তামিমের আশার বাণী

প্রকাশ : ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ০০:০০

ক্রীড়া প্রতিবেদক

তিন জাতির টুর্নামেন্টে শিরোপা হাতছাড়া হওয়ার পর টেস্ট সিরিজেও শ্রীলঙ্কার কাছে হার। বিপর্যস্ত বাংলাদেশ দলের সামনে এখন টি-টোয়েন্টি সিরিজের চ্যালেঞ্জ। ক্ষুদ্রাবৃতির ক্রিকেটে শ্রীলঙ্কাকে মোকাবেলা করতে প্রস্তুত আছে টাইগাররা। কাল অনুশীলনের ফাঁকে গণমাধ্যমের কাছেও আশারবাণী শুনিয়েছেন বাঁ-হাতি ড্যাশিং ওপেনার তামিম ইকবাল।

আগামীকাল মিরপুর শেরে বাংলা স্টেডিয়ামে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে প্রথম টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলবে বাংলাদেশ। সিলেটে মঞ্চায়ন হবে কুড়ি ওভারের পরের ম্যাচটি। বাংলাদেশের দুঃস্মৃতির ক্ষতে প্রলেপ দিতে কিছুটা হলেও অবদান রাখতে পারে এই সিরিজটি। দুটো ম্যাচকেই সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিচ্ছে টাইগাররা।

শুধু তাই নয় আগামী দুই-তিন বছর টি-টোয়েন্টির ব্যস্ত সময় কাটাবে বাংলাদেশ। আগামী মাসের শুরুতে শ্রীলঙ্কায় খেলবে ত্রিদেশীয় টি-টোয়েন্টি সিরিজ। এরপর জুন-জুলাইয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরেও আছে টি-টোয়েন্টি সিরিজ। তামিম মনে করেন এই সংস্করণে পোক্ত হয়ে ওঠার উপযুক্ত সময় এটিই। এক সময় আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টি খেলার সুযোগ অনেক কম পেত বাংলাদেশ। টি-টোয়েন্টিতে পিছিয়ে থাকার একটি বড় কারণ ছিল সেটি। এখন যেহেতু খেলার সুযোগ বেশি আসছে, এটিকেই উন্নতির সিড়ি করে নিতে বলছেন তামিম, ‘আমরা সাধারণত টি-টোয়েন্টি খেলতাম খুবই কম। কিন্তু আগামী ৬ মাস বা ১ বছরের সূচিতে অনেক খেলব আমরা। সম্ভবত ওয়ানডের চেয়েও টি-টোয়েন্টি বেশি খেলব। এখানে দুটি, শ্রীলঙ্কা সফরে ৫টি, ওয়েস্ট ইন্ডিজে ২-৩টি। কোন ধরনের পরিকল্পনায় এগোব, সেটি ঠিক করার উপযুক্ত সময় এখনই।’

টি-টোয়েন্টি র‌্যাঙ্কিংয়ে এখন বাংলাদেশ আফগানিস্তান ও শ্রীলঙ্কার পেছনে থেকে আছে দশ নম্বরে, যেটিকে নিজেদের সামর্থ্যরে প্রতিফলন বলে মনে করেন না তামিম। ২০২০ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের জন্য তৈরি হতে চান এখন থেকেই। তামিম বলেছেন, ‘২০২০ বিশ্বকাপের আগে এখনও যথেষ্ট সময় আছে। তবে এখন থেকে যত কম সময় নিয়ে আমরা প্রস্তুত হব, তত ভালো। এই সংস্করণে আমরা যা করেছি, তার চেয়ে যেন ভালো করতে পারি। আন্তর্জাতিক মানের একটি ঘরোয়া টুর্নামেন্ট আমরা খেলি এই সংস্করণে। আমাদের তাই আরও ভালো করা উচিত। আমার বিশ্বাস, আমরা ভালো করতে পারব।’

শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে প্রথম টি-টোয়েন্টির জন্য প্রথম ঘোষিত দলে নতুন মুখ ছিল ৫টি-আবু জায়েদ চৌধুরী, আরিফুল হক, মেহেদি হাসান, আফিফ হোসেন ও জাকির হাসান। পরে চোট পাওয়া সাকিব আল হাসানের বদলে নেওয়া হয় নতুন আরেকজন, নাজমুল ইসলাম অপুকে। টি-টোয়েন্টি দলের সহ-অধিনায়ক তামিমের কাছে মঙ্গলবার প্রশ্ন ছিল নতুনদের নিয়ে। তামিম প্রথমে আলাদা করে বললেন দুজনের কথা, ‘আমি দুই-তিন জনের নাম উল্লেখ করি। আমার কাছে মনে হয়, রাহির (আবু জায়েদ চৌধুরী) সুযোগটা খুব ভালোভাবে প্রাপ্য ছিল। কারণ দুই বছর ধরে বিপিএলে বোলিংয়ে সেরা পারফরমারদের একজন। আরিফুল হকও গত দুই-তিন বছর ধরে বিপিএলে সমানভাবে ভাল খেলে যাচ্ছে। আমাদের এমন কাউকে দরকার যে কিনা সাতে নেমে বড় শট খেলতে পারে এবং খেলা শেষ করে আসতে পারে। আরিফুলের যে সামর্থ্য খুব ভালো ভাবে আছে। নতুন আরও যারা আছে, একজন আমার সাথে খেলেছে (মেহেদি), আমি মনে করি ও বিশাল-হৃদয় ক্রিকেটার।

"