সাকিবের আঙুলে সংক্রমণ

উত্তর খুঁজছে বিসিবিও

প্রকাশ : ১০ অক্টোবর ২০১৮, ০০:০০

ক্রীড়া প্রতিবেদক

ঝুঁকি নিয়েই এশিয়া কাপ খেলতে গিয়েছিলেন সাকিব আল হাসান। কিন্তু টুর্নামেন্ট শেষ করে আসতে পারেননি বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার। ফিরে এসেছেন দেশে। বড় ধরনের বিপদেই পড়তে পারতেন সাকিব। সেই ঝুঁকিটা তিনি এড়িয়েছেন ঢাকায় একটি হাসপাতালে আঙুলের অস্ত্রোপচার করিয়ে। তবে শঙ্কা শেষ হয়ে যায়নি তাতে। সাকিবের বাঁ হাতের কনিষ্ঠ আঙুলের সংক্রমণ হয়েছে। আঙুল আর স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরবে না বলেও বেরিয়েছে খবর। আপাতত অস্ট্রেলিয়ার একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন সাকিব। স্বস্তির খবর হচ্ছে আপাতত অস্ত্রোপচার করাতে হবে না তাকে।

সাকিব এশিয়া কাপ খেলবেন কিনা এনিয়ে সংশয়ের শেষ ছিল না। বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার নাকি সার্জারি করাতে চেয়েছিলেন টুর্নামেন্টের আগে। সেই তিনিই ঝুঁকি নিয়েই দলের সঙ্গে সংযুক্ত আরব আমিরাতে উড়ে যান। বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) চাপে নাকি সাকিব এশিয়া কাপ খেলেছেন সাকিব। এ ধরনের অভিযোগ উড়িয়ে দিলেন বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপান। কাল গণমাধ্যমের কাছে তিনি দাবি করলেন নিজের সিদ্ধান্তেই এশিয় কাপ খেলেছেন সাকিব। নাজমুল বলেছেন, ‘মক্কায় ও আমাকে জিজ্ঞেস করল যে কী করব। আমি বললাম, ‘এটা তোমাদের সিদ্ধান্ত।’ মদিনায় এসেও ওকে বললাম, ‘দেখো, তুমি এরকম ঝুঁকি নিও না, ডাক্তার-ফিজিওর সঙ্গে কথা বল। সেরা কোনো ডাক্তারকে দেখিয়ে তার পর সিদ্ধান্ত নাও।’ ও আমাকে বলল, ‘ফিজিও বলেছেন কোনো সমস্যা নেই। আমি আবার ওকে বললাম, ‘খেললে কি এটা খারাপ হতে পারে?’ ও বলল, ‘না।’

বিসিবির প্রধানকর্তা দাবি করলেন সাকিব যে এশিয়া কাপে খেলছেন সেটা তিনি জেনেছেন অনেক পড়ে। নাজমুল বলেছেন, ‘ঢাকায় ফেরার চারদিন পর আমি কোচের একটা মেইল পেলাম যে, সাকিব দলের সঙ্গে যাচ্ছে না। আমেরিকা থেকে সরাসরি এশিয়া কাপ খেলতে যাবে। ওই প্রথম আমি জানলাম যে সাকিব এশিয়া কাপ খেলছে। তার আগ পর্যন্ত জানিই না যে ও খেলবে।’

এশিয়া কাপ চলাকালীন ফিজিওর পর্যবেক্ষণে ছিলেন সাকিব। তবু কেন সাকিবের আঙুলে সংক্রমণ হলো সেই প্রশ্নের উত্তরটা যেন বিরাট এক রহস্য। বিসিবি নিজেও খুঁজছেন উত্তরটা। নাজমুল বলেছেন, ‘কালকে (সোমবার) ওর সঙ্গে আমার কথা হয়েছে। আমি জানতে চাইলাম যে ডাক্তাররা কী বলেছেন, এ রকম কেন হলো। কারণ, ও তো খেলতে গিয়ে ব্যথা পায়নি। আমাদের কাছে এটা বিরাট প্রশ্ন যে হঠাৎ করে সংক্রমণ হয়ে এত পুঁজ, এসব হলো কী করে? আমরা এটা জানার চেষ্টা করছি।’

ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফর শেষে দেশে ফিরেই দ্রুত অস্ত্রোপচারের কথা জানিয়েছিলেন সাকিব। তখন বিসিবি প্রধানের চাওয়া ছিল সম্ভব হলে এশিয়া কাপের পর অস্ত্রোপচার করানো হয়। সরাসরি চাপ না দিলেও বোর্ড প্রধানের এমন চাওয়ায় প্রচ্ছন্ন চাপ ছিল কিনা এনিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। উত্তরে মাশরাফি-মুশফিকদের উদাহরণ হিসেবে সামনে আনলেন নাজমুল। বলেছেন, ‘আমি বলেছিলাম যদি কিছু না হয়, যদি খেলতে পারে তাহলে এশিয়া কাপের পরে হতে পারে সার্জারি। অনেকে ভাবছে যে কেন বললাম আমি। এখন মুশফিক ইনজুরি নিয়ে খেলছে, মাশরাফি প্রচন্ড ঝুঁকি নিয়ে খেলছে, এমনকি মিরাজও বড় ক্র্যাম্প নিয়ে ফাইনাল খেলেছে। তামিমকে কী আমরা বলেছিলাম মাঠে নামতে? আমি এটাই বলেছিলাম যদি পারে তাহলে খেলতে। কোনো চাপ নেই।’

সাকিবের দ্রুত উন্নতিতে খুশি হয়েছেন নাজমুল। বলেছেন, ‘ও ভালো হয়ে যাবে। এখন পর্যন্ত খুব ভালোভাবে রিকভারি হচ্ছে। ও আমাকে বলেছে, ডাক্তাররা বলেছে তিন মাস পর খেলতে পারবে। অপারেশনের কথা জিজ্ঞেস করেছি। বলল অপারেশন করে কোনো লাভ নেই। আপাতত অপারেশন লাগবে না। এখন সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে আসতে শুরু করেছে।’

"