কবে হবে বিপিএল?

প্রকাশ : ১৭ মে ২০১৮, ০০:০০

ক্রীড়া প্রতিবেদক

বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের ষষ্ঠ আসর শুরুর সম্ভাব্য তারিখ ছিল ১ অক্টোবর। কিন্তু সেদিন তো বটেই, এই বছরই মাঠে গড়াচ্ছে না ফ্র্যাঞ্চাইজিভিত্তিক টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্টটি। বিপিএল গভর্নিং কাউন্সিলের সদস্য সচিব ইসমাইল হায়দার মল্লিক তেমনটাই ইঙ্গিত দিয়েছেন। জানালেন আগামী বছরের জানুয়ারিতে হতে পারে বিপিএলের পরবর্তী আসর।

কিন্তু কোনোকিছুই চূড়ান্ত নয়। পরবর্তী বিপিএল কবে নাগাদ হবে বিষয়টি এখনো আলোচনার টেবিলে সীমাবদ্ধ আছে। তাই নিশ্চিত করে কিছু বলতে পারছেন না টুর্নামেন্টের সদস্য সচিব। কার গণমাধ্যমকে আই এইচ মল্লিক বলেছেন, ‘বিষয়টি আলাপ-আলোচনার পর্যায়ে আছে। এ নিয়ে সর্বশেষ বোর্ডসভায় কথা হয়নি। তবে বোর্ডের উচ্চ বা নীতনির্ধারক মহলে আলোচনা চলছে। এখনই চূড়ান্ত কিছু বলা যাচ্ছে না।’ তিনি আরো বলেছেন, ‘এতটুকু বলতে পারি, পরিবেশ-পরিস্থিতির আলোকে বিপিএলের সময়সূচিতে পরিবর্তন আসতেও পারে। আমরা অক্টোবরের বদলে বিপিএল আগামী বছর জানুয়ারিতে আয়োজনের কথা ভাবছি।’

সামনেই আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে জাতীয় দলের ব্যস্ত সূচি। কিন্তু বিপিএল পেছানোর কারণ এটা নয়। মল্লিক ঢাল হিসেবে দেখালেন বছরের শেষ দিকে সম্ভাব্য রাজনৈতিক সংকটকে। তিনি বলেছেন, ‘না, জাতীয় দলের সফরসূচি কিংবা আন্তর্জাতিক সূচির সঙ্গে সমন্বয়ের জন্য নয়। আমরা বিপিএল আয়োজনের সময় নিয়ে ভাবছি, দেশের রাজনৈতিক পরিস্থিতির কথা বিবেচনা করে। কারণ আগামী ডিসেম্বরে জাতীয় সংসদ নির্বাচন হওয়ার কথা রয়েছে। তার দুই বা এক মাস আগে টুর্নামেন্ট আয়োজন করা কঠিন।’

বিপিএল ওই সময় আয়োজন করা কেন কঠিন সেটারও একটা যৌক্তিক ব্যাখ্যা দিয়েছেন মল্লিক। দেশি-বিদেশি ক্রিকেটার, কোচিং স্টাফ, অফিসিয়ালস এবং ব্রডকাস্টারদের নিরাপত্তার ইস্যুটিকেই বড় করে দেখছেন তিনি। বলেছেন, ‘আমাদের সাতটি দল। তিনটি ভেন্যু। রাজধানী ঢাকা, বন্দর নগরী চট্টগ্রাম আর বিভাগীয় শহর সিলেট। এই তিন ভেন্যুতে খেলা আয়োজন মানে সাত দলের ওই তিন শহরে অবস্থান। দেশি-বিদেশি ক্রিকেটার, কোচ, কোচিং স্টাফ, ম্যাচ অফিসিয়ালস মিলে অন্তত দুই শতাধিক মানুষের নিরাপত্তা তখন দেওয়া কঠিন হবে। কারণ তখন দেশের নিরাপত্তা বাহিনী ব্যস্ত থাকবেন জাতীয় সংসদ নির্বাচন নিয়ে।’

পরবর্তী বিপিএল নিয়ে পুরো বিষয়টি মল্লিক ঝুলিয়ে রাখছেন নিরাপত্তার ওপর। প্রশাসন থেকে যখন সবুজ সংকেত আসবে তখনই বিপিএল আয়োজন করতে চান টুর্নামেন্টের সদস্য সচিব। মল্লিক বলেছেন, ‘নির্বাচনের আগ মুহূর্তে বিপিএল আয়োজন করা কঠিন। তবে আমরা চেষ্টা করব নির্ধারিত সূচি ও সময়েই বিপিএল আয়োজন করতে। যদি নিরাপত্তা বাহিনী তখন নির্বাচন নিয়ে ব্যস্ত থাকে, তাহলে আমাদের বিকল্প পথে হাঁটতে হবে। তাই এ বছরের অক্টোবরের পরিবর্তে আমরা আগামী বছরের জানুয়ারিতে বিপিএল আয়োজন করব।’

"