অল্পের জন্য বেঁচে গেল ফ্রান্স

প্রকাশ : ১৩ অক্টোবর ২০১৮, ০০:০০

ক্রীড়া ডেস্ক

ঐতিহাসিক জয়টা প্রায় হাতে মুঠোই চলে এসেছিল আইসল্যান্ডের। কিন্তু শেষ মুহূর্তের পেনাল্টি গোলে কপাল জোরে বেঁচেছে বিশ্বকাপজয়ী ফ্রান্স। সাম্প্রতিক পারফরম্যান্স বা অতীত ইতিহাস দুটোই ছিল বর্তমান বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন ফ্রান্সের পক্ষে। কিন্তু সব পরিসংখ্যান বা অন্যান্য প্রভাবককে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে বিশ্ব চ্যাম্পিয়নদের ঘোল খাইয়েছে আইসল্যান্ড। জাগিয়েছিল ফ্রান্সের বিপক্ষে নিজেদের প্রথম জয়ের সম্ভাবনাও। দুই গোলে এগিয়ে থাকার পরও ফ্রান্সের শেষ মুহূর্তের ঝলকানিতে ২-২ গোলে ড্র করেছে আইসল্যান্ড।

প্রথমবারের মতো রাশিয়া বিশ্বকাপে এসেই চমক জাগানিয়া পারফরম্যান্স দেখিয়েছিল আইসল্যান্ড। আর্জেন্টিনার দলকে জয় পেতে দেয়নি তারা। পরশুর প্রীতি ম্যাচেও ফ্রান্সকে নাকানি-চুবানি খাইয়েছে তারা। ফ্রান্সের বিপক্ষে এর আগে ৯ বার দেখা হয়েছে আইসল্যান্ডীয়দের। ছয় ম্যাচে হারের পাশাপাশি তিনটিতে ড্র করেছিল ইউরোপের ছোট রাষ্ট্রটি। তবে পরশু দিদিয়ের দেশমের কপালের ভাঁজটা বাড়িয়ে দিয়েছিলেন এরিক হামরেনের শিষ্যরা।

ফ্রান্সের ঘরের মাঠ গুইগাম্পের স্তাদিওতে হওয়া ম্যাচে যদিও আধিপত্য বিস্তার করে খেলেছে দুইবারের বিশ্বকাপজয়ীরা। কিন্তু অ্যান্তনিও গ্রিজম্যান-কিলিয়ান এমবাপ্পেদের হতাশ ২-০ গোলে এগিয়ে গিয়েছিল আইসল্যান্ড। ৩০ মিনিটে বিজারসনের গোলের পর ৫৮ মিনিটে আইসল্যান্ডের ব্যবধানটা দ্বিগুণ করেছিলেন আরনাসন। কিন্তু ৮৬তম মিনিটে আত্মঘাতী গোল ও অতিরিক্ত সময়ে এমবাপ্পের পেনাল্টি গোলে হার এড়ায় ফ্রান্স।

আরেক প্রীতি ম্যাচে গ্যারেথ বেলবিহীন ওয়েলসের বিপক্ষে বড় জয় পেয়েছে স্পেন। পরশু কার্ডিফে জাতীয় স্টেডিয়ামে রাশিয়া বিশ্বকাপের ব্যর্থতা ভুলে দুর্দান্ত খেলতে থাকা স্প্যানিশরা পাকো আলেসারের জোড়া গোলে ৪-১ ব্যবধানে উড়িয়ে দিয়েছে ওয়েলসকে।

রাশিয়া বিশ্বকাপে শেষ ১৬ থেকে বাদ পড়ার পর টানা তিন ম্যাচে জয়ের ধারা অব্যাহত রেখেছে স্পেন। গত মাসে উয়েফা নেশনস লিগে ইংল্যান্ডের মাটিতে ২-১ গোলে জেতার পর ঘরের মাঠে ক্রোয়েশিয়াকে বিধ্বস্ত করেছে ৬-০ গোলে।

পরশু লা রোজাদের ধারাবাহিক আগুনে পুড়ল ওয়েলস। আট মিনিটে আলেসারের গোলের পর ১৯ মিনিটে ব্যবধানটা দ্বিগুণ করেন সার্জিও রামোস। এরপর ২৯ মিনিটে পুনরায় মঞ্চের আলো কেড়ে নেন আলেসার। ৭৪ মিনিটে ব্যবধানটা ৪-০ করেন মার্ক বার্ত্রা। শেষ বাঁশি বাজার এক মিনিট আগে ওয়েলসের হয়ে একটি গোল শোধ করেন স্যাম ভোকস।

 

"