‘মৃত্যুকূপে’র ছড়াছড়ি

প্রকাশ : ০১ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০০:০০

ক্রীড়া ডেস্ক

চ্যাম্পিয়নস লিগের গত ৩ আসরের শিরোপাটা একচ্ছত্রভাবে ধরে রেখেছে রিয়াল মাদ্রিদ। স্প্যানিশ জায়ান্টরা গত আসরে কিয়েভের ফাইনালে লিভারপুলকে হারিয়েছে ৪-১ গোলে। চ্যাম্পিয়নস লিগের সর্বোচ্চ ১১ বার চ্যাম্পিয়ন দলটি এবার পড়েছে ‘জি’ গ্রুপে। তাদের অন্য ৩ সঙ্গী রোমা, সিএসকেএ মস্কো ও ভিক্টোরিয়া প্লাজেন। গত আসরের কোয়ার্টার ফাইনালে বার্সেলোনাকে হারিয়ে রূপকথার গল্প লিখেছিল ইতালিয়ান ক্লাব রোমা। গ্রুপ পর্বে রিয়ালের প্রধান বাধা বলতে রোমান গ্ল্যাডিয়েটররাই।

পরশু ফ্রান্সের মোনাকোতে ঘোষণা করা হয়েছে চ্যাম্পিয়নস লিগে ২০১৭-১৮ মৌসুমের সেরা খেলোয়াড়ের নাম। সঙ্গে ২০১৮-১৯ মৌসুমের লড়াইয়ের জন্য ইউরোপের সেরা ৩২ দলকে ভাগ করা হয়েছে ৮টি গ্রুপে। ‘বি’, ‘সি’ এবং ‘এইচ’ গ্রুপকে বলা হচ্ছে ডেথ গ্রুপ। যার মধ্যে ‘বি’ গ্রুপেই আছে ইউরোপের ৩টি পরাশক্তি।

‘বি’ গ্রুপে বার্সেলোনার প্রতিপক্ষ টটেনহাম, পিএসভি আইন্দোফেন এবং ইন্টার মিলান। ৭ বছর পর চ্যাম্পিয়নস লিগ খেলবে নেরাজ্জুরি। নিজেদের শেষ সাক্ষাতে ইতালিয়ান ক্লাবটি প্রতিপক্ষ হিসেবে পেয়েছিল টটেনহামকে। ২০১০-১১ মৌসুমের ম্যাচে বর্তমান রিয়াল উইঙ্গার গ্যারেথ বেলের নৈপুণ্যে ৪-৩ গোলে জিতেছিল স্পার্সরা। টটেনহাম এখনো চ্যাম্পিয়নস লিগ শিরোপা জিততে না পারলেও ইন্টার জিতেছে তিনবার। পাঁচবার জিতেছে বার্সেলোনা।

ড্রয়ের পর মনের আশা পূরণ হয়েছে লিভারপুল কোচ ইয়ুর্গেন ক্লপের। আগ থেকেই কঠিন গ্রুপে খেলার কথা জানিয়েছিলেন তিনি। কঠিন গ্রুপে পড়ার পর ক্লপ উয়েফাকে বলেন, ‘আমি একটা কঠিন গ্রুপের আশা করেছিলাম। অবশেষে চ্যাম্পিয়নস লিগে আমরা কঠিন গ্রুপে পড়েছি।’

‘সি’ গ্রুপে গত আসরের রানার্স আপ লিভারপুলের সবচেয়ে বড় প্রতিপক্ষ অবশ্য পিএসজি। এই দুই ক্লাবেই আছে বিশ্বের সবেচেয়ে ভয়ঙ্কর ফরওয়ার্ডরা। একদিকে মোহাম্মদ সালাহ, রবার্তো ফিরমিনো ও সাদিও মানেকে নিয়ে অলরেড। অন্যদিকে বিশ্বের সবচেয়ে দামী ফুটবলার নেইমার, এডিনসন কাভানি ও কিলিয়ান এমবাপ্পেকে নিয়ে গড়া পিএসজি। তবে তাদের চ্যালেঞ্চ ছুঁড়ে দিতে প্রস্তুত থাকবে গত মৌসুমের ইতালিয়ান সিরি’এ লিগের রানার্স আপ দল নাপোলি। এরই মধ্যে লিগে কার্লো আনচেলত্তির নেতৃত্বে দুর্দান্ত খেলছে দলটি। পরশু মডরিচের বিপক্ষে না হারলে টানা ৩টি উয়েফা বর্ষ সেরা পুরস্কার ঝুলিতে ভরতে পারতেন ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো। তবে তাতে মন খারাপ করছেন না সিআর সেভেন। নতুন মৌসুমের আগে রিয়ালের সঙ্গে ৯ বছরের সম্পর্কের ছেদ টেনে তিনি যোগ দিয়েছেন জুভেন্টাসে। তবে যে ক্লাবে খেলে তিনি হয়ে উঠেছেন রোনালদো, সেই ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডকে এবার গ্রুপ পর্বেই প্রতিপক্ষ হিসেবে পাচ্ছেন তিনি। সেই সঙ্গে সাক্ষাৎ হয়ে যাবে সাবেক কোচ হোসে মরিনহোর সঙ্গেও। অন্যদিকে ইউনাইটেড মিডফিল্ডার পল পগবাও লড়বেন তার সাবেক ক্লাব জুভেন্টাসের বিপক্ষে। তবে দুই দলের জন্য হুমকি হয়ে উঠতে পারে ভ্যালেন্সিয়া। গত কয়েক মৌসুম ধরে স্প্যানিশ লা লিগায় ববাবর ৩ নাম্বার স্থানটা ধরে রেখেছে দলটি।

 

গ্রুপ ‘এ’

অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদ, বরুসিয়া ডর্টমুন্ড, মোনাকো, ক্লাব ব্রুজ

গ্রুপ ‘বি’

বার্সেলোনা, টটেনহাম, পিএসভি আইন্দোফেন, ইন্টার মিলান

গ্রুপ ‘সি’

পিএসজি, নাপোলি, লিভারপুল, রেড স্টার বেলগ্রেড

গ্রুপ ‘ডি’

লোকোমোটিভ মস্কো, পোর্তো, শালকে ০৪, গ্যালাতাসারাই

গ্রুপ ‘ই’

বায়ার্ন মিউনিখ, বেনফিকা, আয়াক্স, এইকে অ্যাথেন্স

গ্রুপ ‘এফ’

ম্যানচেস্টার সিটি, শাখতার দানেৎস্ক, লিঁও, হফেনহেইম

গ্রুপ ‘জি’

রিয়াল মাদ্রিদ, রোমা, সিএসকেএ মস্কো, ভিক্টোরিয়া প্লাজেন

গ্রুপ ‘এইচ’

জুভেন্টাস, ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড, ভ্যালেন্সিয়া, ইয়ং বয়েজ

 

"