নেপথ্যের নায়কেরা

প্রকাশ | ৩০ মে ২০১৯, ০০:০০ | আপডেট: ৩০ মে ২০১৯, ০৩:০৮

সাহিদ রহমান অরিন

মাঠে ১১ ক্রিকেটারের লড়াই, যার নেপথ্যে থাকেন একজন প্রশিক্ষক। বিশ্বকাপে এক অস্ট্রেলিয়ানের কৌশলের ওপর যেমন নির্ভর করছে স্বাগতিক ইংল্যান্ড, ঠিক তেমন এক ইংলিশম্যানের প্রশিক্ষণে প্রথমবার ক্রিকেট মহাযজ্ঞের সেমিফাইনাল খেলার স্বপ্ন বুনছে বাংলাদেশ। বলা হচ্ছে, বিশ্বকাপ দলগুলোর কোচদের কথা। এবারের বিশ্ব আসরে ইংল্যান্ড-বাংলাদেশ-দক্ষিণ আফ্রিকাসহ পাঁচ দেশ আস্থা রাখছে ভিনদেশি কোচের ওপর। বাকিদের হেড কোচ স্বদেশি। সর্বোচ্চ তিন দলে হেড কোচ হিসেবে আছেন ক্যারিবিয়ানরা, দুটিতে অস্ট্রেলিয়ান। জেনে নিন ১০ নেপথ্য নায়কদের নিয়ে

বিস্তারিত।

 

স্টিভ রোডস (কোচ, বাংলাদেশ)

জন্মতারিখ : ১৭ জুন ১৯৬৪

বয়স : ৫৪ বছর

জন্মস্থান : ব্রাডফোর্ড, ইংল্যান্ড

জাতীয়তা : ইংলিশ

ইংল্যান্ডের জার্সিতে ১১ টেস্ট ও ৯ ওয়ানডে খেলা স্টিভ রোডস বাংলাদেশ জাতীয় দলের দায়িত্ব নেন গেল বছরের জুনে। ২০০৫ সালে উয়েস্টারশায়ার দিয়ে কোচিং ক্যারিয়ার শুরু করেন রোডস, যার হাত ধরে অতি সম্প্রতি প্রথমবার কোনো ফাইনাল জিতে ট্রফিতে চুম্বনের পরিতৃপ্তি নিয়েছে টাইগাররা। এবার তার অধীনেরই বিশ্বকাপে অসম্ভবকে সম্ভব করার স্বপ্ন বুনতে শুরু করেছে বাংলাদেশ।

 

ট্রেভর বেলিস (কোচ, ইংল্যান্ড)

জন্মতারিখ : ২১ ডিসেম্বর ১৯৬২

বয়স : ৫৬ বছর

জন্মস্থান : গোলবার্ন, অস্ট্রেলিয়া

জাতীয়তা : অস্ট্রেলিয়ান

বিশ্বকাপের হট ফেভারিট ও আয়োজক ইংল্যান্ডের মাস্টার টেকনিশিয়ান হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন অস্ট্রেলিয়ান ট্রেভর বেলিস। ২০১১ আসরে তার কোচিংয়ে শ্রীলঙ্কা হয়েছিল রানার্সআপ। এরপর বিগব্যাশ ফ্র্যাঞ্চাইজি সিডনি সিক্সার্স, আইপিএল ফ্র্যাঞ্চাইজি কলকাতা নাইট রাইডার্স হয়ে বেলিস ইংলিশদের দায়িত্ব নেন ২০১৫ সালে।

 

রবি শাস্ত্রী (কোচ, ভারত)

