১৭ দিন শিশুদের আগলে রাখা সেই কোচ

প্রকাশ : ১২ জুলাই ২০১৮, ০০:০০

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

ঢুকেছিলেন তিনিই প্রথম। বের হয়েছেন সবার পরে। বৃষ্টির ঝুঁকি নিয়েও কিশোর ফুটবলাররা থাম লুয়াং গুহায় প্রবেশ করতে সক্ষম হয়েছিল তার কারণেই। থাইল্যান্ডের ওয়াইল্ড বোর্স ফুটবল দলের কোচ একাপল আকে চান্থাওং তাই বিতর্কিত হয়েছেন। নিন্দুকেরা বলেছে, এমন দুর্গম আর ঝুঁকিপূর্ণ স্থানে কিশোরদের নিয়ে গিয়ে মোটেও ঠিক কাজ করেননি তিনি। তার অনুমতির কারণেই ১৭ দিনের ‘অন্ধকার যাপন’ বাস্তবতায় কাটাতে হলো কিশোরদের। তবে আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমের খবর বলছে, এই কোচ গুহার ভেতরের সেই অন্ধকার দিনগুলোতে আলোকশিখা হয়ে জ্বলেছেন। ডুবুরিরা বেরিয়ে এসে সাক্ষ্য দিয়েছেন, একাপল আকে নিজেকে উজাড় করে দিয়েছেন কিশোরদের আগলে রাখতে। ওই শিশুদের অভিভাবকরাও তাই আস্থাশীল ছিলেন কোচের ওপর। ছেলেরা গুহায় থাকা অবস্থাতেই তারা বলেছিলেন, একাপলের প্রতি তাদের আস্থা আছে। ভরসা ছিল বন্ধুদেরও। কাছের মানুষরা তাকে সমাজের জন্য নিবেদিতপ্রাণ মানুষ হিসেবেই জানেন। সবার কাছেই তিনি বিশ্বাস, মানুষের জন্য মমতা, ভালোবাসা আর নিরাপদ আশ্রয়। স্বজনদের একজন তাই মনে করছেন, এমনও হতে পারে যে, রোদ থেকে শিশুদের বাঁচাতে তিনি তাদের নিয়ে গুহায় ঢুকে পড়েছিলেন!

গত ২৩ জুন ফুটবল অনুশীলন শেষে ২৫ বছর বয়সী কোচসহ ওই ১২ কিশোর ফুটবলার গুহাটির ভেতরে ঘুরতে গিয়েছিল। কিন্তু বৃষ্টিতে গুহার প্রবেশমুখ বন্ধ হয়ে যাওয়ায় তারা আর বের হতে পারেনি। তার ভূমিকাকে ‘দায়িত্বজ্ঞানহীন আচরণ’ মনে করছেন অনেকে। তবে নিজ এলাকায় পরোপকারের জন্য খুবই জনপ্রিয় একাপল। সমাজকর্মী ও আধ্যাত্ম সাধনার জন্য তার খ্যাতি আছে। অবহেলা কিংবা দায়িত্বহীনতার অভিযোগকে তাই উড়িয়ে দিয়েছেন পরিচিতজনরা। থামা কান্তাওয়ং নামে তার একজন আত্মীয়ের ভাষ্য, ‘ও দলকে ভালোবাসে। যখনই কোথাও যেত, বাচ্চাগুলোর সঙ্গে সেঁটে থাকত। অভিভাবকরাও তাই ভরসা করত ওকে।’ কোচের দায়িত্বহীনতার অভিযোগ উড়িয়ে দিয়ে কান্তাওয়াং বলেন, ‘সে খুবই ভালো মানুষ। বাচ্চাদের ভালোবাসে। সবাইকে সাহায্য করে। খুব বিনয়ী।’

সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে কান্তাওয়াং কোচ একাপলের অতীতে ফিরে যান। জানান, ছেলেবেলাতেই বাবা-মাকে হারিয়েছে। অল্পদিন পর গত হয়েছেন ভাই। এতিম একাপল তখন বৌদ্ধ ভিক্ষুর কাছে আশ্রয় নেয়। মঠেই এক দশকের শৈশব। মাঝে মাঝে কেবল একটু সময়ের জন্য বের হওয়া আর দাদীকে দেখতে আসা। কান্তাওং বলেন, সেই সময়টা ওর জন্য খুবই কঠিন ছিল। ২০ বছর বয়সে আবারও জীবনের নতুন অধ্যায়ের সূচনা হয় একাপলের। ভিক্ষুর জীবন ছাড়লেও মন্দিরগুলোর সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ ছিল তার।

 

প্রার্থনা ও সমাজসেবায় ব্যস্ত থাকতেন তিনি। কাতাওয়াং বলেন, আকে সবসময়ই অন্যদের জন্য নিবেদিতপ্রাণ।

গুহায় প্রবেশের ৯ দিন পর ২ জুলাই গুহার ভেতরে শনাক্ত করা যায় কোচ আকে আর ১২ কিশোর ফুটবলারকে। গুহার উদ্ধার অভিযানে অংশ নেওয়া ডুবুরিরা তাদের প্রত্যক্ষ অভিজ্ঞতা থেকে জানান, আটকে পড়াদের মধ্যে সবচেয়ে দুর্বল হয়ে পড়েছিলেন কোচ। কেননা নিজে না খেয়ে কিশোরদের খাইয়েছেন তিনি। আত্মীয় কাতাওয়াংও সেই বিষয়টি মনে করিয়ে দিয়ে বলেন, সবসময়ই অন্যদের প্রতি মনোযোগী অকে। গুহায় আটকে থাকা প্রথম ৯ দিন সে শিশুদের সাহায্যে নিজেকে বিলিয়ে দিয়েছে। সোমবার রাতে ওয়াইল্ড বোর ক্লাবের সিনিয়র দল অনুশীলন শুরু করেছে। জুনিয়র টিম আটকা পড়ার পর তারা সব অনুশীলন স্থগিত করেছিল। তারা জানায়, এমন অবস্থায় তারা অনুশীলন চালাতে পারে না। তবে উদ্ধার অভিযান সফল হতে থাকার পর তারা উদ্ধারকারীদের সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশ করতেই অনুশীলন শুরু করে। সপ্তাহে কয়েকবার ট্রেনিং দিলেও তেমন সম্মানি পেতেন না আকে। তবে টাকার কথা কখনো মাথায় নেয়নি। কান্তাওয়াং জানত, সে ফুটবল ভালোবাসত, ভালোবাসত শিশুদের।

