ফুরফুরে মেজাজে অদম্য কিশোরীরা

প্রকাশ : ১২ আগস্ট ২০১৮, ০০:০০

ক্রীড়া ডেস্ক

সাফ অনূর্ধ্ব-১৫ ফুটবল চ্যাম্পিয়নশিপে অবিশ্বাস্য সূচনা করেছে বাংলাদেশের মেয়েরা। প্রথম ম্যাচে পাকিস্তানকে রীতিমতো ফুটবল-পাঠ করিয়ে ছেড়েছেন গোলাম রব্বানী ছোটনের ছাত্রীরা। ওই জয়ের রেশটা এখনো কাজ করছে বাংলাদেশ শিবিরে। কাল অনুশীলনে ফুরফুরে মেজাজেই দেখা মিলল কিশোরীদের। তবে সতর্ক বাংলাদেশ। উচ্ছ্বাসে গা ভাসিয়ে দিচ্ছে না তারা। শিরোপা অক্ষুণœ রাখার অভিযানটা সফল করতেই মরিয়া হয়ে আছেন মারিয়া-শামসুন্নাহার-আঁখিরা। এ যাত্রায় কাল গ্রুপ পর্বের দ্বিতীয় ও শেষ ম্যাচে নেপালের মুখোমুখি হবেন তারা।

এই ম্যাচকে আসন্ন রেখে কাল ভুটানের থিম্পুর চাংলিমিথান স্টেডিয়ামে কঠোর অনুশীলন করেছে বাংলাদেশ। প্রধান কোচ গোলাম রব্বানী ছোটন ও টেকনিক্যাল অ্যান্ড স্ট্রাটেজিক ডিরেক্টরপল থমাস স্মলির তত্ত্বাবধানে ২ ঘণ্টা অনুশীলন করেন মারিয়া-আঁখিরা। যেখানে প্রত্যেকের চোখেমুখেই দারুণ কিছু করার প্রতিজ্ঞা ফুটে উঠছে। ছাত্রীদের উজ্জীবিত রাখতে নানাভাবে অনুপ্রেরণা দিয়ে যাচ্ছেন প্রধান কোচ। লক্ষ্যÑ নেপালের বিপক্ষের ম্যাচেও ছন্দটা ধরে রাখা।

দলের প্রত্যেকেই শারীরিক এবং মানসিকভাবে প্রস্তুত আছেন। মধ্য মাঠের সারথি মিডফিল্ডার নিলুফার ইয়াসমিনের কথাতেই তা পরিষ্কার, ‘আমাদের পরবর্তী ম্যাচ নেপালের সঙ্গে। এই ম্যাচে আমরা আমাদের সেরা খেলাটা খেলব।’ পাকিস্তানকে ১৪ গোলে ভাসিয়ে নিজেদের শক্তিমত্তার জানান দিয়েছে বাংলাদেশ। তবে প্রতিপক্ষ হিসেবে নেপাল যথেষ্ঠ শক্তিশালী। তবে নিজেদের ওপর যথেষ্ঠ বিশ্বাস আছে মেয়েদের। কাল অনুশীলনের ফাঁকে গণমাধ্যমকে নিলুফার বলেছেন, ‘পাকিস্তানের চেয়ে নেপাল দল শক্তিশালী। তবে আমরা যদি প্রথম ম্যাচের মতো এই ম্যাচেও খেলতে পারি তাহলে নেপাল হারানোটা আমাদের জন্য কঠিন কিছু হবে না। সবাই আমাদের জন্য দোয়া করবেন।’

অবশ্য নেপালকে নিয়ে বাংলাদেশ যে সতর্ক সেটা বোঝা যাচ্ছে আরো একটি বিষয়ে। নেপাল আগের যে ম্যাচটি পাকিস্তানের সঙ্গে খেলেছে সেটা গ্যালারিতে বসেই দেখেছে বাংলাদেশ দল। সেখান থেকে নেপালিজদের শক্তিমত্তা নিয়ে নিছক একটা ধারণা নিয়েছেন অদম্য কিশোরীরা।

সাফ অনূর্ধ্ব-১৫ নারী ফুটবল চ্যাম্পিয়নশিপের দ্বিতীয় আসরে অংশ নিয়েছে ছয় দল। দলগুলো হলো ভুটান, ভারত, বাংলাদেশ, নেপাল, পাকিস্তান ও শ্রীলঙ্কা। ‘বি’ গ্রুপে বাংলাদেশের দুই সঙ্গী পাকিস্তান ও নেপাল। ‘এ’ গ্রুপে স্বাগতিক ভুটানের সঙ্গে আছে ভারত ও শ্রীলঙ্কা। আগামীকাল গ্রুপ পর্বের শেষ ম্যাচে মাঠে নামবে অংশ নেওয়া দলগুলো। সেরা দুই দল উঠে যাবে সেমিফাইনালে। ১৬ ফাইনালে ওঠার লড়াই মঞ্চস্থ হবে। একদিন পরই তৃতীয় স্থান ও শিরোপা নির্ধারণী ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে।

"