তোফায়েলের প্রতিক্রিয়া

ইসির ‘রোডম্যাপ’ বাস্তবসম্মত

প্রকাশ : ১৭ জুলাই ২০১৭, ০০:০০

নিজস্ব প্রতিবেদক

একাদশ সংসদ নির্বাচন নিয়ে নির্বাচন কমিশন ঘোষিত রোডম্যাপকে বাস্তবসম্মত উল্লেখ করে সব দলকে নির্বাচনের প্রস্তুতি নেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন বাণিজ্যন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ। বিএনপির সমালোচনার মধ্যে একাদশ সংসদ নির্বাচন অংশগ্রহণমূলক ও প্রভাবমুক্ত করার লক্ষ্য নিয়ে দেড় বছরের কর্মপরিকল্পনা গতকাল রোববার প্রকাশ করেছে কে এম নুরুল হুদার নেতৃত্বাধীন নির্বাচন কমিশন।

এদিন সচিবালয়ে সাংবাদিকরা ঘোষিত ‘রোডম্যাপ’ নিয়ে প্রতিক্রিয়া জানতে চাইলে আওয়ামী লীগের উপদেষ্টাম-লীর সদস্য তোফায়েল বলেন, ‘নির্বাচন কমিশন যে পথনকশা জাতির সামনে পেশ করেছে, তা খুবই সুন্দর হয়েছে এবং বাস্তবসম্মত হয়েছে।...আমরা মনে করি নির্বাচনকালীন যে সরকার নিয়ে বিএনপি প্রশ্ন তুলেছে-সহায়ক সরকার নিয়ে, পৃথিবীর কোনো দেশে সহায়ক সরকার বলে কোনো শব্দ নেই। সংবিধানে আছে ক্ষমতাসীন সরকারের অধীনে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। নিরপক্ষেভাবে দায়িত্ব পালন করে নির্বাচন কমিশন।’

আগামী নির্বাচন ক্ষমতাসীন সরকারের অধীনে হবে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘যেদিন শিডিউল ঘোষণা করবে তারপর থেকে এই ক্ষমতাসীন সরকার অন্তর্বর্তীকালীন সরকার হিসেবে দায়িত্ব পালন করবে, তাদের কাজ হবে ডে টু ডে কার্যকলাপ করা, নির্বাচন কমিশন যা চাইবে সরকার তাই করবে।’

এখন সব দলেরই আগামী নির্বচানের জন্য প্রস্তুতি গ্রহণ করা উচিত বলে মনে করেন তোফায়েল আহমেদ। সবার অংশগ্রহণে নির্বাচন করতে কোনো উদ্যোগ আছে কি না-এমন প্রশ্নে মন্ত্রী বলেন, ‘কেউ যদি সংবিধান পরিপন্থি কোনো প্রস্তাব পেশ করে, কখনো গ্রহণযোগ্য হবে না, বিএনপি নির্বাচন করবে কি করবে না, এটি তাদের ব্যাপার। ২০১৪ সালে করেনি, আমরা পাঁচ বছর মেয়াদ পূর্ণ করতে যাচ্ছি।’ তিনি বলেন, ‘এই নির্বাচনে আমি তো বলতে পারি না বিএনপি আসবেই; আবার এ-ও বলতে পারি না বিএনপি না আসলে সমস্যা নেই। তবে বাস্তবসম্মত হলো সংবিধানবিরোধী কোনো সিদ্ধান্ত গ্রহণ করব না।’ তিনি বলেন, ‘আমাদের প্রচেষ্টা সকলের অংশগ্রহণে একটি নির্বাচন, আমরা আশা করি জ্বালাও-পোড়াও করে তারা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে, আগামীতে এটি তারা করবে বলে বিশ্বাস করি না। কারণ আরেকবার তারা আগুনে ঝাঁপ দেবে আমি তা বিশ্বাস করি না, কারণ ভুল থেকে মানুষ শিক্ষা গ্রহণ করে।’

সম্প্রতি উত্তরায় রাজনৈতিক নেতাদের বৈঠকে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর বাগড়া নিয়ে মন্ত্রী বলেন, ‘উত্তরায় বামপন্থি নেতাদের বৈঠকের সময় আমি জেনেভাতে ছিলাম, আ স ম আবদুুর রবের বাসায় মিটিং হয়েছে, সুন্দরভাবে যেন তারা মিটিং শেষ করতে পারে, কোনো ঝামেলা যেন না হয়.. আপনারা জানেন সেখানে যদি হঠাৎ জঙ্গি তৎপরতা হয়, সরকারকে তো দোষারোপ করা হতো। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী হয়তো বা সেখানে খেয়াল রেখেছে, যেন আইনশৃঙ্খলার অবনতি না হয়, সে জন্য সেটা হয়েছে।’

"