বেতন-ভাতার দাবিতে পোশাক শ্রমিকরা রাস্তায়

প্রকাশ : ১৬ এপ্রিল ২০২০, ০০:০০

নিজস্ব প্রতিবেদক

করোনার ভয়াল থাবায় প্রতিদিনই নতুন নতুন আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছেই। বাড়ছে মৃতের সংখ্যাও। পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে অন্যান্য জেলার সঙ্গে কার্যত বিচ্ছিন্ন ঢাকা। কিন্তু অঘোষিত লকডাইনের মধ্যেই সামাজিক দূরত্বের বাধ্যবাধতা না মেনেই সড়কে নেমেছেন পোশাকশ্রমিকরা। গতকাল বুধবার সকাল থেকেই রাজধানীর বাড্ডা, মিরপুর, ভাষানটেক ও উত্তরার দক্ষিণখানে ১০টিরও বেশি প্রতিষ্ঠানের পোশাকশ্রমিকরা রাস্তা অবরোধ করে বিক্ষোভ করছেন।

এর মধ্যে বাড্ডার শ্রমিকরা বেতন-ভাতা পরিশোধে কাউন্সিলরের আশ্বাসে অবরোধ তুলে চলে গেলেও রয়ে গেছে বাকি স্থানে আন্দোলনরত শ্রমিকরা। গতকাল বুধবার সকাল ১০টায় ভাষানটেক থানার কাফরুল এলাকার মিনি সুপার মার্কেটের পাশে চিটাগাং ফ্যাশন নামে একটি গার্মেন্টের শ্রমিকরা রাস্তা অবরোধ করেন। একমাসের বেতন ও দুই মাসের ওভারটাইমের বকেয়া পরিশোধের দাবিতে বিক্ষোভ করছেন তারা।

পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে কাজ করছে কাফরুল ও ভাষানটেক থানা পুলিশ। পুলিশের আশ্বাসে এর আগেও রাস্তায় নেমে ফিরে গেলেও এবার শ্রমিকদের দাবি, বেতন-ওভারটাইমের বকেয়া মিটিয়ে নিয়েই তারা ফিরবেন। ফারুক নামে চিটাগাং ফ্যাশন এক শ্রমিক জানান, করোনার কারণে গার্মেন্ট বন্ধ। কিন্তু তার আগের বেতন ও ওভারটাইমের বকেয়া মেটায়নি গার্মেন্ট কর্তৃপক্ষ। করোনার লকডাউনে বেতন-ভাতা বকেয়া থাকায় রাজধানীতে মানবেতর জীবনযাপন করছেন তারা।

এ ব্যাপারে যোগাযোগ করা হলে কাফরুল থানার ওসি সেলিমুজ্জামান জানান, চিটাগাং ফ্যাশন গার্মেন্টটি ভাষানটেক থানায় পড়েছে। তবে শ্রমিকদের আন্দোলন বিক্ষোভ চলছে উভয় পাশ্বের সড়কে। পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। বাকিটা ভাষানটেক ওসিই বলতে পারবেন। ভাষানটেক থানার উপপরিদর্শক (এসআই) ইসরাঈল হোসেন বলেন, চিটাগাং ফ্যাশনস গার্মেন্টের মালিক শ্রীলঙ্কার নাগরিক। তার পক্ষ থেকে জি এম জাহিদ সাহেব এসেছেন শ্রমিকদের সঙ্গে কথা বলতে। আমরা পরিস্থিতি অবজারভ করছি। বিজিএমইএকে বিষয়টি জানানো হয়েছে।

অন্যদিকে বেতন-ভাতা দাবিতে মিরপুর থানার দারুসসালাম এলাকায় গার্মেন্ট শ্রমিক-কর্মচারীরা সকাল সাড়ে ৮টা থেকে সড়ক অবরোধ করে রেখেছেন। কিন্তু মালিকপক্ষের কোনো সাড়া না পাওয়ায় এখনো রাস্তাতেই রয়ে গেছেন শ্রমিকরা। এ ব্যাপারে মিরপুর মডেল থানার ওসি মোস্তাজিরুর রহমান বলেন, আকিফ গার্মেন্ট, আরএসএফ ফ্যাশনস, এমইসি ফ্যাশনস, লুমিয়া প্রিন্টার্সসহ বেশ কয়েকটি ছোট ছোট গার্মেন্ট শ্রমিকরা বেতন-ভাতার দাবিতে সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করছেন। পুলিশের কোনো কথাই তারা শুনছে না। আবার ছোট ছোট গার্মেন্ট হওয়ায় তাদের একজন বাদে অন্য গার্মেন্টের মালিকদের কোনো খোঁজই মিলছে না। এ ব্যাপারে পুলিশ নয়, উদ্যোগী হওয়া উচিত বিজিএমইএকে।

অন্যদিকে রাজধানীর দক্ষিণখান থানার উত্তরা বিমানবন্দর গোল চত্বর ও জসীম উদ্দীন এলাকার সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করছে রেদওয়ানটেক্স অ্যান্ড অ্যাপারেলস গার্মেন্ট শ্রমিকরা। তাদেরও দাবি বকেয়া বেতন-ভাতা। দক্ষিণখান থানার ওসি শিকদার মো. শামীম হোসেন জানান, মালিকপক্ষকে জানানো হলে তারা শ্রমিকদের সঙ্গে কথা বলেছেন। গার্মেন্ট মালিকপক্ষ শ্রমিকদের দাবির মুখে বকেয়া বেতন-ভাতা পরিশোধ করায় শ্রমিকরা সড়ক ছেড়েছে বলেও জানান তিনি। এর আগে গতকাল বুধবার সকাল সাড়ে ৯টায় বেতন-ভাতার দাবিতে রাজধানীর বাড্ডায় একটি পোশাক কারখানার শ্রমিকরা রাস্তা অবরোধ করে বিক্ষোভ শুরু করেন। তবে স্থানীয় কমিশনার মাসুম গনির আশ্বাসে তারা আন্দোলন স্থগিত করেন।

 

"