ভাগ্যকে দোষ দিচ্ছেন না টিটে

প্রকাশ : ০৮ জুলাই ২০১৮, ০০:০০

ক্রীড়া ডেস্ক

ফুটবলের ইতিহাস, সাফল্য ও র‌্যাঙ্কিংয়ে বেলজিয়ামের চেয়ে ঢের এগিয়ে ছিল ব্রাজিল। কিন্তু কাজান অ্যারেনা যে এবারের পরাশক্তি দলগুলোর জন্য অভিশাপস্বরূপ তা খন্ডাবে কীভাবে টিটের শিষ্যরা! দোষটা তাই ভাগ্যকে দিতে পারেন ব্রাজিলিয়ানরা। বেলজিয়ামের গোলমুখে রেকর্ড ২৭টি শট ও ৫৮ শতাংশ বল দখলে এগিয়ে থেকেও সেমিফাইনালে যাওয়া হলো না সেলেকাওদের। ২-১ গোলের পরাজয়ে শেষ আটেই তাদের বিসর্জন দিতে হলো ‘হেক্সা’ জয়ের স্বপ্ন। আর ১৯৮৬ বিশ্বকাপের পর প্রথমবারের মতো সেমিফাইনালে উঠে গেল রেড ডেভিলরা।

রাশিয়া বিশ্বকাপ যে ফেভারিটদের জন্য নয় তা অনেক আগেই প্রমাণ করে দিয়েছিল আন্ডারডগ দলগুলো। কিন্তু বেলজিয়াম এই আসরের ‘কালো ঘোড়া।’ আর ব্রাজিল অন্যতম ফেভারিট দল। লড়াইটা যে একপেশে হবে না তা আগে থেকেই ছিল অনুমিত। অবশেষে তাই হয়েছে। হাড্ডাহাড্ডি লড়াই শেষে কপাল পুড়েছে ব্রাজিলের। এমন পরাজয়ে ব্রাজিলিয়ানরা দোষারোপ করছেন ভাগ্যকে। কিন্তু কোচ টিটের মতে, ভাগ্য বলে কিছুই নেই। বেলজিয়ামের ভালো খেলাকেই প্রশংসা করছেন তিনি। ম্যাচ পরবর্তী সংবাদ সম্মেলনে টিটে বলেন, ‘ফুটবলে অনেক সময় অনেক কিছুই হয়। তবে আমি ভাগ্যের ব্যাপারে কথা বলতে আগ্রহী নই। যেখানে সুযোগ আছে প্রতিপক্ষকে হারিয়ে দেওয়ার সেখানে আমি ভাগ্যকে বিশ্বাস করি না।’

এই নিয়ে টানা চারবার ইউরোপিয়ানদের বিপক্ষে হেরে বিশ্বকাপ থেকে ছিটকে গেছে ব্রাজিল। গত আসরের সেমিফাইনালে জার্মানির বিপক্ষে ঘরের মাঠে নাস্তানাবুদ হওয়ার পর এবার শিরোপা জয়ের স্বপ্ন দেখছিল ল্যাটিন পরাশক্তিরা। তাদের সেই কাক্সিক্ষত শিরোপা এনে দেওয়ার স্বপ্ন দেখাচ্ছিলেন কোচ টিটে। তার অধীনে গত ২৫ ম্যাচে মাত্র এক পরাজয় নিয়ে অপ্রতিরোধ্য হয়ে উঠেছিল সেলেকাওরা। কিন্তু এবার সেই অভিযান তাদের থামাতে হলো রবার্তো মার্টিনেজের শিষ্যদের বিপক্ষে। কিন্তু পুরো ম্যাচে দুর্দান্ত খেলা ব্রাজিলকে হারতে হয়েছে মূলত বেলজিয়াম থিবু কোর্তোয়ার বিপক্ষে। পরশু কাজানে এই চেলসি গোলরক্ষক অতি মানবীয় না হয়ে উঠলে হয়তো ব্যবধানটা অন্যরকম হতে পারত। ম্যাচ শেষে সেই কথাটি জানালেন কোচ টিটে। ‘তাদের কিছু শীর্ষ মানের খেলোয়াড় আছে এবং খেলাটা তারাই ভালো শেষ করেছে। কোর্তোয়ায় মূলত ম্যাচের ব্যবধানটা গড়ে দিয়েছে। সবার হয়ে আমি ব্যথাট অনুভব করছি। যদি আপনি ফুটবল পছন্দ করেন তাহলে আপনাকে খেলাটা দেখতে হবে। এটা আপনাকে আনন্দ দান করবেই।’

তিনি আরো বলেন, ‘ফুটবলে এমন হয়। দুর্ঘটনা প্রায়ই ঘটে। আজও তেমনই হলো। এটা হয়তো বেলজিয়ানদের মনে কষ্ট দেবে। কিন্তু আমি তাদের খাটো করতে বলিনি। তারা দুর্দান্ত এক দল। তবে আমাদের সুযোগ ছিল। কিন্তু তা আমাদের থেকে মুখ ঘুরিয়ে নিয়েছিল। এই হার মেনে নেয়া কঠিন। অনেক বেশি কঠিন।’

ভবিষ্যতে ব্রাজিলের দায়িত্বে থাকবেন কিনা তাও জানিয়ে দিলেন টিটে। ‘এই মুহূর্তে আমি আমার ভবিষ্যৎ নিয়ে কথা বলতে চাই না। দুই সপ্তাহ পর যখন স্মৃতিতে কিছু ময়লা জমবে তখন আমরা ঠান্ডা মাথায় এই বিষয়ে আলোচনা করতে বসব।’

গত আসরে বেলজিয়ামকে থেমে যেতে হয়েছিল কোয়ার্টার ফাইনালে। এবার তাদের সেই ফাঁড়া কাটল ব্রাজিলের মতো পরাশক্তিকে হারিয়ে। দৃষ্টিটা এখন তাই আরো দূরেই রাখতে পারেন কোচ রবার্তো মার্টিনেজ। সেমিফাইনালে বেলজিয়ানরা প্রতিপক্ষ হিসেবে আরেক সেমিফাইনালিস্ট দল ফ্রান্সকে। ম্যাচের আগে প্রতিপক্ষ কারা তা নিয়ে ভাবতে চান না মার্টিনেজ। তবে গর্ব করার মতো জয় পাওয়ার কথাটা জানিয়েছেন সংবাদ সম্মেলনে। মার্টিনেজ বলেন, ‘ব্রাজিলে দুর্দান্ত কিছু খেলোয়াড় আছে যারা আপনাকে শেষ করে দিতে পারে। কিন্তু আমি এক মুহূর্তের জন্য ভাবিনি আমার ছেলেরা ম্যাচটা ছেড়ে দেবে। তারা অসাধারণ একটি কাজ করেছে এবং সব বেলজিয়ান তাদের জন্য গর্ববোধ করবে। আমি পৃথিবীর সবচেয়ে গর্বিত লোক কারণ আমি ছেলেদের খুব কঠিন একটা কৌশলের প্রকল্প দিয়েছিলাম এবং তারা তা অবিশ্বাস্যভাবে শেষ করেছে।’

"