বিশ্ব সমর্থন চায় পাকিস্তান

তুরস্ক-মালয়েশিয়ার ইতিবাচক আশ্বাস

প্রকাশ : ০৭ আগস্ট ২০১৯, ০০:০০

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

কাশ্মীর ইস্যুতে ভারতের সিদ্ধান্ত আঞ্চলিক শান্তি ও স্থিতিশীলতা নষ্ট করবে বলে মনে করে পাকিস্তান। গত সোমবার ভারতের রাজ্যসভায় কাশ্মীরের স্বায়ত্তশাসন বাতিলের পর পাকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, দিল্লির এই পদক্ষেপের বিরোধিতা করতে সম্ভাব্য সব ব্যবস্থা নেবে ইসলামাবাদ। একই দিন বিভিন্ন দেশের সরকার প্রধানের সঙ্গে টেলিফোনে আলাপ করেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। ভারতের সিদ্ধান্তকে অবৈধ আখ্যা দিয়ে কাশ্মীর ইস্যুতে তাদের সমর্থন প্রত্যাশা করেন তিনি। এতে সমর্থন দেওয়ার কথা জানিয়েছেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তায়িপ এরদোয়ান ও মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী মাহাথির মোহাম্মদ। পাকিস্তানের সংবাদমাধ্যম এক্সপ্রেস ট্রিবিউন এই খবর জানিয়েছে।

পরমাণু শক্তিধর দুই দেশ ভারত ও পাকিস্তান উভয়ই কাশ্মীরকে নিজেদের বলে দাবি করে। ১৯৪৭ সালে স্বাধীনতা পাওয়ার পর দুই প্রতিবেশীর তিনটি যুদ্ধের মধ্যে দুটি সংঘটিত হয়েছে কাশ্মীর ইস্যুতে। এক সামরিক নিয়ন্ত্রণরেখা দিয়ে কাশ্মীরকে বিভক্ত করে রাখা হয়েছে। ভারতের শাসনে রয়েছে ৪৫ শতাংশ এলাকা আর পাকিস্তান শাসন করে ৩৫ শতাংশ অঞ্চল। আর বাকি অঞ্চল শাসন করে চীন। ভারত শাসিত কাশ্মীরের নাগরিকরা দেশটির সংবিধানের ৩৭০ অনুচ্ছেদে বর্ণিত বিশেষ মর্যাদা ভোগ করে আসছিল। গত সোমবার প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে সাক্ষাতের পর ওই অনুচ্ছেদ বাতিলের সিদ্ধান্ত ঘোষণা করেন দেশটির স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। একই দিনে কাশ্মীরকে দুই ভাগ করে সরাসরি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে পরিণত করতে রাজ্যসভায় একটি বিলও পাস করা হয়।

ভারতের এই পদক্ষেপ কাশ্মীরের শান্তি ও স্থিতিশীলতা নষ্ট করতে পারে এমন আশঙ্কায় গত সোমবার বিভিন্ন দেশের সরকার প্রধানের সঙ্গে টেলিফোন আলাপ করেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। প্রধানমন্ত্রীর বাসভবনের এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, টেলিফোন আলাপে এই ইস্যুতে অবিচল সমর্থনের কথা জানিয়েছেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তায়িপ এরদোয়ান। ওই বিবৃতিতে বলা হয়, প্রেসিডেন্ট এরদোয়ান কাশ্মীরে সৃষ্ট পরিস্থিতি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেন আর এই ইস্যুতে তুরস্কের অবিচল সমর্থনের আশ্বাস দেন। এক্সপ্রেস ট্রিবিউন জানিয়েছে, একই দিন মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী মাহাথির মোহাম্মদের সঙ্গেও টেলিফোনে আলাপ করেন ইমরান খান। মাহাথির পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রীকে জানান, কাশ্মীর পরিস্থিতির ওপর নিবড় নজর রাখছেন তিনি। ভারতীয় সংবাদমাধ্যম নিউজ এইটটিন জানিয়েছে, এই ইস্যুতে পাকিস্তানকে সমর্থনের আশ্বাস দিয়েছেন তিনি।

ভারতীয় বার্তা সংস্থা আইএএনএস জানিয়েছে, গত সোমবার ভারতের ঘোষণার পর ইসলামাবাদে ভারতীয় দূতাবাসের বাইরে সতর্কতা হিসেবে দাঙ্গা পুলিশ মোতায়েন করেছে পাকিস্তান। ভারতীয় হাইকমিশনের সব কর্মকর্তা নিরাপদ রয়েছে জানিয়েছে বার্তা সংস্থাটি। এ দিন কাশ্মীরে ভারতের পদক্ষেপের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ হয়েছে পাকিস্তানের বেলুচিস্তান, খাইবার পাখতুনওয়ালা, পাঞ্জাব ও সিন্ধু প্রদেশে। পাকিস্তান শাসিত কাশ্মীরেও বিক্ষোভ অনুষ্ঠিত হয়েছে। পাকিস্তানের প্রেসিডেন্ট আরিফ আলভি এক বিবৃতি বলেছেন, কাশ্মীরে ভারতের পদক্ষেপ জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের প্রস্তাববিরোধী। ভারত কাশ্মীরের মর্যাদা পরিবর্তন করতে চাইছে বলে অভিযোগ করা হয় ওই বিবৃতিতে। এই পদক্ষেপ কাশ্মীরি জনগণের ইচ্ছার বিরুদ্ধে বলেও মন্তব্য করা হয় ওই বিবৃতিতে।

 

"