ইংলিশদের ১৭ বছর পর লঙ্কা জয়

প্রকাশ : ১৯ নভেম্বর ২০১৮, ০০:০০

ক্রীড়া ডেস্ক

ক্যান্ডি টেস্টের চর্তুথ দিন শেষেই জন্ম দিয়েছিল রোমাঞ্চের। অবশেষে কাল পঞ্চম দিনে সব রোমাঞ্চের অবসান ঘটিয়ে মাত্র ৮.৪ ওভারেই লঙ্কানদের ৫৭ রানে গুটিয়ে দিয়ে জয় তুলে নিয়েছে সফরকারীরা। আর তাতে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে তিন টেস্টে ২-০ ব্যবধানে সিরিজ জিতে ১৭ বছরের অপেক্ষা ঘুচালো ইংলিশরা। এর আগে লঙ্কার মাটিতে ২০০১ সালে সিরিজ জিতেছিল ইংল্যান্ড। ২০১২ সালের পর এশিয়ার মাটিতে ইংলিশদের এটি দ্বিতীয় সিরিজ জয়।

গল টেস্টে নাস্তানাবুদ হওয়ার পর ক্যান্ডি টেস্টে সিরিজ বাঁচাতে কম চেষ্টা করেনি শ্রীলঙ্কা। কিন্তু ইতিহাসটা পক্ষে ছিল ইংল্যান্ডের। প্রথম বিশ্বযুদ্ধের পর থেকে এখন পর্যন্ত কোনো টেস্টের পঞ্চম দিনে তিন উইকেট হাতে রেখে ৬৫ বা তার বেশি রান তাড়া করে জয় পেয়েছিল মাত্র চারটি দল। তাই স্বাগতিকদের জয় পেতে হলে নতুন করে ইতিহাস রচনা করতে হতো। কিন্তু, নিরোশন ডিকভেলারা নতুন করে ইতিহাস লিখতে পারেননি।

ক্যান্ডি টেস্টের পঞ্চম ও শেষ দিনে স্বাগতিকদের জয়ের জন্য প্রয়োজন ছিল ৭৫ রান। দলের একমাত্র ভরসা ছিল ডিকভেলা। কিন্তু আগের দিনের ২৭ রানের সঙ্গে মাত্র আট রান যোগ করে সাজঘরে ফেরেন তিনি। ব্যক্তিগত ৩৫ রানে এই লঙ্কানকে মাঠছাড়া করেন মঈন আলি। লঙ্কানদের সংগ্রহ তখন আট উইকেটে ২৪০ রান। পরে স্কোরবোর্ডে মাত্র তিন রান যোগ করতেই গুটিয়ে যায় স্বাগতিকরা। তাতে ৫৭ রানে ঐতিহাসিক জয় তুলে নেয় জো রুটের দল। ইংলিশদের পক্ষে পাঁচ উইকেট নিয়েছেন জ্যাক লিচ। মঈন আলি নেন চার উইকেট এবং একটি শিকার আদিল রশিদের।

শ্রীলঙ্কার দুই ইনিংসের ১৯টি উইকেটই নিয়েছে ইংলিশ স্পিনাররা। একটি রান আউট। ৩৬৩ টেস্টে ম্যাচের মধ্যে এই নিয়ে তৃতীয়বার জয় পেয়েছে ইংল্যান্ড যেখানে পেসাররা কোনো উইকেট নিতে পারেননি।

এ জয়ের পর ইংলিশ লেগ স্পিনার আদিল রাশিদ বলেন, ‘খুব ভালো লাগছে। আমাদের দলে তিনজন স্পিনার আছে। ইতিহাস গড়তে ভালোই লাগে এবং আমরা পারি।’ হারের পর শ্রীলঙ্কান অধিনায়ক সুরেন্দ্র লাকমাল বলেন, ‘দুই দলই ভালো ক্রিকেট খেলেছে। চ্যালেঞ্জিং উইকেটে ভালো পাঁচটা দিন গেল।’

ক্যান্ডি টেস্টের ম্যান অব দ্য ম্যাচ হয়েছেন ইংলিশ অধিনায়ক জো রুট। সফরের শেষ হবে ২৩ নভেম্বর, কলম্বোতে।

 

"