হৃৎপিন্ডের ক্ষতি হয় যেভাবে

প্রকাশ : ১০ আগস্ট ২০১৭, ০০:০০

ডা. মহসীন কবির

দেহের অঙ্গগুলোর মধ্যে হৃৎপিন্ড অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ একটি অঙ্গ। সাধারণত হার্টই মূলত আমাদের বাঁচিয়ে রাখতে সবচেয়ে বেশি কাজ করে। তাই তো আমরা সবাই এটি নিয়ে সবসময় বেশ চিন্তিত থাকি। বুকের বাম দিকে একটু ব্যথা অনুভূত হলেই টেনশনের শেষ নেই। এটি কি হার্টের ব্যথা, হার্টে কোনো সমস্যা হয়নি তো- নানা প্রশ্নে মন অশান্ত হয়ে পড়ে। সম্প্রতি এক গবেষণায় বের হয়েছে, আমাদের আধুনিক এ জীবনযাপনে হার্টকে সুস্থ-সবল রাখতে দৈনন্দিন জীবনে কিছু পরিবর্তন আনতে হবে এবং অবশ্যই কিছু নিয়মকানুন মেনে চলতে হবে। তাই আমাদের সবারই জানা প্রয়োজন হার্ট সুস্থ রাখতে আমরা যে কাজগুলো করার ক্ষেত্রে সচেতন থাকব। তাই আসুন জেনে নিই হার্টের সুস্থতায় আমরা কী কী অস্বাস্থ্যকর কাজ করব না এবং কোন নিয়মগুলো মেনে চলব-

সারা দিন শুয়ে-বসে কাটাব না। আমরা প্রতিদিন কিছু কায়িক পরিশ্রমের কাজ করব বা নিয়মিত কিছু ব্যায়াম করব। ব্যায়াম করার ক্ষেত্রে অবশ্যই মনে রাখতে হবে ব্যায়ামের ফলে যেন আমাদের শরীর থেকে ঘাম বের হয়।

আমরা প্রতিদিন সুষম একটি খাবার তালিকা মেনে খাব। যে তালিকায় পর্যাপ্ত পরিমাণ সবজি অবশ্যই থাকতে হবে।

দেহের ওজন স্বাভাবিক রাখার চেষ্টা করব এবং দেহে বাড়তি মেদ জমতে দেব না।

দীর্ঘক্ষণ একটানা ল্যাপটপ, কম্পিউটার, নেটবুক বা স্মার্টফোন ব্যবহার করব না ও টেলিভিশন দেখব না। এতে আমাদের মস্তিষ্কসহ হার্টে চাপ পড়ে।

অতিরিক্ত মাত্রায় নিয়মিত ধূমপান ও মদ্যপানের ফলেও হার্টের ক্ষতি হয়। তাই আমরা এ থেকে বিরত থাকব।

দীর্ঘসময় বদ্ধঘরে না থেকে দিনের লম্বা একটা সময় খোলামেলা পরিবেশে থাকার চেষ্টা করব।

গরুর গোশতসহ সব ধরনের লাল গোশত অতিরিক্ত পরিমাণে খাব না এবং নিয়মিত পর্যাপ্ত ফলমূল ও শাকসবজি খাব।

যতটুকু সম্ভব হাসিখুশি থাকার চেষ্টা করব। অকারণে টেনশন করব না।

নিয়মিত ফাস্ট ফুড, জাঙ্ক ফুড, কোমলপানীয় খাওয়া যাবে না ও অতিরিক্ত মাত্রায় লবণ খাওয়ার অভ্যাস কমিয়ে দেব।

যে ওষুধগুলো নিয়মিত খেতে হবে, সেগুলো চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী খেতে হবে।

"