খেলার মাঠ থেকে রাজনীতির ময়দানে যারা

প্রকাশ : ১৪ নভেম্বর ২০১৮, ০০:০০

ক্রীড়া প্রতিবেদক

খেলোয়াড়দের কাজ হচ্ছে মাঠে আলো ছড়ানো। প্রতিপক্ষকে ঘায়েল করে জয় তুলে আনা। তবে রাজনীতির মাঠেও খেলোয়াড়দের গোল বা উইকেট শিকারের জুড়ি নেই। চলতি বছরই ক্রীড়াঙ্গনের দুই তারকা নিজ দেশের প্রেসিডেন্ট হওয়ার অনন্য নজির স্থাপন করেছেন। প্রথম ক্রীড়াবিদ হিসেবে আফ্রিকান ফুটবল কিংবদন্তি জর্জ উইয়াহ প্রেসিডেন্ট হয়েছেন লাইবেরিয়ার। একই পথে হেঁটেছেন পাকিস্তানের বিশ্বকাপজয়ী ক্রিকেট কিংবদন্তি ইমরান খান।

বাংলাদেশ বা ভারতে এখনো কেউ প্রেসিডেন্ট বা প্রধানমন্ত্রীত্বে না এলেও সংসদ সদস্য হিসেবে ক্ষমতায় বসেছেন আগেই। এবারও সেই ধারার জোয়ার দেখা যাচ্ছে বাংলাদেশের ক্রীড়া ব্যক্তিত্বদের মধ্যে। গত নির্বাচনে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছিলেন বাংলাদেশের প্রথম টেস্ট অধিনায়ক নাঈমুর রহমান দুর্জয়। মানিকগঞ্জ-১ আসন থেকে নাঈমুর এবারও নির্বাচন করবেন বলে জানা যায়।

২৩ ডিসেম্বর নির্বাচন হওয়ার কথা থাকলেও তা পিছিয়ে সময়সূচি নির্ধারণ হয়েছে ৩০ ডিসেম্বর। সেই নির্বাচনের উত্তাপটা ছড়িয়ে পড়েছে রাজনীতির রাজপথ, খেলার মাঠ, বিনোদনের জগৎ থেকে সাধারণ জনজীবনেও। কয়েক দিন আগে বাংলাদেশ ক্রিকেটের দুই তারকা মাশরাফি বিন মর্তুজা ও সাকিব আল হাসানের আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন ফরম নেওয়ার কথা ছিল। তবে নাম্বার সেভেনটি ফাইভ সংসদ সদস্য পদপ্রার্থী থেকে সরে এলেও রাজনীতির উত্তাপটা বাড়িয়ে দিয়েছেন ম্যাশ। নড়াইলের একটি আসন থেকে মনোনয়ন ফরম কিনেছেন টাইগার ওয়ানডে অধিনায়ক।

আসন্ন সংসদ সদস্য নির্বাচনে পিছিয়ে নেই দেশের ফুটবলাররাও। নির্বাচনের জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছেন পাঁচ সাবেক ফুটবল তারকা। আবদুস সালাম মুর্শেদীয়, দেওয়ান শফিউল আরেফিন টুটুল, খুরশিদ আলম বাবুল, আরিফ খান জয় ও আমিনুল হক ইতোমধ্যে মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছেন। তার মধ্যে কেবল আমিনুল ইসলাম ছাড়া বাকি চারজনই ফরম নিয়েছেন আওয়ামী লীগ থেকে। নির্বাচনটা বিএনপি থেকে করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন বাংলাদেশ জাতীয় দলের সাবেক গোলরক্ষক আমিনুল।

সালাম মুর্শেদী ও আরিফ খান জয় আগে থেকেই সংসদে বসার অভিজ্ঞতা অর্জন করেছেন। কিছুদিন আগেই খুলনা-৪ আসনের উপনির্বাচনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন মুর্শেদী। এবারও একই আসন থেকে মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছেন তিনি। আর বর্তমান ক্রীড়া উপমন্ত্রী ও জাতীয় দলের সাবেক অধিনায়ক জয়ের প্রস্তুতিও প্রায় শেষের দিকে। গতকালই নেত্রকোনা-২ (সদর) আসন থেকে মনোনয়ন ফরম কেনার কথা জানান তার ভাই সাবেক ফুটবলার অমিত খান শুভ্র।

শফিউল আরেফিন টুটুল মনোনয়ন ফরম নিয়েছেন মানিকগঞ্জ-২ আসন থেকে। ২০০১ সালের নির্বাচনে সংসদ সদস্য পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছিলেন তিনি। তবে সফল হননি। এ ছাড়া টাঙ্গাইল-৬ আসন থেকে আওয়ামী লীগের হয়ে মনোনয়ন ফরম কিনেছেন আবাহনী ও মোহামেডানের একসময়ের তারকা মিডফিল্ডার খুরশিদ আলম বাবুল।

 

"