চোখে ছানি পড়া

প্রকাশ : ২৩ মে ২০১৯, ০০:০০

ডা. নাসির উদ্দিন মাহমুদ

বার্ধক্যে চোখে ছানি পড়া রোগ একটি সাধারণ সমস্যা। চোখে ছানি পড়লে চোখে ছাপসা দেখতে পাওয়াসহ নানা উপসর্গ দেখা দেয়। চোখের ভেতরে স্বচ্ছ একটি লেন্স বা দর্পণ রয়েছে। এই দর্পণের ভেতর দিয়ে আলো গিয়ে চোখের পেছনের রেটিনায় দৃষ্টি সংবেদনশীল অংশে গিয়ে পড়ে এবং এতে আমাদের দেখার অনুভূতি তৈরি হয়, আমরা বস্তু দেখতে পাই। কাচ যেমন অস্বচ্ছ হয়ে গেলে এর ভেতর দিয়ে কোনো কিছু দেখা যায় না, তেমনি চোখের লেন্স যদি অস্বচ্ছ হয় তা হলে চোখের দৃষ্টিশক্তিও ধীরে ধীরে লোপ পেতে থাকে। আমাদের দেশে অন্ধত্বের প্রধান একটি কারণ এই ছানিরোগ। বার্র্ধক্যে বয়সজনিত কারণে লেন্সের গঠনগত পরিবর্তন হলো ছানিরোগের প্রধান কারণ। এ ছাড়া চোখের আঘাত, ঘন ঘন চোখের প্রদাহ, অপুষ্টি, অনিয়ন্ত্রিত স্টেরয়েড বা হরমোন-থেরাপি, ধূমপান, অনিয়ন্ত্রিত ডায়াবেটিসের কারণেও ছানিরোগ হতে পারে। সাধারণত বয়স্ক লোকের চোখে ছানি কারণভেদে যে কোনো বয়সে ছানিরোগ হতে পারে। পারিবারিকভাবে ছানিরোগের ইতিহাস থাকলে এবং গর্ভাবস্থায় টর্চ জীবাণুর সংক্রমণ ঘটলে জন্মগত ছানি নিয়েও বাচ্চার জন্ম হতে পারে। ছানি রোগ হলে সাধারণত চোখে যে সমস্যাগুলো হয় সেগুলো হলোÑ দৃষ্টিশক্তি লোপ পাওয়া, বারবার চশমার পাওয়ার পরিবর্তিত হওয়া, আলোর চারদিকে রংধনু দেখা, একটি জিনিসকে দুই বা একাধিক দেখা, দৃষ্টিসীমায় কালো দাগ দেখা, আলোতে চোখ বন্ধ হয়ে যাওয়া ইত্যাদি। এ ছাড়া ছানির কারণে চোখ ব্যথাও হতে পারে এবং বাচ্চাদের ছানিরোগের কারণে চোখ টেরা হয়ে যেতে পারে। যেহেতু বার্ধক্যে বয়সজনিত কারণে ছানিরোগ হয়, তাই বয়সজনিত ছানিরোগ প্রতিরোধে তেমন কিছুই করার নেই। তবে নিয়মিত পুষ্টিকর খাদ্যাভ্যাস, ডায়াবেটিস রোগ নিয়ন্ত্রণ, চোখের অন্যান্য সমস্যায় সময়মতো চিকিৎসা নেওয়া, অনিয়ন্ত্রিত হরমোনজাতীয় ওষুধ ও ধূমপান বর্জনের মাধ্যমে ছানিরোগ হওয়ার আশঙ্কা কমিয়ে আনা সম্ভব। মনে রাখতে হবে, ছানিরোগের প্রতিকার করতে কোনো ওষুধ নেই। ছানিরোগ হলে অপারেশনের মাধ্যমে ছানি অপসারণ করতে হয়। রোগীর চোখে ছানি পড়া ছাড়া চোখে যদি আর কোনো সমস্যা না থাকে যেমনÑ রেটিনা ও ভিট্রিয়াসে সমস্যা না থাকলে, অপারেশনের মাধ্যমে আবার আগের দৃষ্টিশক্তি ফিরিয়ে আনা যায়। ছানি অপসারণের পর কৃত্রিম লেন্স সংযোজন করা হয়, যা আগের স্বচ্ছ লেন্সের মতোই কার্যকর। আধুনিক চিকিৎসাবিজ্ঞানের অগ্রগতিতে ফ্যাকো সার্জারির মাধ্যমে এখন অনেক কম সময়ে ছানি অপসারণ, লেন্স সংযোজন সেলাই ছাড়াই করা সম্ভব। ফ্যাকো সার্জারি ছাড়া আর একটি পদ্ধতি হলো, ইনসিশন ছানি অপারেশন, যা এসআইসিএস নামে পরিচিত। এর মাধ্যমে মাত্র ৫-৬ মিমি কেটে, তার ভেতর দিয়ে ছানি অপসারণ ও কৃত্রিম লেন্স প্রতিস্থাপন করা হয়। অন্যদিকে ফ্যাকো সার্জারিতে অল্প কেটে তার মাধ্যমে ফ্যাকো মেশিন ব্যবহার করে ছানি অপসারণ ও কৃত্রিম লেন্স প্রতিস্থাপন করা হয়। ফ্যাকো সার্জারির সুবিধা হলো, তাড়াতাড়ি অপারেশনের পর রোগী তার স্বাভাবিক কাজকর্মে ফিওে যেতে পারে এবং অপারেশনের পর চশমার পাওয়ার কম পরিবর্তন করতে হয়। তাই চোখের ছানি নিয়ে আর কোনো দুশ্চিন্তা নয়।

 

"