করিডর চালুর বিষয়ে অমৃতসরে ভারত-পাকিস্তান সংলাপ

প্রকাশ : ১৬ মার্চ ২০১৯, ০০:০০

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

ভারতের পাঞ্জাবের গুরদাসপুর জেলা থেকে পাকিস্তানের করতারপুরে শিখদের গুরুদ্বার দরবার সাহিব পর্যন্ত প্রস্তাবিত সরাসরি সড়কপথে যাতায়াত ইস্যুতে ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে বৈঠক ও সংলাপ হয়েছে। গত বৃহস্পতিবার অমৃতসরের আটারিতে ভারত ও পাকিস্তানের প্রতিনিধিদল সংলাপে বসেন। ভারতীয় প্রতিনিধিদলের নেতৃত্বে ছিলেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব এস সি এল দাস। অন্যদিকে, পাকিস্তানি প্রতিনিধিদলের নেতৃত্ব দেন সে দেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের দক্ষিণ এশিয়া ও ‘সার্ক’ বিভাগের ডিরেক্টর জেনারেল মুহাম্মদ ফয়জল।

খুবই আন্তরিকভাবে আলোচনা হয়েছে বলে বৈঠক শেষে এক যৌথ বিবৃতিতে জানানো হয়। করিডর চালুর জন্য দুই দেশের মধ্যে প্রস্তাবিত চুক্তির খসড়া নিয়েও আলোচনা হয়। আগামী ২ এপ্রিল পরবর্তী বৈঠক হবে ওয়াঘায়। কাশ্মীরের পুলওয়ামায় সন্ত্রাসী হামলায় কমপক্ষে ৪৪ জন সিআরপিএফ জওয়ান নিহত হওয়ার পরে দুই দেশে চলমান উত্তেজনার মধ্যে সরকারি ওই বৈঠক গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করা হচ্ছে। প্রস্তাবিত করতারপুর করিডর চালু হলে ভারতের পাঞ্জাবের গুরদাসপুর জেলা থেকে সহজেই পাকিস্তানের করতারপুর শহরে দরবার সাহিব গুরুদ্বারে যেতে পারবেন ভারতীয় শিখ তীর্থযাত্রীরা।

 

ভারত ও পাকিস্তান গুরু নানকের ৫৫০তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে দীর্ঘ প্রতীক্ষিত করতারপুর সাহিব করিডর চালু করতে সম্মত হয়েছে। আগামী নভেম্বরের মধ্যেই তাৎপর্যমণ্ডিত সড়কপথ সম্পূর্ণভাবে চালু করতে চায় বলে প্রকাশ্যে জানিয়েছে পাকিস্তান। এটি চালু হয়ে গেলে ভিসা ছাড়াই করতারপুরের গুরুদ্বারে যেতে পারবেন ভারতীয় শিখ তীর্থযাত্রীরা। গত বছরের নভেম্বরে নিজ নিজ এলাকায় পৃথকভাবে করিডর নির্মাণের সূচনা করেছে ভারত ও পাকিস্তান কর্তৃপক্ষ। এরপর থেকে করিডর তৈরির কাজ চলছে জোরকদমে।

পাকিস্তানের বর্তমান নারোয়াল জেলার করতারপুরে ১৫২২ সালে গুরুদ্বার দরবার সাহিব স্থাপন করেন শিখ ধর্মগুরু নানক দেব। ভারতের পাঞ্জাবের গুরদাসপুর জেলা থেকে মাত্র চার কিলোমিটার দূরে রবি নদীর তীরে অবস্থিত ওই গুরুদ্বার শিখ ধর্মাবলম্বীদের পবিত্র স্থান বলে বিবেচিত হয়।

"