করোনা সংকট

ডিজিটাল নির্দেশনায় চলছে আওয়ামী লীগের রাজনীতি

প্রকাশ : ০৩ জুন ২০২০, ০০:০০

জিয়াউদ্দিন রাজু

বৈশ্বিক মহামারি করোনাভাইরাসে ঝিমিয়ে পড়েছে বাংলাদেশের রাজনৈতিক অঙ্গন। এ দুঃসময়ে নেতারা ডিজিটাল প্ল্যাটফরম হিসেবে অনলাইনে নেতাকর্মীদের সঙ্গে যোগাযোগ রাখছেন। দলটির নেতাকর্মীরা সক্রিয় রয়েছেন সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে। এ ছাড়া তৃণমূলের নেতাকর্মীদের নিয়ে সচল রয়েছে ত্রাণ বিতরণ কার্যক্রম। তাই সাংগঠনিক কর্মকান্ডের চেয়ে এ মুহূর্তে মানুষের পাশে দাঁড়ানোকেই বড় রাজনৈতিক করণীয় হিসেবে বিবেচনা করছে সরকারি দল। এ বিষয়ে দলের সভাপতিমন্ডলীর অন্যতম সদস্য জাহাঙ্গীর কবির নানক বলেন, বিশ্ব যখন কোভিড-১৯-এ আক্রান্ত, এই পরিস্থিতিতে জনস্বার্থের রাজনীতিটাই বড় কথা। এখন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ সেটাই করছে।

গত মার্চের শুরুতে দেশে করোনা সংক্রমণ শনাক্ত হওয়ার পর দলের রাজনীতিতে সভা-সমাবেশ, সাংগঠনিক কর্মকান্ড বন্ধ হয়ে যায়। তবে গত রোববার সাধারণ ছুটি তুলে নিয়ে পরীক্ষামূলকভাবে সীমিত আকারে খুলে দেওয়ার হলেও পরিস্থিতি এখনো অনুকূলে নয়। তাই এখনো অনলাইনেই রাজনীতিতে সক্রিয় রয়েছে দলটি। দলটির নেতারা জানিয়েছেন, সামাজিক দূরত্ব ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে মানুষের পাশে দাঁড়াতে হবে। ব্যবহার করতে হবে ডিজিটাল প্ল্যাটফরম। নেতাকর্মীদের পুনরুজ্জীবিত করে মহামারির সংকট দূর করার জন্য দিকনির্দেশনা দেবেন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এরই মধ্যে দলটির কেন্দ্রীয় নেতারা ধানমন্ডিস্থ আওয়ামী লীগের সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে এসব বিষয়ে বৈঠক করেছেন। বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দিকনির্দেশনা সারা দেশে তৃণমূল নেতাকর্মীদের কাছে পৌঁছে দিচ্ছেন। দলীয় সূত্রে জানা গেছে, আগামী ৭ জুন ঐতিহাসিক ছয় দফা দিবস ও ২৩ জুন দলের ৭১তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী। এদিন ধানমন্ডি ৩২ নাম্বারে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে ফুলেল শ্রদ্ধা জানাবেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগসহ বিভিন্ন সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠন। তবে সেখানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা উপস্থিত থাকবেন কি না, তা নিয়ে এখনো সিদ্ধান্ত হয়নি। তবে দলের কেন্দ্রীয় নেতাদের টুঙ্গিপাড়ায় সফর বাদ যাওয়ার সম্ভাবনা বেশি। দলটির প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর দিনে আগামী দিনের জন্য নেতাকর্মীদের দিকনির্দেশনা দেবেন সভাপতি শেখ হাসিনা। ওইদিনে ভিডিও কনফারেন্সে মহানগর নেতাকর্মীদের সঙ্গে কথা বলবেন তিনি।

এসব বিষয়ে আওয়ামী লীগের উপদফতর সম্পাদক সায়েম খান প্রতিদিনের সংবাদকে বলেন, ‘গত দুই মাসে দেশে করোনাভাইরাস আবির্ভাবের পর আমাদের বড় ধরনের কোনো সাংগঠনিক সভা হয়নি। তবে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে যেসব প্রোগ্রাম হয়েছে; সেখানে দলের সাধারণ সম্পাদকসহ কেন্দ্রীয় নেতারা যুক্ত হয়ে দিকনির্দেশনা দিয়েছেন। আগামী ২৩ জুন দলের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে সারা দেশের আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা ভিডিও কনফারেন্সে একযোগে যুক্ত হতে পারে কি না, সে বিষয়ে পরিকল্পনা চলছে।’

তিনি জানান, ডিজিটাল বাংলাদেশের রূপকার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, তাই করোনার মধ্যেও ডিজিটাল প্ল্যাটফরমের মাধ্যমে আওয়ামী লীগের রাজনৈতিক কর্মকান্ড গতিশীল করার পরিকল্পনা চলছে।

জানতে চাইলে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম বলেন, ‘এ মুহূর্তে রাজনৈতিক বা সামাজিক কর্মকান্ডের চেয়ে জনস্বার্থের দিকে নজর দিচ্ছে আওয়ামী লীগ। এটা আমাদের দলের কার্যক্রমের অংশ। এটা রাজনৈতিক কর্মকান্ড, সাংগঠনিক তৎপরতার অংশ, তা আমরা চালিয়ে যাচ্ছি।’

 

"