আপনার বইয়ের যত্ন

প্রকাশ : ১৫ মার্চ ২০১৯, ০০:০০

রবিউল কমল

আপনি হয়তো বই পড়তে খুব ভালোবাসেন, তাই এর দোকানে গেলে কখনো খালি হাতে ফেরেন না। ফলে বাড়িতে বইয়ের সংখ্যা ক্রমেই বেড়ে চলেছে। কিন্তু বেশ কয়েক বছর আগে কেনা সাধের বইটা হাতে নিয়ে পাতা ওল্টাতেই দেখলেন এর বেশ কয়েকটা পাতা পোকায় কেটে দিয়েছে! বইয়ের এ অবস্থা দেখে আপনার মনটাও খুব খারাপ হয়ে গেল। তাই শুধু বই কিনে সাজিয়ে রাখলেই হবে না, এর যত্নও নিতে হবে। আপনার বইয়ের যত্ন নিয়ে লিখেছেন রবিউল কমল।

 

বই দীর্ঘদিন ধরে ভালো রাখতে হলে সঠিক উপায়ে স্টোর করা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। বই ঘরের এমন স্থানে রাখুন যেখানে সরাসরি সূর্যের আলো পৌঁছায় না। তা হলে বইয়ের রং ও লেখা হালকা হয়ে যাবে না। ঠান্ডা ও শুষ্ক স্থানে বই রাখুন, তা হলে বইয়ে ড্যাম্প ধরবে না। যে বইগুলো কম পড়েন সেগুলো ওপরের তাকে রাখুন আর দরকারিগুলো নিচের তাকে রাখুন, তা হলে প্রয়োজনের সময় হাতে নিতে সুবিধা হবে।

সেলফে বই সাজানোর সময় উচ্চতা অনুযায়ী (ছোট থেকে বড়) সাজান, তাহলে দেখতে যেমন ভালো লাগবে নামাতেও তেমনি সুবিধা হবে। সবচেয়ে ভালো হয় যদি কাচের পর্দা দেওয়া তাক বানিয়ে নিতে পারেন। এতে ধুলা জমার সম্ভাবনা কম থাকবে। বই পড়ার সময় অবশ্যই পরিষ্কার ও শুকনো হাতে বই ধরবেন। অনেকেরই বই পড়তে পড়তে এর পাতা ভাঁজ করে রাখার বদ-অভ্যাস থাকে, এতে বইয়ের পাতা ছিঁড়ে যেতে পারে। তাই পাতা ভাঁজ করে রাখার পরিবর্তে পেজমার্কার ব্যবহার করুন।

পুরোনো বইয়ের পাতা ছিঁড়তে শুরু করলে নতুন করে আবার বাঁধিয়ে নিন, তাহলে আরো কয়েক বছর ভালো থাকবে। বইয়ের কাছে চা বা কফি রাখবেন না, এতে চা বা কফি পড়ে গিয়ে বইতে দাগ হতে পারে। বই বাঁধাতে যে আঠা ব্যবহার করা হয়, তাতে অনেক সময় পোকা হতে পারে। তাই এর তাকে ন্যাপথলিনের বল, শুকনো মরিচ বা নিমপাতা জাতীয় কিছু রাখতে পারেন। তা হলে বইয়ে পোকা হবে না।

আরো জেনে নিন প্রয়োজনীয় কিছু টিপস :

বই সব সময় যত্নসহকারে ব্যবহার করবেন।

সপ্তাহে অন্তত এক দিন ধুলা ঝাড়তে পারলে ভালো হয়। বই পড়া শেষে যেখান থেকে নিয়েছেন সেখানেই রাখুন।

বই ভাঁজ করে পড়বেন না, এতে এর পাতা খুলে যেতে পারে।

 

"