ইরানের মামলা মোকাবিলার ঘোষণা যুক্তরাষ্ট্রের

প্রকাশ : ২৯ আগস্ট ২০১৮, ০০:০০

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

ইন্টারন্যাশনাল কোর্ট অব জাস্টিসে (আইসিজে) ইরানের করা মামলা মোকাবিলার ঘোষণা দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। নিষেধাজ্ঞা পুনর্বহাল করার বিষয়ে প্রশ্ন তোলার মাধ্যমে ইরান যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় নিরাপত্তায় হস্তক্ষেপ করার চেষ্টা করছে বলে দাবি করে ওয়াশিংটন। সোমবার হেগে জাতিসংঘ আদালতে ইরানের মামলার প্রাথমিক শুনানি শুরু হওয়ার পর মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও এক বিবৃতিতে এমন দাবি করেছেন। ইরানের সঙ্গে ২০১৫ সালে করা পারমাণবিক চুক্তি থেকে গত মে মাসে চুক্তিটি থেকে বেরিয়ে যায় যুক্তরাষ্ট্র। প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের প্রশাসনের তরফ থেকে হুমকি দেওয়া হয়, ইরানের ওপর বাণিজ্য নিষেধাজ্ঞা আরোপের। সম্প্রতি ট্রাম্প প্রশাসনের এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন, ইরানের তেল রফতানি আয় শূন্যের কোটায় নামিয়ে আনতে চায় তারা। এজন্য বিভিন্ন দেশের ওপর হুমকি ও চাপ প্রয়োগ অব্যাহত রেখেছেন তারা। এই নিষেধাজ্ঞা পুনর্বহালের বিরুদ্ধে গত জুলাই মাসে জাতিসংঘ আদালত আইসিজে-তে মামলা করে ইরান। সোমবার মামলাটির মৌখিক শুনানি শুরু হয়। এই মামলা লড়ার ঘোষণা দিলেন পম্পেও। বিবৃতিতে পম্পেও বলেন, ‘আইসিজে-তে ইরানের এই মামলা নিষেধাজ্ঞা পুনর্বহালসহ যুক্তরাষ্ট্রের আইনগত পদক্ষেপ নেওয়ার সার্বভৌম অধিকার প্রতি হস্তক্ষেপের চেষ্টা।

এই অধিকার আমাদের জাতীয় নিরাপত্তার সুরক্ষার জন্য প্রয়োজনীয়। ইরানের দায়ের করা মামলা এই আদালতের একটি অপব্যবহার।’

আদালতে ইরানের পক্ষে আইনজীবী মোহসেন মোহেবি বলেন, ইরানের অর্থনীতি ও ইরানি কোম্পানিগুলো যত দূর সম্ভব ক্ষতিগ্রস্ত করতে যুক্তরাষ্ট্র প্রকাশ্যে একটি নীতি প্রচার করছে। যা নিশ্চিতভাবে ইরানি নাগরিকদেরও ক্ষতিগ্রস্ত করবে। তিনি আরও বলেন, এই নীতি দুঃখজনকভাবে ১৯৫৫ সালের সৌহার্দ্যরে চুক্তির লঙ্ঘন। তিনি বলেন, ইরান দুই দেশের সমস্যাগুলো কূটনৈতিকভাবে সমাধানের আহ্বান জানিয়ে এলেও তা প্রত্যাখ্যান করা হয়েছে।

পম্পেও বলেন, আইনজীবীরা সবলে যুক্তরাষ্ট্রকে সুরক্ষা দেবে। তিনি বলেন, ‘মধ্যপ্রাচ্যে ইরান সরকারের অস্থিতিশীল কার্যক্রম, সন্ত্রাসবাদে অর্থায়ন, ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্রের ব্যাপক বৃদ্ধি ও অন্যান্য উন্নত অস্ত্র ব্যবস্থা ঠেকাতে আমরা আমাদের মিত্রদের সঙ্গে কাজ চালিয়ে যাবো। ইরানের এসব কার্যক্রমা আন্তর্জাতিক শান্তি ও স্থিতিশীলতার জন্য হুমকি। আমরা এও নিশ্চিত করব যে, ইরান কখনো পরমাণু অস্ত্র পাবে না। এখনো না, কোন দিনো নয়।’

সোমবার আদালতে মামলার শুনানি শুরু হলেও যুক্তরাষ্ট্র মঙ্গলবার আনুষ্ঠানিকভাবে এই মামলার শুনানিতে অংশ নেবে। তার আগে সোমবার তাৎক্ষণিকভাবে এক লিখিত বিবৃতিতে যুক্তরাষ্ট্র বলেছিল, তারা মনে করে, এই ইস্যুতে আইসিজের বিচার করার কোনো এখতিয়ার নেই। আর ইরানের অভিযোগও এই চুক্তির আওতায় পড়ে না। ইনজীবীরা মঙ্গলবার বিষয়টি নিয়ে প্রতিক্রিয়া জানাবেন। মামলাটিতে এক মাসের মধ্যে একটি নির্দেশনা দেওয়া হবে বলে আশা করা হচ্ছে। তবে তার কোনো তারিখ নির্ধারণ করা হয়নি।

"