উল্টোরথে শেখ জামাল-রূপগঞ্জ

প্রকাশ : ২১ মার্চ ২০১৮, ০০:০০

ক্রীড়া প্রতিবেদক

ঢাকা প্রিমিয়ার ডিভিশন ক্রিকেট লিগের সুপার সিক্স নিশ্চিত হয়েছে আগেই। রবিন রাউন্ডের শেষ কয়েকটা ম্যাচ লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জের জন্য নিয়ম রক্ষার ম্যাচে পরিণত হয়েছে। কাল আনুষ্ঠানিকতার সেই ম্যাচে হেরে বসেছে রূপগঞ্জ। শিরোপাপ্রত্যাশী দলটিকে হারিয়ে দিয়েছে অগ্রণী ব্যাংক ক্রিকেট ক্লাব। লিগের একাদশ রাউন্ডের ম্যাচে রূপগঞ্জকে ৬ উইকেটে হারিয়েছে অগ্রণী ব্যাংক। রূপগঞ্জের ২০৪ রান ১৭ বল বাকি থাকতে পেরিয়ে যায় তারা।

মিরপুর শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে মঙ্গলবার টস হেরে ব্যাট করতে নেমে শুরুটা ভালো হয়নি রূপগঞ্জের। আল আমিন ও শফিউল ইসলামের দারুণ বোলিংয়ে ৫৫ রানে ৫ উইকেট হারিয়ে ফেলে দলটি। সেখান থেকে দলের সংগ্রহ ২০০ পার হয় তুষার ইমরানের ব্যাটে। কয়েকবার জীবন পাওয়া মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যানকে বোল্ড করে সেঞ্চুরির আগে থামান আল আমিন। ১২১ বলে খেলা তুষারের ৯৮ রানের ইনিংসে ৮টি চারের পাশে ছক্কা একটি।

২৭ রান করেন মোশাররফ হোসেন। ত্রিদেশীয় টি-টোয়েন্টি সিরিজ খেলে ফেরা মুশফিকুর রহিম বিদায় নেন ২১ রান করে। ৪৪ রানে ৪ উইকেট নিয়ে অগ্রণী ব্যাংকের সেরা বোলার আল আমিন। দুটি করে উইকেট নেন আবদুর রাজ্জাক ও শফিউল। রান তাড়ায় সৌম্য সরকারের সঙ্গে ৭৬ রানের উদ্বোধনী জুটিতে দলকে ভালো শুরু এনে দেন শাহরিয়ার। আসিফ হাসানকে উড়ানোর চেষ্টায় ফিরে যান সৌম্য। দ্রুত বিদায় নেন সালমান হোসেন। দারুণ সব শট খেলা শাহরিয়ার ফিরেন ১০৩ বলে ১০টি চারে ৮২ রান করে। দারুণ ইনিংসে জেতেন ম্যাচ সেরার পুরস্কার।

রান আউট হয়ে ফেরার আগে শামসুল ইসলাম করেন ৪১ রান। জয়কে সঙ্গী করে ফেরা ধীমান ঘোষ ৩৫ বলে খেলেন ৪৯ রানের ঝড়ো এক ইনিংস। রূপগঞ্জের বাঁ-হাতি স্পিনার আসিফ ৪৬ রানে নেন ২ উইকেট। ১১ ম্যাচে চতুর্থ হারের স্বাদ পেল রূপগঞ্জ। খেলাঘর সমাজকল্যাণ সমিতির সমান ১৪ পয়েন্ট হলেও রান রেটে এগিয়ে দুই নম্বরে রয়েছে দলটি। ১৬ পয়েন্ট নিয়ে সবার ওপরে আবাহনী।

চতুর্থ জয়ে ৮ পয়েন্ট নিয়ে প্রাথমিক পর্ব শেষ করল অগ্রণী ব্যাংক। ব্রাদার্স ইউনিয়ন ও কলাবাগান ক্রীড়া চক্রের বিপক্ষে রেলিগেশন লিগে খেলবে তারা। এই লিগের সেরা দল টিকে থাকবে প্রিমিয়ার লিগে। বাকি দুই দল নেমে যাবে প্রথম বিভাগে।

এদিকে কাল সুপার সিক্স নিশ্চিত করেছে শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাব। কাল ব্রাদার্স ইউনিয়নকে ৭৪ রানে হারিয়ে শিরোপা স্বপ্ন বাঁচিয়ে রাখল শেখ জামাল। ১৮৫ রানের পুঁজি নিয়েই জিতেছে তারা। ব্রাদার্সকে মাত্র ১১০ রানে গুটিয়ে দেয় শেখ জামাল। সমান ১২ পয়েন্ট হলেও রান রেটে শিরোপাধারী গাজীর চেয়ে এগিয়ে পাঁচ নম্বরে রয়েছে শেখ জামাল।

প্রাথমিক পর্বের শেষ রাউন্ডের ম্যাচে হেরে যাওয়া ব্রাদার্সের খেলতে হবে রেলিগেশন লিগে। সেখানে তাদের সঙ্গী অগ্রণী ব্যাংক ও কলাবাগান ক্রীড়া চক্র। এই লিগের সেরা দলটি টিকে থাকবে প্রিমিয়ার লিগে, অন্য দুটি দল নেমে যাবে প্রথম বিভাগে।

ফতুল্লার খান সাহেব ওসমান আলী স্টেডিয়ামে মঙ্গলবার টস হেরে ব্যাট করতে নেমে শুরুটা ভালো হয়নি শেখ জামালের। দ্রুত ফিরে যান পিনাক ঘোষ ও রাকিন আহমেদ। ওপেনার সৈকত আলীর ৫৫, মিডল অর্ডারে তানবীর হায়দারের ৩৩ ও সানির ৩১ রানের ওপর ভর করে ২০০ রানের কাছাকাছি যায় দলটি। ৪১ রানে ৩ উইকেট নিয়ে ব্রাদার্সের সেরা বোলার পেসার খালেদ আহমেদ।

রান তাড়ায় প্রথম বলেই মিজানুর রহমানকে হারায় ব্রাদার্স। পরের ওভারে আরেক ওপেনার জুনায়েদ সিদ্দিককেও বিদায় করে দেন পেসার আবু জায়েদ। মাইশুকুর রহমান, দেবব্রত দাস ফিরেন থিতু হয়ে। দুই অঙ্ক ছুঁয়ে বিদায় নেন অলক কাপালী ও মইনুদ্দিন রুবেল। ব্রাদার্স শেষ ৭ উইকেট হারায় মাত্র ৪০ রানে।

২২ রানে ৩ উইকেট নিয়ে শেখ জামালের সেরা বোলার বাঁ-হাতি স্পিনার সানি। অলরাউন্ড নৈপুণ্যে তিনি জেতেন ম্যাচ সেরার পুরস্কার। অফ স্পিনার সোহাগ গাজী ৩ উইকেট নেন ৩৬ রানে।

"