জন্মতারিখ : ২৭ মে ১৯৬২

বয়স : ৫৭ বছর

জন্মস্থান : মুম্বাই, ভারত

জাতীয়তা : ভারতীয়

বয়সে এবারের বিশ্বকাপে সবচেয়ে সিনিয়র কোচ রবি শাস্ত্রী। সাবেক ভারত অধিনায়ক ২০১৭ সালের জুলাইয়ে ক্রিকেট পাগল দেশটির প্রধান কোচের দায়িত্ব নেন। এর আগে ২০১৪ সাল থেকে বছরখানেক ছিলেন টিম ডিরেক্টর। অধিনায়ক বিরাট কোহলির সঙ্গে তার রসায়নটা জমেছে বেশ। ভারতের ১৯৮৩ বিশ্বকাপজয়ী দলের সদস্য ৩৬ বছর পর কোচ হিসেবে বিশ্বকাপ জিততে পারেন কি না, সেটা দেখতেই মুখিয়ে আছে ক্রিকেট বিশ্ব।

 

চন্ডিকা হাথুরুসিংহে (কোচ, শ্রীলঙ্কা)

জন্মতারিখ : ১৩ সেপ্টেম্বর ১৯৬৮

বয়স : ৫০ বছর

জন্মস্থান : কলম্বো, শ্রীলঙ্কা

জাতীয়তা : শ্রীলঙ্কান

গেল আসরে তিনি ছিলেন বাংলাদেশের কোচ। নানা ঘটনা আর নাটকীয়তার পর এবার নিজ দেশ শ্রীলঙ্কার দায়িত্ব তার কাঁধে। ২০১৫ বিশ্বকাপে বাংলাদেশকে কোয়ার্টার ফাইনাল পর্যন্ত নিয়ে গিয়েছিলেন হাথুরুসিংহে। এবার ধুঁকতে থাকা উত্তরসূরিদের কোথায় নিয়ে যাবেন, সেটা জানতে আজ থেকে আগামী পাঁচ সপ্তাহ পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে।

 

ফ্লয়েড রেইফার (কোচ, ওয়েস্ট ইন্ডিজ)

জন্মতারিখ : ২৩ জুলাই ১৯৭২

বয়স : ৪৬ বছর

জন্মস্থান : পারিশ ল্যান্ড, বার্বাডোস

জাতীয়তা : ক্যারিবিয়ান/ওয়েস্ট ইন্ডিয়ান/বার্বাডিয়ান

ফ্লয়েড রেইফার, বিশ্বকাপের সবচেয়ে কম বয়সি কোচ। দলের দায়িত্ব নেওয়ার হিসেবেও সবচেয়ে নবীন। ২০০৯ সালে পেশাদার ক্রিকেটকে বিদায় জানানো রেইফার এপ্রিলে হয়েছেন ওয়েস্ট ইন্ডিজের হেড কোচ। দায়িত্ব নিয়েই আমূল পরিবর্তনের আভাস দিয়েছেন তিনি। বিশ্বকাপের জন্য দলে ফিরিয়ে এনেছেন বিধ্বংসী আন্দ্রে রাসেলকে। ডোয়াইন ব্রাভো-কাইরন পোলার্ডদের রিসার্ভ দলে টানতে বিশেষ ভূমিকা পালন করেছেন তিনি

 

গ্যারি স্টিড (কোচ, নিউজিল্যান্ড)

জন্মতারিখ : ৯ জানুয়ারি ১৯৭২

বয়স : ৪৭ বছর

জন্মস্থান : ক্রাইস্টচার্চ

জাতীয়তা : কিউই

১৯৯৯ সালের মার্চে টেস্ট অভিষেকের পর ওই বছরেরই ডিসেম্বরে অবসর নিয়েছিলেন গ্যারি স্টিড। পরবর্তীতে মনোযোগী হন কোচিংয়ে, দায়িত্ব নেন নিউজিল্যান্ড নারী দলের। মাইক হেসন সরে দাঁড়ালে গেল বছরের আগস্টে কেন উইলিয়ামসন-রস টেলরদের গুরু হিসেবে দায়িত্ব নেন স্টিড।

 

জাস্টিন ল্যাঙ্গার (কোচ, অস্ট্রেলিয়া)

