আন্তর্জাতিক প্রীতি ম্যাচ

জিতেও অখুশি ব্রাজিল

সৌদি আরব ০ : ২ ব্রাজিল

প্রকাশ : ১৪ অক্টোবর ২০১৮, ০০:০০

ক্রীড়া ডেস্ক

বিশ্বকাপ পরবর্তী পুনর্বাসন প্রক্রিয়ায় ভালো এগোচ্ছে ব্রাজিল। টানা তিনটি প্রদর্শনী ম্যাচে জয় তুলে নিয়েছে পাঁচবারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়নরা। সেলেকাওদের এবারের জয়টি এসেছে সৌদি আরবের বিপক্ষে ২-০ গোলে। কিং সৌদ বিশ্ববিদ্যালয় স্টেডিয়ামে ব্রাজিলের পক্ষে গোল দুটি করেছেন গ্যাব্রিয়েল জেসুস ও অ্যালেক্স সান্দ্রো। দুজনেরই গোলের রূপকার নেইমার।

ম্যাচের শুরু থেকেই সৌদি আরবের রক্ষণ তটস্থ করে রাখে ব্রাজিল। কিন্তু গোলমুখ খুলতে পারছিল না সেলেকাওরা। অবশেষে ৪৩ মিনিটে স্বস্তির গোলটি করেন ম্যানচেস্টার সিটি স্ট্রাইকার জেসুস। তার গোল থেকে প্রাপ্ত লিড নিয়ে বিরতিতে যায় ব্রাজিল।

নেইমারের পাস থেকে বল পেয়ে নিখুঁত শটে বল জালে জড়ান জেসুস। অবশ্য এর অনেক আগেই গোলের সুযোগ পেয়েছিলেন নেইমার নিজেই। সৌদি আরব গোলরক্ষকের দুর্দান্ত প্রতিরোধের মুখে ম্যাচের ১২ মিনিটে নেইমারের শটটি আটকে যায়। দ্বিতীয়ার্ধে গোল ব্যবধানে এগিয়ে থেকে খেলা শুরু করলেও ফিনিশিংয়ের অভাবে ভোগে ব্রাজিল।

গোলমুখে ব্রাজিলের ১৫টি শট আর সেগুলোর মাত্র ৫টি লক্ষ্যে রাখতে পারার পরিসংখ্যান সে কথাই তো বলে! সাবেক বিশ্ব চ্যাম্পিয়নদের একের পর এক আক্রমণ সৌদি রক্ষণে গিয়ে যেন মুখ থুবড়ে পড়ে। কখনো কখনো সৌদি গোলরক্ষকের দক্ষতায় বেঁচে যায় স্বাগতিকেরা। তবে মড়ার ওপর খাঁড়ার ঘায়ের মতো খেলার শেষ দিকে ১০ জনের দলে পরিণত হয় সৌদি আরব। ম্যাচের ৮৫ মিনিটে সরাসরি লাল কার্ড দেখে মাঠ ছাড়েন সৌদি খেলোয়াড় মোহামেদ আল ওয়াইজ। ১০ জনের সৌদিকে চেপে ধরার সুফলটা ব্রাজিল পেয়েছে ম্যাচের শেষ মুহূর্তে। যোগ করা সময়েল ষষ্ঠ মিনিটে নেইমারের দুর্দান্ত কর্নার কিক থেকে গোল করেন জুভেন্টাস তারকা সান্দ্রো।

দুই গোলের এই জয় দিয়ে সুপার ক্লাসিকোর প্রস্তুতি সারল ব্রাজিল। ম্যাচটা অবশ্য প্রীতি ম্যাচ। কিন্তু ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা ম্যাচ যে প্রীতি ম্যাচের আবহে থাকে না সেটা মনে করিয়ে দিলে ব্রাজিল কোচ টিটে। একইসঙ্গে সৌদি ম্যাচে নিজেদের পারফরম্যান্সের অসন্তোষটা প্রকাশ করেছেন তিনি। বলেছেন, ‘শুরু থেকে আমরা যেমনটা ভেবেছিলাম, তেমনটা পারফর্ম করিনি। পারফরম্যান্সটা ছিল এই দলের মানদন্ডের চেয়ে নিচে। আমরা এর চেয়ে আরো ভালো খেলি, আরো সুযোগ তৈরি করি, প্রতিদ্বন্দ্বিতা করি। আরো বেশি মনোযোগ রাখি। বেশির ভাগই ছিল আমাদের সাধারণ মাত্রার চেয়ে নিচে। আমরা সন্তুষ্ট করার মতো ছিলাম না। ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা ম্যাচ কখনোই প্রীতি হয় না। আমরা সেটার জন্য আরো ভালো আশা করব।’

সৌদি ম্যাচ জিতলেও কোচের মতো নিজেদের পারফরম্যান্সে অখুশি হয়েছেন অধিনায়ক নেইমারও। ম্যাচ শেষে তিনি বলেছেন, ‘আমরা দারুণ পারফরম্যান্স দেখাইনি। কিন্তু ধারাবাহিক ছিলাম। আমরা নিজেদের সামর্থ্য সম্পর্কে জানি। দলে অনেক পরিবর্তন আছে। মাঠে আরেকটু বেশি বোঝাপড়া থাকা দরকার।’

এই ম্যাচ থেকে ব্রাজিলের জন্য সবচেয়ে বড় প্রাপ্তি জেসুস ও নেইমারের বোঝাপড়া। বিশ্বকাপে গোলহীন থাকা ম্যানচেস্টার সিটির এই স্ট্রাইকারকে নিয়ে কম সমালোচনা হয়নি। ব্রাজিলের আগের দুই প্রীতি ম্যাচে না খেলা জেসুস বলছেন, সেই দুঃস্মৃতি মুছে ফেলতে চান তিনিও, ‘বিশ্বকাপের পর আমি ভীষণ ভেঙে পড়েছিলাম। বিশ্বকাপ শেষ করে সোজা মায়ের বাড়িতে চলে যাই। বাড়িতেই পরিবারের লোকজনের সঙ্গে ছিলাম। যে বিশ্বকাপের স্বপ্ন আমি দেখেছিলাম, তা হয়নি। আরো অনেক বেশি কিছু করার আশা করেছিলাম। দুর্ভাগ্যজনকভাবে বিশ্বকাপটা জেতা হয়নি। তবে আশা করি, এখন থেকে সবকিছু আমার পক্ষে যাবে। আবার ব্রাজিলের জার্সিতে খেলতে পেরে ভালো লাগছে। গোল পেয়ে আরো ভালো লাগছে।’

 

"