আজ থেকে আগামী নির্বাচনের প্রস্তুতি শুরু : কাদের

‘আরেকটি শাপলা চত্বরের ষড়যন্ত্র করেছিল বিএনপি’

প্রকাশ : ২০ মে ২০১৭, ০০:০০

নিজস্ব প্রতিবেদক

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, শনিবার থেকে আগামী নির্বাচনের প্রস্তুতি শুরু করা হবে। ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘আগামী নির্বাচনের প্রস্তুতির জন্য আওয়ামী লীগ বর্ধিত সভার আয়োজন করেছে আজ শনিবার। সভায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নেতা-কর্মীদের উদ্দেশে দিকনির্দেশনামূলক বক্তব্য নির্বাচনের জন্য প্রস্তুতির সর্বাত্মক কাজ শুরু করব আমরা।’ একই সঙ্গে তিনি বিএনপির বিরুদ্ধে আরেকটি শাপলা চত্বরের ষড়যন্ত্রের অভিযোগ আনেন। গতকাল শুক্রবার দুপুরে রাজধানীর শিল্পকলা একাডেমিতে এক আলোচনা সভায় এ কথা বলেন তিনি। শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে যুবলীগ এ আলোচনা সভার আয়োজন করে। বিএনপি হেফাজতে ইসলামীকে দিয়ে মে মাসে শাপলা চত্বরে আরেকটি অবরোধ করার গোপন ষড়যন্ত্র করছিল বলে অভিযোগ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘তখন তো ঢাকাবাসীকে শাপলা চত্বরে আসার আহ্বান জানিয়েছিলেন, এখন সমালোচনা করছেন। তাদের মন খুব খারাপ। আসলে মে মাসে তলে তলে তাদের আরেকটি শাপলা চত্বর বাস্তবায়নের চেষ্টা শেখ হাসিনার বাস্তববাদী কৌশলের কারণে ভেস্তে গেছে।’

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘বিএনপির মহাসচিব বলছেন সমঝোতা করতে। ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের পরে বোমা মেরে মানুষ হত্যা করে সমঝোতার দরজা তো আপনারা বন্ধ করে দিয়েছেন। সর্বশেষ কোকো মারা যাওয়ার পর খালেদা জিয়াকে দেখতে গিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী। তাকে অপমান করে ফিরিয়ে দিয়েছেন। এরপর আপনারো কীভাবে সমঝোতার আশা করেন?’ ২০১৪ সালের নির্বাচনে প্রধানমন্ত্রীর সংলাপের আহ্বান প্রত্যাখ্যানের সমালোচনা করে তিনি বলেন, ‘তার পরও সমঝোতা কীভাবে করব? সমঝোতার রাজনীতির মানসিকতা কি তাদের আছে? প্রধানমন্ত্রীর জন্য দুয়ার বন্ধ করে সমঝোতার দরজা তারা বন্ধ করে দিয়েছে। প্রধানমন্ত্রী সমঝোতা চেয়েছিলেন, কিন্তু বিএনপি বন্ধ করে দিয়েছে তা।’

বিএনপির ভিশনের সমালোচনা করে তিনি বলেন, ‘তারা ভিশন মানে, কিন্তু ইভিএম মানে না। এটা স্ববিরোধী। বিএনপির অভ্যন্তরেই গণতন্ত্রের চর্চা নেই মন্তব্য করে কাদের বলেন, আমরা বর্ধিত সভা করছি। নতুন সদস্য নিচ্ছি, সদস্য রিনিউ করছি। যাতে করে আমাদের মধ্যে কোনো প্যারাসাইট ঢুকতে না পারে, সে চেষ্টা করছি। পরগাছামুক্ত আওয়ামী লীগ করতে এবার অনুপ্রবেশকারী ঠেকানোর পরিকল্পনা নিয়েছি আমরা। আর এটি হবে নির্বাচনের সর্বোচ্চ প্রস্তুতি।’

যুবলীগ চেয়ারম্যান ওমর ফারুকের সভাপতিত্বে আরো উপস্থিত ছিলেন সংগঠনটির সাধারণ সম্পাদক হারুন উর রশিদ প্রমুখ।

"