আশাবাদী মাহমুদউল্লাহ

প্রকাশ : ১৮ মে ২০১৮, ০০:০০

ক্রীড়া প্রতিবেদক

আগামী জুনের প্রথম সপ্তাহে ভারতের দেরাদুনে অনুষ্ঠিত হবে বাংলাদেশ এবং আফগানিস্তানের টি-টোয়েন্টি সিরিজ। যেখানে এগিয়ে রাখা হচ্ছে আফগানযোদ্ধাদের। রশিদ-নবিদের ফেবারিট ভাবার কারণটা অবশ্যই ফরমেট। কেননা কুড়ি ওভারের ক্রিকেটে বাংলাদেশের চেয়ে আফগানদের পারফরম্যান্স বেশ উজ্জ্বল। যে কারণে আসন্ন সিরিজে নিজেদের আন্ডারডগ ভাবছে টাইগাররা। তবু সিরিজ জয়ের কথা ভাবছেন বাংলাদেশের অলরাউন্ডার মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ।

আফগান সিরিজকে সামনে রেখে কদিন ধরেই বিসিবি একাডেমি মাঠে নিজেদের প্রস্তুত করছে বাংলাদেশ। দলীয়ভাবে সিরিজ জয়ের আশায় আছেন প্রত্যেকে। এর বাইরে ব্যক্তিগত লক্ষও আছে সবার। কাল সকালে ফিটনেস অনুশীলন শেষে দুই ঘণ্টা ব্যাটিং অনুশীলন করেছেন মাহমুদউল্লাহ। দলকে ভালো কিছু উপহার দিতেই তার এই কঠোর পরিশ্রম।

নিদাহাস ট্রফিতে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে রূপকথার এক জয় উপহার দিয়েছিলেন বিশ্বকাপে বাংলাদেশের প্রথম সেঞ্চুরিয়ান। শেষ বলে ছক্কা মেরে বাংলাদেশকে তুলেছিলেন ফাইনালে। আফগানিস্তানের বিপক্ষেও দলের জয় অবদান রাখতে চান মাহমুদউল্লাহ।

দুই মাস হয়ে গেছে। তবুও মাহমুদউল্লাহর মুখে সেই বীরত্বের গল্প শুনতে মোটেও ক্লিশে ঠেকে না, ‘তখন যে ঘটনা ঘটেছিল, আমরা তো খেলতেই চেয়েছি। উত্তপ্ত মুহূর্তে সিদ্ধান্ত একটু এদিক-ওদিক হয়েছে। তারপরও আমরা খেলায় ফিরেছি। সবার প্রচেষ্টায় আর ১৮ কোটি মানুষের দোয়ায় আমরা জিতেছি। আমার আত্মবিশ্বাস ছিল। কখনো কখনো নেতিবাচক ভাবনাও আসছিল। এর আগে এক-দুবার আমরা এমন পরিস্থিতিতে পড়েছি, পারব কি পারব না। সৃষ্টিকর্তার ওপর ছেড়ে দিয়েছিলাম আর নিজের ওপর বিশ্বাস রেখেছিলাম।’

নিদাহাস ট্রফি এখন অতীত। সামনে আফগানিস্তান সিরিজ। টি-টোয়েন্টি র?্যাঙ্কিংয়ে আফগানরা বাংলাদেশের চেয়ে এগিয়ে, তাদের দুর্দান্ত দুজন স্পিনার আছে। খেলাটা হবেও আফগানদের চেনা কন্ডিশনে। এই সিরিজে বাংলাদেশকে অনেকে পিছিয়ে রাখলেও মাহমুদউল্লাহ ব্যতিক্রম। কাল জানালেন সিরিজটা জিততে বাংলাদেশ যথেষ্ট আশাবাদী। মাহমুদউল্লাহ বলেছেন, ‘আমরা অনেক আশাবাদী, আশা করি সিরিজটা জিতব। জিততে হলে আমাদের ব্যাটিং বিভাগকে ভালো করতে হবে। ব্যাটসম্যানরা দায়িত্ব নিয়ে ব্যাটিং করলে আমাদের ভালো একটা সুযোগ থাকবে। ওদের বোলিং বিভাগটা অনেক শক্তিশালী। অনেক বৈচিত্র্য আছে। বিশ্বমানের দুজন স্পিনার আছে। এ দুটি চিন্তার বিষয়। আমরা অনুশীলন করছি। রশিদ খানকে আমরা আগে দেখেছি। মুজিবকে ওভাবে দেখা হয়নি। তারপরও এটা ভালো একটু সুযোগ আমাদের জন্য।’

"