। ছয় মিনিট পর রায়হানের থ্রো ইনে বেলফোর্টের হেড গোলরক্ষক মোহাম্মদ নাইমের গ্লাভস হয়ে পোস্টে লেগে ফিরলে ব্যবধান বাড়েনি।

শেখ জামাল ম্যাচে ফেরা গোল পায় ৭৯ মিনিটে। সতীর্থের বাড়ানো বল ধরে গায়ের সঙ্গে সেটে থাকা এক ডিফেন্ডারকে কাটিয়ে কোণাকুণি শটে লক্ষ্যভেদ করেন বদলি মিডফিল্ডার দিদারুল আলম। দুই মিনিট পর ওয়ালী ফয়সালের কর্নারে হেডে চিজোবা জাল খুঁজে নিলে ফের ব্যবধান বাড়িয়ে নেয় আবাহনী। ৮৪ মিনিটে ডি-বক্সের জটলার মধ্যে থেকে লক্ষ্যভেদ করে দিদারুল ফের ম্যাচ জমিয়ে দেন। এরপর ৮৬ মিনিটে ডি-বক্সের বাইরে থেকে জোরালো শটে লক্ষ্যভেদ করে হ্যাটট্রিক পূরণের সঙ্গে আবাহনীর জয় অনেকটাই নিশ্চিত করে দেন চিজোবা।

"