অনুশীলনরত সিনিয়র দলের সদস্যরা সংবাদমাধ্যমকে বলেছেন, আকের প্রতি তাদের ভালোবাসা আর শ্রদ্ধার কথা। তারা জানান, শিশুদের জন্য যে কোনো কিছু করতে ঝাঁপিয়ে পড়ার বাতিক আছে আকের। কায়ে হায়ে লাহুনা নামে এক খেলোয়াড়ের ভাষ্য, কোচ খুবই ভালো মানুষ। সবসময়ই শিশুদের সঙ্গে খেলতেন। তাদের নিরাপত্তার বিষয়েও সার্বক্ষণিক নজর ছিল তার।’ কিশোর ফুটবলাররা যেই গুহায় আটকা পড়ে তার কাছেই অনুশীলন করেন সিনিয়র দলের সদস্যরা। লাহুনা বলেন, ‘যখন আমরা আটকে পড়ার খবর জানতে পারি, সঙ্গে সঙ্গেই ১১ জন সেখানে চলে যাই। পরদিন ভোর ৪টা পর্যন্ত আমরা প্রবেশমুখে তাদের জন্য অপেক্ষা করতে থাকি।’ সিনিয়র টিমের কোচ পান্নাওয়াত জংকাম তাই আস্থাশীল। বলেন, ‘ও যখন বেরিয়ে আসবে, দেখবেন সবই ঠিক থাকবে। আমরা আগের মতোই তার সঙ্গে থাকব।’

আকে আসলেই নিজের ওপর দোষ নিয়েছেন আগেই। গুহা থেকেই হাতে লেখা এক চিঠিতে কোচ কিশোরদের স্বজনদের কাছে ক্ষমা চেয়েছেন। চিঠিতে তিনি লিখেছেন, সব ছেলেই ভালো আছে। অনেক মানুষই তাদের খোঁজ-খবর রাখছেন। আমি প্রতিশ্রুতি দিচ্ছি, শিশুদের দেখাশোনার জন্য সবকিছু করব। আপনাদের সমর্থনের জন্য ধন্যবাদ। আমি সব অভিভাবকের কাছে ক্ষমা চাইছি। তবে অভিভাবকদের অনেকেই জানিয়েছেন, তারা কোচকে কোনো দোষ দিচ্ছেন না। এক চিঠিতে তারা লিখেছেন, ‘প্রিয় কোচ আকে, আপনার ফুটবল দলের সদস্যদের অভিভাবক হিসেবে আপনার প্রতি এবং শিশুদের ভালো যতœ নেওয়া মনোভাবের প্রতি আমরা আস্থাশীল। আমরা আপনাকে জানাতে চাই যে, এটা আপনার ভুল নয়। আমরা এখান থেকে কাউকে দোষ দিচ্ছি না, আপনিও নিজেকে দোষী ভাববেন না। আমরা সবাই পরিস্থিতি বুঝতে পারছি এবং আপনাকে সমর্থন জানাচ্ছি। আমাদের শিশুদের প্রতি আপনার ভালোবাসা ও যতœকে সমর্থন করছি। সবাইকে নিয়ে নিরাপদে শিগগিরই গুহা থেকে আপনার বেরিয়ে আসার অপেক্ষা করছি আমরা। আপনার চাচিও গুহার প্রবেশমুখে অপেক্ষা করছেন।

আকের চাচির বাড়ির পেছনেই একটি বৌদ্ধ মন্দির। মিয়ানমার সীমান্তজুড়ে থাকা সেই মন্দিরের পুরোহিতরাও আশাবাদী ছিলেন, আকে ফিরে আসবে শিশুদের নিয়ে। আবার হাসিমুখে নিজের বাইকে করে মন্দিরে সবার সঙ্গে দেখা করবে। জয় নামে সাবেক এক ভিক্ষু বলেন, মায়ে সায়ে মন্দিরের সক্রিয় সদস্য আকে। সবসময়ই নিজের মোটরবাইকে করে শিশুদের নিয়ে পাহাড়ে ঘুরতে যেতেন তিনি। এখন নিজেই শিল্পী আর মন্দিরের সাজসজ্জা বৃদ্ধিতে ছবি আঁকছেন। তিনি বলেন, ‘আকেকে সবাই চেনে। খুবই ভালো মানুষ। আমি তাকে প্রায়ই ‘ওয়াত ফা তাত দোই ওয়াও’ মন্দিরে দেখতে পাই। সেখানেই প্রার্থনা করে। আমরা সেখানেই গল্প করি।’ আত্মীয় কান্তাওয়াং জানান, তিনি আকের ব্যাপারে কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলেছেন। উদ্ধারকারীদের প্রতি অসীম কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন। ‘আমি জানি না সে কেন ওখানে গিয়েছে। হতে পারে রোদের কারণে ছায়া খুঁজতে সেখানে আশ্রয় নিয়েছিল।’

"