লিঁওর জালে এমবাপ্পের চার

প্রকাশ : ০৯ অক্টোবর ২০১৮, ০০:০০

ক্রীড়া ডেস্ক

রাশিয়া বিশ্বকাপে অসাধারণ নৈপুণ্যে ফ্রান্সকে বিশ্বকাপ জিতিয়েছেন কিলিয়ান এমবাপ্পে। ব্যক্তিগতভাবে জিতেছিলেন টুর্নামেন্টের সেরা উদীয়মান খেলোয়াড়ের পুরস্কার। তার দুর্দান্ত গতি, প্রেসিং ও জোড়া গোলের সুবাদেই তো দ্বিতীয় রাউন্ডে আর্জেন্টিনার মতো দলকে আসর থেকে বিদায় জানিয়েছিল ফ্রান্স। এমবাপ্পে বিশ্বকাপের ধারাবাহিকতা টেনে এসেছেন ফ্রেঞ্চ লিগ ওয়ানেও। পরশু লিঁওকে নিয়ে তো ছেলেখেলাই খেললেন এই ১৯ বছর বয়সী ফরওয়ার্ড। হ্যাটট্রিক তো বটে, প্রতিপক্ষের জালে গুনে গুনে বল জড়িয়েছেন মোট চারবার। তার অনবদ্য পারফরমেন্সে প্রথমার্ধে ১০ জনের দল হয়েও ঘরের মাঠ পার্ক দ্য প্রিন্সেসে পিএসজি জিতেছে ৫-০ ব্যবধানে।

পাঁচ গোলে উৎসবটি প্রথম শুরু করেন নেইমার। গত ম্যাচে জোড়া গোল করা ব্রাজিলিয়ান ফরওয়ার্ড পিএসজিকে ৯ মিনিটে এগিয়ে দেন পেনাল্টি থেকে। তবে ৩১ মিনিটে লাল কার্ড দেখায় প্রেসনেল কিমবাপ্পেকে হারিয়ে ১০ জনের দলে পরিণত হয় ফরাসি জায়ান্টরা। যার কারণে কিছুটা রক্ষণ সামলে রাখতে হয় টমাস টুখেলের শিষ্যদের। কিন্তু প্রথমার্ধের যোগ করা সময়ে দুই হলুদ কার্ড দেখে মাঠ ছাড়ে লিঁওর তোসার্ট। দ্বিতীয়ার্ধে দুই দলই মাঠে নামে ১০ জন নিয়ে।

পরের সময়টা ম্যাচের সব আলো কেড়ে নেন এমবাপ্পে। ফরাসি ফরওয়ার্ডের ১৪ মিনিটের ঝড়ে তছনছ হয়ে যায় লিঁওর রক্ষণভাগ। ৬১, ৬৬, ৬৯ ও ৭৪ মিনিটে চারবার লিঁওর জালে বল পাঠান এমবাপ্পে। এই নিয়ে চলতি মৌসুমে সর্বোচ্চ ১১ গোল করে ফ্রেঞ্চ লিগে শীর্ষে আছেন পিএসজি ফরওয়ার্ড।

তবে চার গোল করেও খুশি নন এমবাপ্পে। ম্যাচ শেষে সেই অতৃপ্তির কথায় জানান তিনি, ‘আমি বেশ কয়েকটি গোলের সুযোগ নষ্ট করেছি। আমার আরো গোল পাওয়া উচিৎ ছিল।’ এ ছাড়া ফ্রান্সের ক্যানাল প্লাস টেলিভিশনকে এমবাপ্পে বলেন, ‘আমি পরিশ্রম করে যাচ্ছি। নিজের সামর্থ্য নিয়ে আমার মধ্যে কোনো সংশয় নেই। আমি জানি, আমার সতীর্থরা সব সময় চাই আমি গোল করি। তারা আমাকে গোল করতে সহায়তা করে। আমি মনে করি, যতক্ষণ আক্রমণভাগের একজন খেলোয়াড় গোলের সুযোগ করছে, ততক্ষণ সব ঠিক আছে।’

লিঁওর মতো দলের বিপক্ষে বড় জয় পাওয়ায় শিষ্যদের প্রশংসায় ভাসিয়েছেন কোচ টুখেল। ক্যানাল টিভিকে তিনি বলেন, ‘আমি আমার দল নিয়ে বিস্মিত নই। আমি জানি আমার খেলোয়াড়দের বিশেষ সামর্থ্য আছে। এই জয় একটা উপহার। এই জয় অনবদ্য।’

লিঁওর বিপক্ষে জয়ে একটি রেকর্ডও নিজেদের করে নিয়েছে গত আসরের শিরোপাজয়ীরা। গত ৮২ বছরে ফ্রেঞ্চ লিগে কোনো দল মৌসুমের শুরুতে টানা ৯টি জয় পায়নি। ১৯৩৬ সালে অলিম্পিক লিলোইস জিতেছিল টানা ৮ ম্যাচ। সেই রেকর্ডটি কেড়ে নিয়েছে পিএসজি। টানা ৯ জয়ে ২৭ পয়েন্ট নিয়ে ফ্রেঞ্চ লিগ টেবিলের শীর্ষে আছে টুখেলের শিষ্যরা।

"