গুল্টে মামার জরুরি সভা

প্রকাশ : ১৪ মার্চ ২০২০, ০০:০০

সৈয়দ আসাদুজ্জামান সুহান

এক দিন গুল্টে মামা মহল্লার বাচ্চাদের ডেকে একটা জরুরি সভা বসিয়েছেন। খুব গম্ভীর মুখে তিনি সবার উদ্দেশে প্রশ্ন করলেন, ‘তোরা কি বলতে পারিস, পৃথিবীতে মুরগি নাকি ডিম আগে এসেছিল?’ সবাই তো প্রশ্ন শুনে অবাক! আসলেই তো তাই, কোনটা আগে এসেছিল? অনেক চিন্তাভাবনা করে কেউ বলল, মুরগি আগে আবার কেউ বলল ডিম আগে। এটা নিয়ে বাচ্চারা দুই দলে বিভক্ত হয়ে গেল। তাদের উত্তরের স্বপক্ষে শুরু হয়ে গেল দুই দলে তর্কাতর্কি ও চুলচেরা বিশ্লেষণ। সবাই করছে অকাট্য যুক্তি উপস্থাপন, তবু কোনো সমাধান নেই।

একদল বলছে, যদি মুরগি আগে না আসত, তাহলে ডিম আসবে কেমন করে? মুরগির পেটের ভেতরেই তো ডিমের সৃষ্টি। আরেক দল বলছে, ডিমের ভেতরেই মুরগির সৃষ্টি। ডিম ফেটে মুরগির বাচ্চা বের হয়ে আসে। যদি ডিম আগে না আসত, তাহলে মুরগির জন্ম হবে কেমন করে? এভাবে যুক্তির পর যুক্তি উপস্থাপন করতে করতে একসময় দুই পক্ষের মধ্যে ঝগড়া বেঁধে গেল। তখন গুল্টে মামা মুরব্বির মতো সবাইকে বকাঝকা করে শান্ত হতে বলেন। দূরে বসে জারিফ সবকিছুই শুনছে আর মজা পাচ্ছে।

গুল্টে মামা পন্ডিতের মতো ভ্রƒ কুঁচকে সবাইকে বললেন, ‘খুব সিম্পল একটা প্রশ্ন কিন্তু কেউ সঠিক উত্তর দিতে পারলি না। উল্টো ঝগড়া বাঁধিয়ে দিলি।’ সবাই তখন গুল্টে মামার কাছে উত্তর জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘মুরগি ও ডিম কোনোটাই নয়, আগে সৃষ্টি করা হয়েছিল মোরগ। ঠিক যেমন করে মনুষ্যকুলে প্রথম আদমকে সৃষ্টি করা হয়েছিল। আদমের সঙ্গী হিসেবে সৃষ্টি করা হয়েছিল হাওয়া, ঠিক তেমনি করেই মোরগের সঙ্গী হিসেবে সৃষ্টি করা হয়েছিল মুরগি। তারপর মুরগির পেট থেকে বের হয়ে আসে ডিম।’

গুল্টে মামার উত্তর শুনে সবাই যেন তাজ্জব বনে গেল। এত সহজ উত্তর কিন্তু তাদের মধ্যে কেউ দিতে পারল না। এমন সময় জারিফ কাছে এসে বলে উঠে, ‘গুল্টে মামা আবারও তোদের কাছে গুল মারছে। আসলে তিনি নিজেই কিছু জানেন না। উনার কথা যদি সঠিক হয়, তাহলে তো ডিমের আগে পৃথিবীতে মুরগি এসেছিল।’ সবাই তখন সমস্বরে বলে উঠে, আসলেই তো তাই। একদল তখন হিপ... হিপ... হুররে... করে আনন্দ-উল্লাসে মেতে উঠে, যারা বলেছিল ডিমের আগে মুরগি এসেছিল। আর আরেক দল তখন গুল্টে মামার ওপর বেশ ক্ষেপে উঠে।

অবস্থা বেগতিক দেখে গুল্টে মামা সবাইকে শান্ত হতে বলে জারিফকে প্রশ্ন করলেন, ‘তুই তাহলে আমার প্রশ্নের সঠিক উত্তর দে? জারিফ তখন দুষ্টু হেসে উত্তর দেয়, ‘পৃথিবীতে ডিমপাড়া প্রাণিকুলের সৃষ্টি হয় ঘোড়ার ডিম থেকে।’ তখনই গুল্টে মামা রেগে গিয়ে বলেন, ‘ফাজলামি করছিস আমার সঙ্গে। ঘোড়ার ডিম বলে কিছু আছে নাকি?’ তখন জারিফ বলে, ‘তাহলে ঘোড়ার ডিম শব্দটা এলো কোথা থেকে?’ গুল্টে মামা বলেন, ‘তোর জানা থাকলে তুই উত্তর দে।’ সে তখন বলল, ‘ঘোড়ার ডিম একবারই সৃষ্টি করা হয়েছিল। ওই ডিমের ভেতরেই পৃথিবীর সব ডিমওয়ালা প্রাণীর জন্ম হয়। তারপর ডিম ফেটে সবাই বের হয়ে আসে। তাই আমরা কখনো ঘোড়ার ডিম দেখিনি, তবে ডিমওয়ালা প্রাণীগুলো দেখি।’

তখন গুল্টে মামা বলেন, ‘যদি তোর কথাগুলো সত্যি হয়েই থাকে, তাহলে তো বলতে হবে পৃথিবীতে মুরগি নয়, ডিম আগে এসেছিল।’ তখন জারিফ বলে উঠে, ‘না গুল্টে মামা, বলো ঘোড়ার ডিম আগে এসেছিল।’ এ কথাটা বলেই সে হু... হু... হা... হা... করে অট্টহাসিতে মেতে ওঠে। সব সময়ই গুল্টে মামা গুল মারে, এবার সে গুল্টে মামাকেই গুল মেরে বেশ মজা পাচ্ছে।

 

"