জন্মতারিখ : ২১ নভেম্বর ১৯৭০

বয়স : ৪৮ বছর

জন্মস্থান : পার্থ অস্ট্রেলিয়া

জাতীয়তা : অস্ট্রেলিয়ান

টেস্ট বিশেষজ্ঞ হিসেবে পরিচিত জাস্টিন ল্যাঙ্গার। ছিলেন অস্ট্রেলিয়ার ব্যাটিং কোচ। স্মিথ-ওয়ার্নারদের বল টেম্পারিং কেলেঙ্কারির পর ড্যারেন লেম্যান পদত্যাগ করলে দলের বিপদে হেড কোচের দায়িত্ব নিয়েছেন গেল বছর। ধুঁকতে থাকা দলকে এখন বেশ ভালোই অক্সিজেনের জোগান দিচ্ছেন তিনি। টানা ৮ ওয়ানডের পর দুটি প্রস্তুতি ম্যাচেও জয় তুলে নিয়ে বিশ্বকাপ ধরে রাখার মিশনে নামছে ল্যাঙ্গারের শিষ্যরা।

 

মিকি আর্থার (কোচ, পাকিস্তান)

জন্মতারিখ : ১৭ মে ১৯৬৮

বয়স : ৫১ বছর

জন্মস্থান : জোহানেসবার্গ, দক্ষিণ আফ্রিকা

জাতীয়তা : দক্ষিণ আফ্রিকান

বৈশ্বিক প্রতিযোগিতায় পাকিস্তানের সর্বশেষ সাফল্য ২০১৭ চ্যাম্পিয়নস ট্রফি জয়। সেই দলের কোচ এই মিকি আর্থার। সরফরাজ-আমিরদের গুরুর ভূমিকায় আছেন ২০১৬ সাল থেকে। দক্ষিণ আফ্রিকা ‘এ’ দলের হয়ে খেলা আর্থার নিজ দেশ ছাড়াও কোচিং করিয়েছেন অস্ট্রেলিয়াকে।

 

ওটিস গিবসন (কোচ, দক্ষিণ আফ্রিকা)

জন্মতারিখ : ১৬ মার্চ ১৯৬৯

বয়স : ৫০ বছর

জন্মস্থান : সেন্ট পিটার, বার্বাডোস

জাতীয়তা : ক্যারিবিয়ান/ওয়েস্ট ইন্ডিয়ান/বার্বাডিয়ান

একসময়কার বিধ্বংসী ক্যারিবিয়ান পেসার ওটিস গিবসন তার কোচিং ক্যারিয়ার শুরু করেন ইংল্যান্ডের বোলিং কোচ হিসেবে। এরপর ২০১০ সাল থেকে বছর চারেক ছিলেন নিজ দেশের কোচ। মাঝে ফের ইংল্যান্ডে ফিরেছিলেন পুরোনো দায়িত্বে। ২০১৭ সালে প্রোটিয়াদের হেড কোচের দায়িত্ব বুঝে নেন তিনি।

 

ফিল সিমন্স (কোচ, আফগানিস্তান)

জন্মতারিখ : ১৮ এপ্রিল ১৯৬৩

বয়স : ৫৬ বছর

জন্মস্থান : আরিমা, ত্রিনিদাদ অ্যান্ড টোবাগো

জাতীয়তা : ক্যারিবিয়ান/ওয়েস্ট ইন্ডিয়ান/ত্রিনিদাদিয়ান

২০১৬ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপজয়ী ওয়েস্ট ইন্ডিজ দলের কোচ ফিল সিমন্সের এবারের তাঁবু আফগানিস্তান। শুরুতে ব্যাটিং কোচ হিসেবে নিয়োগ পেলেও ২০১৭ সালে পেয়েছেন হেড কোচের দায়িত্ব। তার অধীনেই বাছাই পর্বে জিম্বাবুয়ে-আয়ারল্যান্ড-স্কটল্যান্ড-নেদারল্যান্ডসের মতো দলগুলোকে টপকে মূল পর্বে জায়গা করে নিয়েছে আফগানরা।

 

"