অবিবাহিত বিদেশি যুগলরাও থাকতে পারবেন সৌদিতে

প্রকাশ : ০৭ অক্টোবর ২০১৯, ০০:০০

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

সৌদি আরবে এখন থেকে অবিবাহিত বিদেশি যুগলদেরও হোটেল কক্ষ ভাড়া দেওয়া হবে বলে দেশটির নতুন ভিসা নীতিতে জানানো হয়েছে।

আগে সৌদি আরবে কোনো হোটেলে একই কক্ষে থাকার জন্য যেকোনো যুগলকে বিয়ের প্রমাণপত্র দেখাতে হতো।

বিদেশিদের পাশাপাশি সৌদি নারীরাও চাইলে এখন হোটেলে একা থাকতে পারবেন বলে রয়টার্সের এক প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে।

বিদেশি পর্যটকদের আকর্ষণ ও পর্যটন খাতের বিকাশে রক্ষণশীলতার বেড়াজাল ভেঙে সৌদি সরকার যেসব নতুন পদক্ষেপ নিয়েছে, অবিবাহিত বিদেশি নারী-পুরুষদের হোটেল কক্ষ ভাড়া দেওয়ার সিদ্ধান্ত তার একটি।

সৌদি আরবের কমিশন ফর ট্যুরিজম অ্যান্ড ন্যাশনাল হেরিটেজের এক ঘোষণায় বলা হয়, হোটেলে চেক-ইনের সময় (যুগলদের ক্ষেত্রে) সব সৌদি নাগরিককে তাদের পারিবারিক পরিচয়পত্র বা সম্পর্কের প্রমাণ দেখাতে হবে। তবে বিদেশি নাগরিকদের জন্য এটি প্রযোজ্য হবে না। সব নারী, এমনকি সৌদি নারীরাও পরিচয়পত্র দিয়ে হোটেল কক্ষে একা থাকতে পারবেন।

নতুন এ ভিসা নীতিতে বিদেশি নারীদের ক্ষেত্রে শরীর সম্পূর্ণ ঢেকে রাখা ঢিলেঢালা পোশাক আবায়া পরার বিধানও শিথিল করা হয়েছে।

আবায়া পরতে বাধ্য না করলেও সৌদি সংস্কৃতির প্রতি সম্মান দেখিয়ে বিদেশি নারী পর্যটকরা ‘শালীন পোশাক’ পরবেন বলে আশা প্রকাশ করেছে সৌদি কমিশন ফর ট্যুরিজম অ্যান্ড ন্যাশনাল হেরিটেজ। পোশাক ও হোটেলে থাকার ক্ষেত্রে বিধিনিষেধ শিথিল হলেও অ্যালকোহলে নিষেধাজ্ঞা বহাল থাকছে।

সুন্নি সংখ্যাগরিষ্ঠ এ দেশটিকে একসময় পৃথিবীর সবচেয়ে কঠোর বিধিনিষেধের দেশ হিসেবে দেখা হলেও সাম্প্রতিক সময়ে বিদেশি পর্যটক ও বিনিয়োগ আকৃষ্ট করতে রিয়াদ নানা ধরনের চেষ্টা করছে।

বাদশাপুত্র মোহাম্মদ বিন সালমান ক্রাউন প্রিন্সের দায়িত্ব পাবার পর থেকেই কট্টর রক্ষণশীল এ দেশ নারীদের গাড়ি চালানো, স্টেডিয়ামে বসে খেলা দেখাসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয়। দেশটির নারীরা এখন পুরুষ আত্মীয়ের অনুমতি ছাড়া পাসপোর্ট করতে কিংবা একা বিদেশ ভ্রমণেরও সুযোগ পাচ্ছেন।

মধ্যপ্রাচ্যের মার্কিন মিত্র এ দেশটি সম্প্রতি বেশ কয়েকটি দেশের নাগরিকদের জন্য ভ্রমণ ভিসাও চালু করেছে। এর আগে সৌদি আরব মূলত বিদেশি শ্রমিক, ব্যবসায়ী ও হজযাত্রীদেরই ভিসা দিত।

"