মাইগ্রেন সমস্যা

প্রকাশ : ২৭ মে ২০১৮, ০০:০০

অধ্যাপক ডা. এস এম মুনীরুল হক

প্রথমেই বুঝতে হবে, কারো মাইগ্রেন থাকলে কোনো ওষুধে এ রোগ সম্পূর্ণ নিরাময় করা সম্ভব নয়। যাদের মাইগ্রেন মাথাব্যথা থাকে, সারাজীবনই কোনো না কোনো সময়ে কোনো না কোনো কারণে এ মাথাব্যথা শুরু হতে পারে। সাধারণ মাইগ্রেন হলে সাধারণত ব্যথার ওষুধ যেমন প্যারাসিটামল খেলেই কাজ হয়। যদি মাইগ্রেন বারবার হতে থাকে এবং কাজে বাধা সৃষ্টি করে, তবে কিছু শক্ত ব্যথানাশক ওষুধ এবং এর সঙ্গে যাতে বারবার ব্যথা ফিরে না আসে, সে জন্য কিছু প্রতিষেধক ওষুধ দেওয়া হয়। কখনো কখনো চশমার সামান্য পাওয়ার দিতে হয়। মাইগ্রেনের মতো মাথাব্যথায় অন্য জটিল নিউরোলজিক্যাল রোগও হতে পারে। তাই যদি বারবার মাথাব্যথা হয় বা খুব বেশি মাথাব্যথা হয়, তবে কিছু পরীক্ষা করা প্রয়োজন হতে পারে। ডাক্তার পরীক্ষা করে নিশ্চিত হলে এবং ওষুধ দিলে সেগুলো ব্যবহার করতে হবে।

শেষ কথা : মাইগ্রেন এক ধরনের মাথাব্যথা। শিশুদেরও মাইগ্রেন হতে পারে। যাদের মাইগ্রেন থাকে, তাদের মাঝেমধ্যে মাথাব্যথা হবেই। যখন প্রয়োজন, যতটুকু প্রয়োজন ততটুকু ওষুধ খেতে হবে। কারণ সব ওষুধেরই পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া রয়েছে। মাইগ্রেন ধরা পড়লে ভয়ের কিছু নেই। তবে অন্য অনেক রোগেও মাথাব্যথা হতে পারে। তাই মাইগ্রেনজাতীয় ব্যথা হলে অবিলম্বে ডাক্তার দেখানো উচিত এবং সঠিক পরীক্ষা করে নিশ্চিত হওয়ার পর ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী ওষুধ খাওয়া উচিত। মাইগ্রেন ব্যথা কখনো অবহেলা করা উচিত নয়। সব নিউরোলজিক্যাল, চক্ষু, নাক, সাইনাস, দাঁত ইত্যাদি পরীক্ষা করেই শুধু নিশ্চিত হওয়া সম্ভব রোগটি মাইগ্রেন কিনা। এ রোগের চিকিৎসা বিশেষজ্ঞের তত্ত্বাবধানে করা উচিত। মাইগ্রেন ব্যথার জন্য বহু ধরনের ওষুধ রয়েছে। এক এক রোগীর এক এক ধরনের ওষুধে ভালো কাজ হয়। তাই বিশেষজ্ঞের পরামর্শ অনুযায়ী সঠিক মাত্রায় ওষুধ খাওয়া উচিত। জটিল বা হঠাৎ মাথাব্যথা হলে সব পরীক্ষা করার পর নিশ্চত হলে তবেই আপনার ডাক্তার আপনাকে সঠিক ওষুধ দিতে পারবেন। অন্য কোনো রোগের জন্য মাথাব্যথা হলে তার চিকিৎসাও সঙ্গে সঙ্গে করা উচিত। মাথাব্যথা হলে অবহেলা না করে অবশ্যই ডাক্তারের পরামর্শ নিন।

লেখক : অধ্যাপক, চক্ষু বিভাগ

হলিফ্যামিলি রেড ক্রিসেন্ট হাসপাতাল

"