পারলেন না আশরাফুলরা

প্রকাশ : ১৪ মার্চ ২০১৮, ০০:০০

ক্রীড়া প্রতিবেদক

ম্যাচ ফিক্সিংয়ের নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে ক্রিকেটে ফেরার শুরুটা ভালো হয়নি মোহাম্মদ আশরাফুলের। প্রথম মৌসুমে নিজেকে হারিয়ে খুঁজেছেন টেস্ট ক্রিকেটের সর্বকনিষ্ঠ সেঞ্চুরিয়ান। চলমান মৌসুমের শুরু থেকেই ব্যাট হাতে দ্যুতি ছড়িয়ে চলেছেন বাংলাদেশের সাবেক অধিনায়ক। কাল ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে লিজেন্ড অব রূপগঞ্জের বিপক্ষে ৬৪ রানের ঝলমলে ইনিংস খেললেন আশরাফুল। কিন্তু তার ইনিংসটা কাজে আসল না। তার দল কলাবাগান ক্রীড়া চক্র হেরে গেছে রূপগঞ্জের কাছে। কাল লিগের দশম রাউন্ডের ম্যাচে আগে ব্যাট করতে নেমে ৫ উইকেটে করা ৩১৪ রানের বিশাল রান কলাবাগানের কাঁধে চাপিয়ে দেয় রূপগঞ্জ। জবাব দিতে নেমে ২৮৮ রানে অলআউট হয়ে যায় আশরাফুলের কলাবাগান। ২৬ রানের হারটা লিগে চলমান আসরে কলাবাগানের সপ্তম হার।

বড় লক্ষ্যের পেছনে ভালোই ছুটছিল কলাবাগান। ৩ উইকেটে ১৯৯ রান তুলে ফেলেছিল তারা। কিন্তু শেষ পর্যন্ত পারেনি। আশরাফুল ফিফটির ইনিংসটাকে এবারের প্রিমিয়ার লিগে নিজের তৃতীয় সেঞ্চুরিতে নিয়ে যেতে পারলে হয়তো দলও পারত। তৃতীয় সেঞ্চুরি হলে আশরাফুলও ভালোভাবে আসতে পারতেন আলোচনায়।

এবারের প্রিমিয়ার লিগে নিজের তৃতীয় ম্যাচে সেঞ্চুরির পর আবার পথ হারিয়ে ফেলেন। টানা দুই শূন্যের পর দল থেকে বাদই পড়তে যেতে বসেছিলেন। কোচ জালাল আহমেদ চৌধুরীকে অনুরোধ করেই একরকম দলে জায়গা করে নেন। আর সেই ম্যাচেই ১০২ রানের ঝকঝকে এক ইনিংস খেলেন গত সপ্তাহে। এরপর আবার শূন্য! কাল আবার ৬৭ বলে ৭টি চারে ৬৪। আশরাফুলের পুরো ক্যারিয়ারের সারাংশই যেন এবারের প্রিমিয়ার লিগ। রূপগঞ্জের বিপক্ষে আশরাফুলের ইনিংসটি অবশ্য সর্বোচ্চ নয়। ভারতীয় ক্রিকেটার শ্রীভৎ গোস্বামীর ব্যাট থেকে এসেছে ৭৫। এ ছাড়া মাহমুদুল হাসানের ৩০, আবুল হাসানের ৩৪ আর ফারুক হোসেনের ২৯ রানেও হারটা এড়াতে পারেনি কলাবাগান। রূপগঞ্জের ৩১৪ রানে সবচেয়ে বড় অবদান সালাউদ্দিন পাপ্পুর। তাঁর ১২৫ রানের ইনিংসের সঙ্গে আছে মোহাম্মদ নাঈমের ৪৫, নাঈম ইসলামের ৬১ আর পারভেজ রসুলের ৩২। সালাউদ্দিনের ১২৫ রানের ইনিংসটি ৯৫ বলে। এতে আছে ১২টি চার ও ৮টি ছয়।

 

"