ভারতে মৃত্যু বাড়ছে প্রকাশ্যে থুতু ফেললে জেল-জরিমানা

প্রকাশ : ১৭ এপ্রিল ২০২০, ০০:০০

পার্থ মুখোপাধ্যায়, কলকাতা থেকে

ভারতে এখনো পর্যন্ত করোনার শিকার ৪১৪, গত ২৪ ঘণ্টায় ৩৭ জনের মৃত্যু, আক্রান্ত ১২,৩৮০। এরই মধ্যে করোনা সংক্রমণের ক্ষেত্রে দেশের ৬৪০টি জেলার মধ্যে ১৭০টি জেলাকে হটস্পট হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। সেই তালিকায় রয়েছে দেশের ৬টি মেট্রো শহর এবং আরো অনেক বড় শহর। অতি সংক্রমিত এলাকার তালিকায় রয়েছে ১২৩টি জেলা, তার মধ্যে দিল্লির ৯টি জেলা রয়েছে। তালিকায় রয়েছে কলকাতা, মুম্বাই, বেঙ্গালুরু গ্রামীণ, হায়দরাবাদ, চেন্নাই, জয়পুর, এবং আগ্রার বিভিন্ন অংশ। দেশ বা রাজ্যের ৮০ শতংশ সংক্রমিত জেলা বা শহরকে হটস্পট এলাকা হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। যেসব জায়গায় বেশি সংখ্যক সংক্রমণ ছড়িয়েছে, অর্থাৎ ৪ দিনের কম সময়ে দ্বিগুণ হয়েছে সংক্রমণের হার, সেগুলো এই তালিকায়। ৬টি মেট্রো শহরের মধ্যে রয়েছে দিল্লি, মুম্বাই, কলকাতা, চেন্নাই, বেঙ্গালুরু এবং হায়দরাবাদ, এগুলোতে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেশি।

এদিকে ভারতে এখন জনসমক্ষে থুতু ফেলাটা এখন শাস্তিযোগ্য অপরাধ। এমনটাই জানিয়েছে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। কড়া বিপর্যয় মোকাবিলা আইন অনুযায়ী পরিবর্তিত গাইডলাইনে কোভিড-১৯ মোকাবিলায় এই নয়া নিয়মের কথা জানিয়েছে মন্ত্রণালয়। পাশাপাশি গাইডলাইনে আরো জানানো হয়েছে, সবার জন্য মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক। বহু শহরে জনসমক্ষে থুতু ফেলাটা অপরাধ। কিন্তু সাধারণভাবে দেশের নাগরিকরা সেই আইনকে বহু সময়ই মান্য করেন না। মুম্বাই পৌরসভা জনসমক্ষে থুতু ফেলার ক্ষেত্রে ১ হাজার টাকা জরিমানা করে। একই নিয়ম রয়েছে দিল্লির বহু পৌরসভায়। করোনা মোকাবিলায় বিহার, ঝাড়খন্ড, তেলেঙ্গানা, উত্তরপ্রদেশ, উত্তরাখন্ড, মহারাষ্ট্র, হরিয়ানা, নাগাল্যান্ড ও আসাম এরই মধ্যে ধোঁয়াহীন তামাকজাত দ্রব্য নিষিদ্ধ করে দিয়েছে। পাশাপাশি জনসমক্ষে থুতু ফেলাটাও নিষিদ্ধ।

৩ মে পর্যন্ত লকডাউনের মেয়াদ বাড়ার পরে প্রকাশিত পরিবর্তিত গাইডলাইনে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বিপর্যয় মোকাবিলা আইনের ৫১(বি) আইন অনুসারে জনসমক্ষে থুতু ফেলাটা শাস্তিযোগ্য অপরাধ বলে চিহ্নিত করেছে। জানানো হয়েছে, জনসমক্ষে থুতু ফেললে শাস্তির পাশাপাশি জরিমানাও গুনতে হবে। মদ, গুটকা, তামাক বিক্রি এবং জনসমক্ষে থুতু ফেলা কঠোরভাবে নিষিদ্ধ। বিপর্যয় মোকাবিলা আইনকে অমান্য করলে এক বছরের কারাবাস কিংবা জরিমানা অথবা দুই-ই হতে পারে বলে জানানো হয়েছে।

 

"