প্রথম দিন সমানে সমান

প্রকাশ : ১৫ নভেম্বর ২০১৮, ০০:০০

ক্রীড়া ডেস্ক

আগের টেস্টে বিদায় নিয়েছেন নব্বই দশকের শেষ ক্রিকেটার রঙ্গনা হেরাথ। হেরাথ পরবর্তী শ্রীলঙ্কা যুগের শুরু হয়ে গেল কাল থেকে। ক্যান্ডিতে সফরকারী ইংল্যান্ডের বিপক্ষে দ্বিতীয় টেস্ট খেলতে নেমেছে লঙ্কানরা। প্রথম দিনে দুই দলের যা পারফরম্যান্স তাতে করে নির্দিষ্ট কোনো দলকে এগিয়ে রাখা কঠিন। লঙ্কানদের দুর্দান্ত বোলিং তোপে প্রথম ইনিংসে ইংল্যান্ড গুটিয়ে গেছে ২৮৫ রানে। জবাব দিতে নেমে স্বস্তি নিয়ে দিন শেষ করতে পারেনি স্বাগতিক শিবির। শেষ বিকেলে ১ উইকেট হারিয়ে ২৬ রান তুলেছে শ্রীলঙ্কা। আজ দ্বিতীয় দিন উইকেটে আসবেন দিমুথ করুনারতেœ (১৯*) ও মালিন্ডা পুষ্পাকুমার (১*)। প্রথম ইনিংসে ২৫৯ রান পিছিয়ে ব্যাট করতে নামবে শ্রীলঙ্কা।

কাল টস জিতে আগে ব্যাট করতে নামে ইংল্যান্ড। কিন্তু খুব একটা সুবিধা করতে পারেনি ইংলিশরা। দিনের শুরুতেই তাদের চেপে ধরেন লঙ্কান বোলাররা। দলীয় ৭ রানে প্রথম উইকেট শিকার করেন সুরঙ্গ লাকমাল। কেয়াটন জেনিংস মাত্র ১ রান তুলেই বিদয়ে নিয়েছেন। নিয়মিত বিরতিতে উইকেট খোয়ানো সফরকারীরা ৮৭ রান তুলতে হারিয়েছে আরো ৩ উইকেট। উইকেটে থিতু হওয়ার পর সাজঘরে ফিরে গেছেন বেন স্টোক্স (১৯), জো রুট (১৪) এবং ররি বার্নস (৪৩)। এই ত্রয়ী দ্রুত আউট হলে চাপের মুখে পড়ে ইংল্যান্ড। তাদের লড়াইয়ে ফেরান জস বাটলার। তার দানবীয় ব্যাটিংয়ে কক্ষপথে ফেরে ইংলিশরা। রীতিমতো ওয়ানডে মেজাজে ব্যাট চালিয়েছেন বাটলার; ৬৭ বলে করেছেন ৬৩ রান। দ্রুতগতিতে রান তুলতে যাওয়াটাই কাল হয়ে দাঁড়িয়েছিল বাটলারের জন্য। তাকে ফেরান পুষ্পকুমার। ১০ রানে থাকা মঈন আলিকেও ২২ গজ ছাড়া করেন তিনি। আগের টেস্টে অভিষেক রাঙানোর বেন ফোক্স কাল সাজঘরে ফিরে গেছেন মাত্র ১৯ রানে। তাকে আউট করেন দিলরুয়ান পেরেরা।

১৭১ রানে ৭ উইকেট হারিয়ে বিপাকে পরে ইংল্যান্ড। সাতে নামা স্যাম কুরানের দুর্দান্ত এক ইনিংসে ফের লড়াইয়ে ফেরে ইংলিশরা। আদিল রশিদকে নিয়ে ৪৫ রানের জুটি গড়েন কুরান। ব্যক্তিগত ৩১ রানে আউট হন রশিদ। লঙ্কানদের ওপর বেশ চড়াও হন কুরান। ৬৪ রানের ইনিংসে ৬টি ছক্কা হাঁকান এই ইংলিশ অলরাউন্ডার। ইনিংস খেলার পথে জেমস অ্যান্ডারসনকে নিয়ে ৬০ রানের জুটি গড়েন তিনি। এর মধ্যে মধ্যে ৪৮ রানই কুরানের। পেরারার বলে আউট হওয়ার আগে ইনিংসে একটি চার মেরেছিলেন এই ইংলিশ তরুণ। শ্রীলঙ্কার পক্ষে সর্বোচ্চ ৪ উইকেট শিকার করেন দিলরুয়ান পেরেরা। পুষ্পাকুমার নেন ৩ উইকেট। আকিলা ধনঞ্জায়ার শিকার ২টি।

"