ইতিহাদে আশা জাগানো সিটির অপমৃত্যু

* দুই লেগ মিলিয়ে ৫-১ গোলে জিতে শেষ চারে লিভারপুল।

প্রকাশ : ১২ এপ্রিল ২০১৮, ০০:০০

ক্রীড়া ডেস্ক

চ্যাম্পিয়নস লিগের সেমিফাইনালে যাওয়ার জন্য এক কঠিন সমীকরণের সামনে দাঁড়িয়েছিল ম্যানচেস্টার সিটি। অ্যানফিল্ডে ৩-০ গোলে হারায় ফিরতি লেগটা তাদের জয় পেতে হতো ৪-০ গোলে। কিন্তু ইতিহাদ স্টেডিয়ামেও ব্যর্থ হতে হলো পেপ গার্দিওলার শিষ্যদের। লিভারপুলের কাছে ২-১ গোলে হেরে উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগের যাত্রার ইতি টানতে হলো সিটিজেনদের। আর দুই লেগ মিলে ৫-১ গোলে এগিয়ে থেকে সেমিফাইনাল নিশ্চিত করেছে অলরেডরা।

পরশু ঘরের মাঠ ইতিহাদে খেলতে নেমে বড় জয়ের আভাসই দিচ্ছিল ম্যানসিটি। ম্যাচের দুই মিনিটের সময় ব্রাজিলিয়ান ফরোয়ার্ড গ্যাব্রিয়েল জেসুসের গোলে এগিয়ে যায় স্বাগতিকরা। কিন্তু ব্যবধানটা আর বাড়াতে পারেননি ডেডিড সিলভা, ডি ব্রুইন, লেরয় সানেরা। উল্টো ঘরের মাঠে আরেকবার পরাজয়ের স্বাদ নিতে হতে হলো মোহাম্মদ সালাহ ও রবার্তো ফিরমিনোদের সামনে। কাউন্টার অ্যাটাকে ৫৬ মিনিটে লিভারপুলের হয়ে সমতা ফেরানো গোলটি করেন সালাহ। আর ৭৭ মিনিটে ব্যবধানটা দ্বিগুণ করেন ফিরমিনো।

উত্তেজনাপূর্ণ ম্যাচে প্রথম থেকেই আক্রমণের ছড়ি ঘুরিয়েছে গার্দিওলার দল। ৩০, ৩৮, ৪২ মিনিটের সময় পর্তুগিজ উইঙ্গার বার্নার্দো সিলভার শটগুলো মিস না হলে বড় জয় নিয়ে মাঠ ছাড়তে পারত সিটিজেনরা। সিলভাকে মূলত গোলবঞ্চিত করেছে লিভারপুলের গোলপোস্ট।

৪৩ মিনিটের সময় ব্যবধানটা দ্বিগুণ করে নিতে পারত ম্যানসিটি। কিন্তু সানের করা গোলটি অফসাইডের কারণে বাতিল করে দেন ম্যাচ রেফারি। অথচ রিপ্লেতে দেখা যায় সানে অনসাইডে ছিলেন। এই নিয়ে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে সিটির শিবিরে। পরে ন্যায্য গোলের দাবিতে রেফারির সঙ্গে বিতর্কে জড়িয়ে পড়ায় লাল কার্ড দেখতে হয় গার্দিওলাকে। তাই দ্বিতীয়ার্ধের পর ডাগআউটে বসে সিটি খেলোয়াড়দের আর নির্দেশ দিতে পারেননি তিনি। সেই সঙ্গে চেয়ারে বসে দেখতে হয়েছে দলের নাজুক হার।

ম্যাচ শেষে তাই সংবাদ সম্মেলনে এসে গার্দিওলা নিজের ক্ষোভটা জানিয়ে দিলেন সরাসরি, ‘ম্যাচ রেফারি আসলেই একজন ভিন্ন মানুষ। স্পেশালও। আমি তাকে লা লিগা থেকেই চিনি। এছাড়া গত মৌসুমের চ্যাম্পিয়নস লিগেও মোনাকোর সঙ্গেও আমরা তাকে পেয়েছিলাম। তিনি ভাগ্যনির্ধারণ করে দিতে পছন্দ করেন। আমি তাকে বলেছিলাম সানের গোলটি সঠিক। মিলনারের পাস থেকেই সানে গোলটি করেছে। আমাদের ন্যায্য পাওনা ছিল গোলটি। কিন্তু তিনি উল্টো লাল কার্ড দেখিয়ে বসলেন আমাকে। এই গোলটি হলে আমরা ২-০ গোলে এগিয়ে যেতে পারতাম।’

পরশুর হারে সিটির টানা ১০ মাসের চ্যাম্পিয়নস লিগের ইতি টানতে হয়েছে। তবে কোয়ার্টার ফাইনালের শেষ আটের গেরোটা খুলতে না পারলেও লিভারপুলকে অভিনন্দন জানাতে ভুল করেননি গার্দিওলা। সব শেষে এবার প্রিমিয়ার লিগের দিকেই পূর্ণ মনোযোগ দিতে হচ্ছে সিটি কোচকে । লিগে আর ছয় ম্যাচ বাকি আছে। এরই মধ্যে শিরোপার সুবাসও পেতে শুরু করেছে সিটিজেনরা।

 

ম্যানসিটি ১

লিভারপুল ২

"