খরচ কমাতে হেলিকপ্টারে অফিস ইমরান খানের

প্রকাশ | ০১ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০০:০০

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

দেশের অর্থনৈতিক সংকট মোকাবিলায় সব ধরনের রাষ্ট্রীয় খরচ কমানোর ঘোষণা দিয়েছেন সদ্য ক্ষমতায় বসা পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। এ উদ্দেশ্যে দায়িত্ব গ্রহণের পরপরই দেশটির একমাত্র বিশ্বকাপ জয়ী ক্রিকেট দলের অধিনায়ক ও পিটিআই পার্টির চেয়ারম্যান ইমরান খান রাষ্ট্রীয় তহবিল থেকে প্রেসিডেন্ট, প্রধানমন্ত্রী, মন্ত্রিসভার সদস্য, দলীয় নেতা ও সরকারি কর্মকর্তাদের প্রথম শ্রেণির বিমান ভ্রমণ ব্যয় নিষিদ্ধ ঘোষণা করেন।

এ ছাড়া প্রধানমন্ত্রীর জন্য নির্ধারিত প্রাসাদসম বাসভবন ব্যবহার না করে ওই বাসভবনে প্রধানমন্ত্রীর সামরিক সচিবের জন্য ছোট যে একটি অংশ রয়েছে সেখানে থাকার কথা জানিয়েছেন তিনি। পাশাপাশি নিরাপত্তার জন্য বিশাল ইউনিট কমিয়ে আনাসহ প্রধানমন্ত্রী হিসেবে মাত্র দুটি গাড়ি ব্যবহার এবং দুজন গৃহকর্মী রাখবেন বলে ঘোষণা দিয়েছেন সাবেক এই ক্রিকেট তারকা।

এবার খরচ বাঁচানোর নামে প্রতিদিন গাড়ির বদলে হেলিকপ্টারে অফিস যাচ্ছেন ইমরান খান! এ নিয়ে দেশটির সোশ্যাল মিডিয়ায় জোর সমালোচনা শুরু হয়েছে। এরই পরিপ্রেক্ষিতে পাক তথ্যমন্ত্রী ফওয়াদ চৌধুরী এবং পিটিআই নেতা আলি মহম্মদ খান দাবি করেছেন, বানি গালায় প্রধানমন্ত্রীর বাসভবন থেকে সচিবালয়ের দূরত্ব ১৫ কিলোমিটার। এই পথ পাড়ি দিতে সড়কপথের চেয়ে হেলিকপ্টার যাত্রা অনেক সস্তার। সময় লাগে মাত্র ৩ মিনিট।

তারা বলেন, সড়কপথে প্রধানমন্ত্রীর কনভয়ে ৫-৭টা গাড়ি থাকে। ইমরান খান গাড়িতে চড়ে অফিসে না যাওয়ায় এখন অন্য গাড়িকেও রাস্তায় দীর্ঘ সময় দাঁড়াতে হচ্ছে না। ফলে সব দিকেই সাশ্রয় হচ্ছে।

তবে তাদের এমন যুক্তি শুনে পাকিস্তান জুড়ে সমালোচনা আরও বেড়েছে। একটি আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম জানিয়েছে, আকাশপথে পাক প্রধানমন্ত্রীর বাসভবন থেকে সচিবালয়ের দূরত্ব ৮ নটিক্যাল মাইল। ইমরান খান যে অগুস্তা ওয়েস্টল্যান্ডের এডব্লিউ১৩৯ হেলিকপ্টার ব্যবহার করেন সেটিতে ১ নটিক্যাল মাইলে খরচ হয় বাংলাদেশি ১১ হাজার টাকা। অথচ গাড়িতে প্রতি কিলোমিটারের সর্বোচ্চ খরচ বাংলাদেশি ৩৭ টাকা। ফলে প্রধানমন্ত্রীর কনভয়ে ৭টা গাড়ি থাকলেও হেলিকপ্টারের খরচের ধারেকাছে আসে না।

এদিকে পাকিস্তান সেনাবাহিনীর এক অবসরপ্রাপ্ত কর্মকর্তা দেশটির গণমাধ্যমকে বলেছেন, ‘শুধু হেলিকপ্টার স্টার্ট দিতেই প্রায় ১ লাখ পাকিস্তানি রুপি খরচ হয়। তাই খরচ কমাতে চাইলে ইমরানের উচিত জগ করতে করতে সচিবালয়ে যাওয়া। প্রথম দিন তো তিনি সেভাবেই অফিসে গিয়েছিলেন।’

 

"