বিশ্বে মৃত্যু ছাড়াল ১ লাখ ৩৪ হাজার

প্রকাশ : ১৭ এপ্রিল ২০২০, ০০:০০

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

বিশ্বব্যাপী নোভেল করোনাভাইরাসের (কোভিড-১৯) শনাক্তের সংখ্যা সাড়ে ২১ লাখ ছাড়িয়ে গেছে। গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ৮টা পর্যন্ত ওয়ার্ল্ডওমিটারের তথ্য জানা গেছে। এরই মধ্যে ২১০ দেশ ও অঞ্চলে করোনা সংক্রমিত হয়েছে। ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছে ১ লাখ ৩৪ হাজার ৬১৫ জন। সারা বিশ্বে নতুন করে প্রাণহানির ঘটনা ঘটেছে ৭ হাজার ৯৬০ জনের। আর শনাক্ত হয়েছেন ৮৪ হাজার ৫১৫ জন।

করোনাভাইরাসের তান্ডবে বর্তমানে সবচেয়ে বিধ্বস্ত অবস্থা যুক্তরাষ্ট্রের। প্রতিদিনই রেকর্ড পরিস্থিতি সামাল দিতে হিমশিম খাচ্ছে দেশটি। দিন দিন অবস্থার আরো অবনতি হচ্ছে। ক্রমাগত বাড়ছে আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা। গত ২৪ ঘণ্টায় (মঙ্গলবার সকাল থেকে বুধবার সকাল পর্যন্ত) রেকর্ডসংখ্যক ২ হাজার ৪৮২ জন মারা যায় এ মহামারিতে। ফলে মোট মৃত্যুও সংখ্যা দাঁড়াল ৩০ হাজার ৭৮৬ জনে। এর মধ্যে শুধু নিউইয়র্কেই মারা গেছে ১১ হাজার ৫৮৬ জন।

যুক্তরাষ্ট্রের পর করোনা শনাক্ত হওয়া শীর্ষ পাঁচটি দেশ ইউরোপের। এর মধ্যে স্পেনে গত বুধবার পর্যন্ত নতুন আক্রান্তের সংখ্যা ৫ হাজার ১০০ জন বেড়েছে। তবে মৃত্যুর সংখ্যা কমেছে। এ দিন ৫২৩ জনের মৃত্যু ঘটেছে। ফলে মোট ১ লাখ ৭৭ হাজার ৬৩৩ জন নতুন রোগী শনাক্ত হয়েছে। আর মৃত্যু বেড়ে হয়েছে ১৯ হাজার ১০২ জনে। যুক্তরাষ্ট্র ও ইতালির পর এটাই সর্বোচ্চ সংখ্যা। স্পেনের জরুরি সমন্বয় কেন্দ্রের পরিচালক ফার্নান্দো সাইমন জানান, মহামারি মোকাবিলা করতে গিয়ে বহু সংখ্যক চিকিৎসক, নার্স ও সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন কর্মী আক্রান্ত হয়েছেন। এদের বেশির ভাগই সুস্থ হয়ে আবারও কাজে যোগ দিয়েছেন।

যুক্তরাজ্যে করোনার প্রকোপ এখন শীর্ষ পর্যায়ের দিকে অবস্থান করছে। প্রতিদিনই এখানে মৃত্যুর মিছিল দীর্ঘ হচ্ছে। সর্বশেষ খবর অনুসারে, স্থানীয় সময় মঙ্গলবার বিকাল ৫টার আগের ২৪ ঘণ্টায় দেশটির বিভিন্ন হাসপাতালে এ ভাইরাসে নতুন করে আরো ৭৬১ জনের মৃত্যু হয়েছে। ফলে যুক্তরাজ্যে করোনায় মোট মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১২ হাজার ৮৬৮ জনে।

প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসে বিপর্যস্ত ইতালি। দেশটিতে প্রতিনিয়ত মৃতের সংখ্যা বেড়েই চলছে। গত ২৪ ঘণ্টায় (বুধবার সকাল পর্যন্ত) দেশটিতে মারা গেছেন ৫৭৮ জন। এ নিয়ে ইতালিতে করোনায় মৃতের সংখ্যা ২১ হাজার ৬৪৫ জন।

