জকোভিচের শ্রেষ্ঠত্ব অক্ষুণ্ন

প্রকাশ : ১১ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০০:০০

ক্রীড়া ডেস্ক

২০০৯ সালে নিজের প্রথম গ্র্যান্ড স্লাম ফাইনালে বাজিমাত করেছিলেন হুয়ান মার্টিন ডেল পোত্রো। শীর্ষে থাকা রজার ফেদেরারকে হারিয়ে জিতেছিলেন ইউএস ওপেন। এরপর পরশু দীর্ঘ ৯ বছর পর দ্বিতীয় গ্রান্ড স্লামের ফাইনাল খেলেছেন আর্জেন্টাইনা টেনিস তারকা। এবারও ইউএস ওপেন। প্রতিপক্ষ সার্বিয়ান টেনিস সেনসেশন নোভাক জকোভিচ। কিন্তু এবার আর কোনো চমক দেখাতে পারেননি ৩ নাম্বার বাছাই পোত্রো। ফ্ল্যাশিং মিডোর আর্থার অ্যাশ স্টেডিয়ামের লড়াইয়ে পোত্রোকে ৬-৩, ৭-৬ (৭-৪) ও ৬-৩ গেমে হারিয়ে তৃতীয়বারের মতো ইউএস ওপেন জিতেছেন জকোভিচ।

গত জুলাইয়ে উইম্বলডন জেতা জকোভিচ ফ্ল্যাশিং মিডোর জয়ে কয়েকটি রেকর্ডেও ভাগ বসিয়েছেন। ‘ব্যাক টু ব্যাক’ গ্রান্ড স্লাম জয়ীদের মধ্যে এখন তার অবস্থান চতুর্থতম। ১৪টি গ্রান্ড স্লাম জয়ে তিনি ভাগ বসিয়েছেন মার্কিন টেনিস কিংবদন্তি পিট সাম্প্রাসের রাজত্বে। গ্রান্ড স্লামে জয়ের দিক দিয়ে পুরুষ এককে যুগ্মভাবে ৩ নাম্বারে আছেন এই ৩১ বছর বয়সী তারকা। ২০টি গ্রান্ড স্লাম নিয়ে সবার ওপরে আছেন রজার ফেদেরার। ১৭টি গ্রান্ড স্লামের মালিক রাফায়েল নাদাল আছেন দ্বিতীয় স্থানে। একটা জায়গায় অবশ্য সবাইকে ছাড়িয়ে গেছেন জকোভিচ। ৯০.১ মিলিয়ন পাউন্ড প্রাইজমানি নিয়ে এতদিন শীর্ষে ছিলেন ফেদেরার। তবে এবার ইউএস ওপেনের ৯২ মিলিয়ন পাউন্ডের প্রাইজমানি নিয়ে সেই জায়গায় সবাইকে ছাড়িয়ে গেছেন ৬ নাম্বার বাছাই জকোভিচ। আয়ের দিক দিয়ে শীর্ষে আছেন টেনিসের ‘বিগ ফোর’ খ্যাত জকোভিচ, ফেদেরার, নাদাল ও অ্যান্ডি মারে।

এই জয়ে তিনি প্রশংসা পেয়েছেন প্রতিপক্ষ পোত্রো থেকেও। ম্যাচ পরবর্তী সংবাদ সংবাদ সম্মেলনে পোত্রো বলেন, ‘নোভাক খুব দ্রুত। তার রক্ষণ অত্যন্ত ভালো। নোভাকের মতো একজন প্রতিপক্ষকে হারানো সত্যি কঠিন।’

২০০৭ থেকে ইউএস ওপেনে অংশগ্রহণের পর সেমিফাইনাল খেলাটা প্রায় অভ্যাস বানিয়ে ফেলেছিলেন জোকোভিচ। ফাইনালে উঠার লড়াইয়ে তিনি হারিয়ে এসেছেন জাপানের কেই নিশিকোরিকে।

অন্যদিকে শেষ চারে পোত্রোর প্রতিপক্ষ ছিল স্প্যানিশ তারকা নাদাল। কিন্তু মাত্র তিন গেমে চোটের কারণে অবসরে চলে যাওয়ায় ফাইনালে উঠেন পোত্রো। তবে ফাইনালে পুনরাবৃত্তি করতে পারেননি তার সোনালি সময়ের। অবশ্য দ্বিতীয় গেম জিতে ফিরে আসার আভাস দিচ্ছিলেন ২৯ বছর বয়সী তারকা। কিন্তু টাইব্রেকে জিতে দ্রুত ম্যাচে ফিরেন জকোভিচ। জকোভিচ আগের দুইটি ইউএস ওপেন জিতেছেন ২০১১ ও ২০১৫ সালে। একাধিকবার উইম্বলডন ও ইউএস ওপেন জেতা অষ্টম খেলোয়াড় তিনি।

 

"