অশনি সংকেত ইংলিশ লিগে

প্রকাশ : ১৬ নভেম্বর ২০১৮, ০০:০০

ক্রীড়া ডেস্ক

ইংল্যান্ড যে ইউরোপীয় ইউনিয়ন থেকে বেরিয়ে আসতে চাচ্ছে তা পুরনো খবর। ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে’র সিদ্ধান্তটি আপাত দৃষ্টিতে যুগান্তকারী মনে হলেও বড় ধরনের সমস্যার মুখোমুখি হতে পারে ইংলিশ প্রিমিয়াল লিগ। আলোচনায় প্রবেশের আগে একবার ভেবে দেখুন তো, ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড নেই অ্যালেক্সিস সানচেজ, পল পগবা বা ডেভিড ডি গিয়া, ম্যানচেস্টার সিটির জার্সিতে নেই ভিনসেন্ট কোম্পানি, সার্জিও আগুয়েরো বা ডেভিড সিলভা, চেলসির জার্সিতে ইডেন হ্যাজার্ড, সেস্ক ফেব্রিগাস, লিভারপুলে নেই মোহাম্মদ সালাহ, সাদিও মানে, অ্যালিসন, কিংবা আর্সেনালের খেলছেন না মেসুত ওজিল বা আলেক্সান্দ্রে লাকাজাত্তের মতো তারকারা।

বিদেশি ফুটবলাররা যদি না থাকেন তবে নিঃসন্দেহে জৌলুশ হারাবে প্রিমিয়াল লিগের শত বছরের ইতিহাস। ধাক্কা খাবে অর্থনৈতিকভাবেও।

কিন্তু দুর্ভাগ্যজনক হলেও সত্যি, ঠিক এমন একটা শঙ্কাই পেয়ে বসেছে প্রিমিয়ার লিগকে। ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ) থেকে ব্রিটেনের বের হয়ে আসা, অর্থাৎ ‘ব্রেক্সিটৎ-এর জের ধরে এমন একটি সিদ্ধান্ত হতে যাচ্ছে যে ইংলিশ ক্লাবগুলোয়। যেখানে অব্রিটিশ খেলোয়াড়দের সংখ্যা আরো কমানো হবে ব্রিটিশদের মাটিতে বেড়ে ওঠা খেলোয়াড়দের প্রতিভার সুষ্ঠু বিকাশের জন্য।

২০১৬ সালের জুন মাসের এক ঐতিহাসিক গণভোটে ইইউ থেকে স্থায়ীভাবে বের হয়ে যাওয়ার পক্ষে ভোট পড়ে ব্রিটেনে। আর এতে ইইউয়ে থাকাকালে যেসব সুযোগ-সুবিধা পেত, এখন থেকে আস্তে আস্তে ব্রিটেন সেসব সুবিধা ‘ব্রেক্সিট’ হলে আর পাবে না। এর মধ্যে আছে ইউরোপের মধ্যে নাগরিকদের চলাচলের স্বাধীনতা। ইইউয়ের অন্তর্ভুক্ত দেশের ফুটবলাররা ইইউয়ের এক দেশ থেকে অন্য দেশে কাজ করতে গেলে, অর্থাৎ ফুটবল খেলতে গেলে, কোনো ধরনের ওয়ার্ক পারমিট কিংবা ছাড়পত্রের প্রয়োজন হয় না। পারমিট না থাকলে ইউরোপের খেলোয়াড়রা ইইউভুক্ত কোনো দেশের ক্লাবের হয়ে খেলতে পারবেন না। যে কারণে প্রিমিয়ার লিগে অব্রিটিশ খেলোয়াড়দের সংখ্যা হ্রাস পাবে।

প্রিমিয়ার লিগে প্রতিটি ক্লাব বিদেশি খেলোয়াড় রাখতে পারে ১৭ জন করে। ব্রেক্সিট হলে সেই সংখ্যা কমে আসবে ১২ জনে। নতুন এই প্রস্তাব বাস্তবায়িত হলে প্রিমিয়ার লিগের ২০টি ক্লাবের ১৩টি পড়ে যাবে বড় ঝামেলায়। কারণ তাদের রয়েছে ১২ জনের উপরে বিদেশি খেলোয়াড়। বর্তমানে ম্যানসিটি ও টটেনহামে আছে সর্বোচ্চ ১৭ জন। লিভারপুল ও চেলসির রয়েছে ১৬ জন, আর্সেনালে ১৫ জন এবং ১৪ জন আছে ম্যানইউতে। এ ছাড়া ব্রেক্সিটের ফলে ১৮ বছরের কম বয়সী খেলোয়াড় কিনতে পারবে না ইংল্যান্ডের ক্লাবগুলো। আগে ইইউভুক্ত দেশগুলো চাইলে ১৫ থেকে ১৭ বছর বয়সী খেলোয়াড় কেনাবেচা করতে পারত। সেই সুবিধা নিয়েই স্প্যানিশ ক্লাব বার্সেলোনা ফেব্রিগাসকে

আর্সেনাল থেকে কিনে নিয়েছিল। আর এসব যদি বন্ধ হয়ে তবে বড় ধরনের ঝুঁকিতে পড়তে পারে প্রিমিয়ার লিগ।

"