অপরাজিত চ্যাম্পিয়ন বাংলাদেশ

বাংলাদেশ ১ - ০ নেপাল

প্রকাশ : ০৮ অক্টোবর ২০১৮, ০০:০০

ক্রীড়া ডেস্ক

একের পর এক সাফল্যের জোয়ারে ভাসছে নারী ফুটবল দল। গতকাল রোববার রাতে বাংলাদেশের জন্য আরো একটি সাফল্য বয়ে এনেছে অদম্য কিশোরীরা। কাল ভুটানের চাংলিমিথাং স্টেডিয়ামে আরেকটি টুর্নামেন্টের চ্যাম্পিয়ন হয়েছে গোলাম রব্বানী ছোটনের ছাত্রীরা। তাও আবার প্রতিযোগিতায় কোনো ম্যাচ না হেরেই। সাফ অনূর্ধ্ব-১৮ নারী ফুটবল চ্যাম্পিয়নশিপের প্রথম আসরেই শিরোপা জিতে নিয়েছে বাংলাদেশ।

পাকিস্তানকে গোলবন্যায় ভাসিয়ে টুর্নামেন্টে অভিজান শুরু করেছিলেন অদম্য কিশোরীরা। পরে নেপালকে হারিয়ে সেমিফাইনাল এবং ভুটানকে বিদায় করে ফাইনালে। কাল নেপালকে আরো একটি পরাজয়ের স্বাদ দিয়ে স্বপ্নের শিরোপা জিতে নিয়েছে লাল-সবুজের প্রতিনিধিরা। টুর্নামেন্টজুড়ে আলো ছাড়ানো বাংলাদেশ ফাইনালে নেপালকে হারিয়েছে ১-০ গোলে। এই দলটাকেই ২-১ গোলে গ্রুপপর্বে হারিয়েছিল ছোটনের দল। সেমিফাইনালে ভুটানকে ৪-০ গোলে হারানো ম্যাচে হালকা চোটের কারণে না খেলা ফরওয়ার্ড সিরাত জাহান স্বপ্না নেপাল ম্যাচের একাদশে ফিরেন। তবে গোলশূন্য প্রথমার্ধে দলের খেলায় ছিল না চেনা ধার। ভুল পাসের কারণে মাঝ মাঠ থেকে আক্রমণ গড়ে ওঠেনি।

কৃষ্ণা রানী সরকার-স্বপ্নাকে নিয়ে সাজানো আক্রমণভাগ নেপাল গোলরক্ষকের তেমন কোনো পরীক্ষাও নিতে পারেনি। প্রথমার্ধের শেষ দিকে মারিয়া মান্দার দূরপাল্লার শট সরাসরি গোলরক্ষকের কাছে যায়। ৪৯ মিনিটে কাক্সিক্ষত গোলের দেখা পেয়ে যায় বাংলাদেশ। মাঝ মাঠের একটু ওপরে স্বপ্না ফাউলের শিকার হলে ফ্রি-কিক পায় বাংলাদেশ। মিশরাত জাহান মৌসুমীর লম্বা করে নেওয়া ফ্রি কিকে অফসাইডের ফাঁদ ভেঙে হেডে লক্ষ্যভেদ করেন ডিফেন্ডার মাসুরা পারভীন।

দুই মিনিট পরই সমতায় ফিরতে পারত সেমিফাইনালে টাইব্রেকারে ভারতকে হারিয়ে চমক দেখানো নেপাল। কিন্তু দলটির আক্রমণ পোস্টে লেগে ফিরে। বাকিটা সময় ব্যবধান বাড়াতে না পারলেও স্বস্তির জয়ে চ্যাম্পিয়নের হাসি নিয়ে মাঠ ছাড়ে বাংলাদেশ। প্রতিপক্ষের জালে ২৪ গোল করার বিপরীতে মাত্র এক গোল হজম করে টুর্নামেন্ট শেষ করল বাংলাদেশ। ৮ গোল নিয়ে প্রতিযোগিতা সর্বোচ্চ গোলদাতা হলেন বাংলাদেশের স্বপ্না।

শিরোপা নির্ধারণী ম্যাচ। ফাইনালটাও হয়েছে ফাইনালের মতোই। উত্তেজনার রেণু ছড়ানো ছিল পুরো ম্যাচেই। দক্ষিণ এশিয়ার ফুটবলে অনূর্ধ্ব ১৮ মেয়েদের পর্যায়ে সম্ভবত না! শিরোপার মীমাংসার ম্যাচে যে রকম হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের প্রত্যাশা করেন দর্শকেরা, তার সবটুকুই পাওয়া গিয়েছে কাল থিম্পুর চাংলিমিথাং স্টেডিয়ামে। লড়াইয়ের শেষটাও বাংলাদেশের দর্শকের প্রত্যাশা পূরণ করেছে। অনেকেই ধরেই নিয়েছিলেন ফাইনালে বাংলাদেশের মেয়েদের সামনে পাত্তাই পাবে না নেপাল দল। কিন্তু ম্যাচটা যে ফাইনাল, সেটা মনে করিয়ে দিল নেপাল।

"