রায় নিয়ে এত লাফালাফি কেন : কাদের

‘ক্ষমতায় যাওয়ার স্বপ্ন কর্পূরের মতো উড়ে যাবে’

প্রকাশ : ১৩ আগস্ট ২০১৭, ০০:০০

ঢাবি প্রতিনিধি

সংবিধানের ষোড়শ সংশোধন বাতিলের রায় নিয়ে বিএনপির প্রতিক্রিয়াকে ‘লাফালাফি’র সঙ্গে তুলনা করেছেন ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। গতকাল শনিবার কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে ছাত্রলীগের এক সমাবেশে তিনি বলেন, ‘সুপ্রিম কোর্টের রায়ে বাংলাদেশের রাজনীতিতে অঘটনঘটনপটিয়সী, ডিগবাজির চ্যাম্পিয়ন মওদুদ আহমদের আনন্দে আমরা খুব একটা বিচলিত হয়নি। কিন্তু মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, আপনি এত লাফালাফি করছেন কেন?’

বিচারপতি অপসারণের ক্ষমতা সংসদের হাতে ফিরিয়ে নিতে সংবিধানের ওই সংশোধন সুপ্রিম কোর্ট বাতিলের পাশাপাশি কিছু পর্যবেক্ষণ দিয়েছে, যা নিয়ে রাজনৈতিক অঙ্গনে চলছে তোলপাড়। আওয়ামী লীগ ওই রায়কে কেন্দ্র করে প্রধান বিচারপতির সমালোচনা করছে; অন্যদিকে রায়ের ফলে আওয়ামী লীগ সরকারের থাকার বৈধতা হারিয়েছে বলে বিএনপি নেতাদের দাবি।

কাদের বলেন, ‘আট বছরে আট মিনিটের জন্য আন্দোলন করতে পারেনি। পারেনি বলে জনগণ আপনাদের সঙ্গে ছিল না। আজকে কোর্ট একটা রায় দিয়েছেন, মনে হচ্ছে জগাই-মধাই নৃত্য করছে।’ সুপ্রিম কোর্টের এই রায় নিয়ে বিএনপি ষড়যন্ত্র করছে দাবি করে তিনি বলেন, ‘সেই স্বপ্ন কর্পুরের মতো উড়ে যাবে।’

নোয়াখালীর আসনে নিজের রাজনৈতিক প্রতিদ্বন্দ্বী মওদুদকে উদ্দেশ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘মওদুদ আহমদ একবার বিএনপি, একবার জাতীয় পার্টি, আবার বিএনপি; এই বহুরূপী রাজনীতিকের পরামর্শ যদি নেন আপনারা, রসাতলে ডুবে গেছেন, বাকিটাও ডুবে যাবেন।’

জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে ছাত্রলীগের ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ শাখার উদ্যাগে এই ছাত্র সমাবেশ হয়।

রায় নিয়ে ‘ষড়যন্ত্র’ প্রতিরোধে ছাত্রলীগকে সতর্ক থাকার আহ্বান জানান আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক। পাশাপাশি সহযোগী সংগঠনের নেতাদের মাথা ঠান্ডা রাখার পরামর্শ দেন তিনি। বলেন, ‘দুর্যোগ কবলিত বৃষ্টিতে সকাল থেকে যে ধৈর্যের পরিচয় তোমরা দিয়েছ; তোমরা মাথা ঠান্ডা রেখে কাজ করবে।’ ছাত্রলীগের সুনাম ধরে রাখার আহ্বান জানিয়ে সংগঠনটির সাবেক সভাপতি কাদের বলেন, ‘গুটি কয়েকের জন্য গোটা ছাত্রলীগের বদনাম হতে পারে না। খারাপ লোকজন যারা আছে, তাদের দল থেকে বের করে দাও। তাদের দরকার নেই, যারা আমাদের দল ও পার্টির ভাবমূর্তি নষ্ট করে।’

সমাবেশে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক দীপু মনি, জাহাঙ্গীর কবির নানক ও আবদুর রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক আহম্মদ হোসেন, বন ও পরিবেশবিষয়ক সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন, ছাত্রলীগের সভাপতি সাইফুর রহমান সোহাগ ও সাধারণ সম্পাদক এস এম জাকির হোসাইন। ছাত্রলীগের ঢাকা মহানগর উত্তর শাখার সভাপতি মিজানুর রহমানের সভাপতিত্বে সমাবেশে বক্তব্য দেন-ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সভাপতি বায়জিদ আহমদ খান ও ঢাকা মহানগর উত্তরের সাধারণ সম্পাদক মহিউদ্দিন আহমেদও।

"