জরিপে এগিয়ে আছেন রামনাথ কোবিন্দ

ভোটগ্রহণ সম্পন্ন : ভারতে নতুন রাষ্ট্রপতির নাম জানা যাবে বৃহস্পতিবার

প্রকাশ : ১৮ জুলাই ২০১৭, ০০:০০

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

উৎসবমুখর ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশে ভারতের ১৪তম রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল সোমবার সকাল ১০টা থেকে শুরু হওয়া এই ভোট গ্রহণ চলে বিকেল ৫টা (বাংলাদেশ সময় সাড়ে ৫টা) পর্যন্ত। সংবিধান অনুযায়ী, রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে ভোট দেন লোকসভার ৭৭৬ সদস্য ও রাজ্যগুলোর বিধানসভার ৪ হাজার ১২০ সদস্য। ব্যাপক গোপনীয়তা ও কড়া নিরাপত্তার মধ্য দিয়ে গৃহীত এসব ভোট গণনা হবে আগামী ২০ জুলাই। তারপরই জানা যাবে কে আসছেন রাইসিনা হিলের রাষ্ট্রপতি ভবনে। এদিকে গতকাল দুপুর ১টার দিকে লোকসভায় ভোট দেন কংগ্রেস সভানেত্রী সোনিয়া গান্ধী এবং সহসভাপতি রাহুল গান্ধী। এ সময় জোটের অন্য সংসদ সদস্যরাও পাশে ছিলেন।

রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে বিজেপি জোটের প্রার্থী রামনাথ কোবিন্দই সংখ্যাগরিষ্ঠ ভোটে নির্বাচিত হতে যাচ্ছেন বলে আভাস পাওয়া যাচ্ছে। বিভিন্ন জরিপ অনুযায়ী, তিনি ৭০ শতাংশ ভোট পেয়ে রাইসিনা হিলে উঠতে যাচ্ছেন বলে মনে করা হচ্ছে। একইভাবে এই নির্বাচনে বিজেপির নেতৃত্বাধীন ক্ষমতাসীন জোটের প্রার্থী রামনাথ কোবিন্দই জিতবেন বলে আশা করছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিসহ তার দলের নেতারা। দলিত সম্প্রদায়ের এই নেতা ছিলেন বিহারের রাজ্যপাল। নির্বাচনে তার প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে রয়েছেন বিরোধী কংগ্রেস জোটের প্রার্থী লোকসভার সাবেক স্পিকার মীরা কুমার। তিনিও দলিত সম্প্রদায়ের প্রতিনিধি। জনসংখ্যার দিক থেকে বৃহৎ গণতান্ত্রিক এই দেশটির রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে সকালে লোকসভা ভবনে নিজের পছন্দের প্রার্থীর পক্ষে ভোট দেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। এ সময় বিজেপি সভাপতি অমিত শাহও ভোট দেন। ভোটাধিকার প্রয়োগের পর লোকসভার বাইরে অপেক্ষমাণ সাংবাদিকদের মোদি বলেন, সংসদের বর্ষাকালীন অধিবেশন শুরু হচ্ছে। বর্ষা মানুষের জন্য আশার সংবাদ নিয়ে আসে। ঠিক একইভাবে নতুন এই অধিবেশনও আশার বার্তা নিয়ে আসবে। এই অধিবেশনেই রাষ্ট্রপতি ও উপরাষ্ট্রপতি নির্বাচন হচ্ছেন।

অন্যদিকে রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের ভোট গ্রহণের পর উপ-রাষ্ট্রপতি প্রার্থীর নাম চূড়ান্ত করতে গতকাল বিকেলে সংসদীয় বোর্ডের সভা ডেকেছেন বিজেপি জোটের সদস্যরা। সভা শেষেই প্রার্থীর নাম ঘোষণা করার কথা। অবশ্য বিরোধী কংগ্রেস জোট এরই মধ্যে উপ-রাষ্ট্রপতি পদে তাদের প্রার্থী হিসেবে পশ্চিমবঙ্গের রাজ্যপাল গোপাল কৃষ্ণ গান্ধীর নাম ঘোষণা করে ফেলেছে।

"