গত বুধবার নিয়মিত প্রেস ব্রিফিংয়ে নাগরিক সরক্ষা সংস্থার প্রধান অ্যাঞ্জেলো বোরেলিÑ এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

তিনি জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ২ হাজার ৬৬৭ জন। এ নিয়ে আক্রান্ত ১ লাখ ৬৫ হাজার ১৫৫ জন। তবে এই একদিনে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ৯৬২ জন। সব মিলিয়ে প্রায় ৩৮ হাজার ৯২ জন সুস্থ হয়ে নিজ পরিবারের কাছে ফিরেছেন বলে জানিয়েছে দেশটির স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়।

এদিকে করোনায় আক্রান্ত হয়ে ইতালিতে আট বাংলাদেশির মৃত্যু হয়েছে। তবে মোট কতজন বাংলাদেশি ইতালিতে আক্রান্ত হয়েছেন, তা জানা না গেলেও ৮ জনের মৃত্যুর তথ্য দিয়েছে দেশটির বাংলাদেশি কমিউনিটি। যদিও বাংলাদেশ দূতাবাস থেকে নিশ্চিত কোনো তথ্য পাওয়া যায়নি।

ফ্রান্সে এ পর্যন্ত ১৭ হাজারের বেশি মানুষ প্রাণ হারিয়েছে। তবে মহামারি ছড়িয়ে পড়ার এই প্রথমবারের মতো হাসপাতালে ভর্তি রোগীর সংখ্যা কিছুটা কমেছে। গত বুধবার দেশটির শীর্ষস্থানীয় এক স্বাস্থ্য কর্মকর্তা এ কথা জানিয়েছেন।

স্বাস্থ্য কর্মকর্তা জারোম সালোমন সাংবাদিকদের বলেন, ফ্রান্সের বিভিন্ন হাসপাতাল ও বৃদ্ধাশ্রমে এ পর্যন্ত মহামারি করোনাভাইরাসে ১ হাজার ৪৩৮ জনের মৃত্যু হয়েছে। ফলে মোট ১৭ হাজার ১৬৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। আগের দিনে এই সংখ্যা ছিল ১৫ হাজার ৭২৯ জন।

জার্মানিতে কোভিড-১৯ নভেল করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হয়ে মৃত্যুর মিছিল অব্যাহত। গত বুধবার পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় প্রাণ হারাল আরো ৩১৫ জন। ফলে মৃতের সংখ্যা বেড়ে হলো ৩ হাজার ৮১০। এই সময়ে নতুন করে সংক্রমিত হয়েছেন ২ হাজার ৮৬৬ জন। ফলে জার্মানিতে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে হলো ১ লাখ ৩০ হাজার ৪৫০ জন।

চীনে নতুন করে আবার আক্রান্তের সংখ্যা বাড়তে শুরু করেছে। বিশেষ করে বহিরাগতদের মধ্যে নতুন করে আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে। ফলে বহিরাগতদের মাধ্যমে চীনে নতুন করে মহামারির আশঙ্কা তৈরি হয়েছে। চীনের মূল ভূখন্ডে এখন পর্যন্ত মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৮২ হাজার ৩৪১। নতুন করে আক্রান্ত হয়েছে ৪৬ জন। চীনে এখন পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছে ৩ হাজার ৩৪২ জন। চিকিৎসা নিয়ে সুস্থ হয়ে উঠেছে ৭৭ হাজার ৮৯২ জন। তবে ৯৫ জনের অবস্থা এখনো আশঙ্কাজনক।

মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোর মধ্যে সর্বাধিক আক্রান্ত ইরানে আরো ৯২ জনের মৃত্যুসহ মৃতের সংখ্যা মোট ৪ হাজার ৮৬৯ জনে দাঁড়িয়েছে। আর শনাক্ত রোগীর সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৭৭ হাজার ৯৯৫।

মৃতের সংখ্যা বাড়ছে

যুক্তরাষ্ট্র : ৩০,৭৮৬

স্পেন : ১৯,১০২

ইতালি : ২১,৬৪৫

ফ্রান্স : ১৭,১৬৭

জার্মানি : ৩,৮১০

যুক্তরাজ্য : ১২,৮৬৮

ইরান : ৪,৮৬৯

 

"