ভুয়া ফেসবুক পেজের বিরুদ্ধে কঠোর হচ্ছে পুলিশ

প্রকাশ : ১২ এপ্রিল ২০২০, ০০:০০

নিজস্ব প্রতিবেদক

বাংলাদেশ পুলিশের নামে খোলা ভুয়া ফেসবুক পেজ ও গ্রুপের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নিতে উদ্যোগ নিয়েছে পুলিশ সদর দফতর (পিএইচকিউ)। গতকাল শনিবার পুলিশ সদর দফতরের সহকারী উপ-মহাপরিদর্শক (এআইজি-মিডিয়া) সোহেল রানা এ তথ্য জানান। এআইজি মিডিয়া বলেন, বাংলাদেশ পুলিশের অফিশিয়াল ফেসবুক পেজের লিংক https://ww w.facebook. com/BangladeshPoliceOfficialPage/। এই পেজটির বাইরে বাংলাদেশ পুলিশের অন্য কোনো ফেসবুক পেজ নেই। কিন্তু ইদানিং কিছু অসাধু ব্যক্তি/প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ পুলিশের নাম কিংবা লোগো ব্যবহার করে ‘বাংলাদেশ পুলিশ’ নামে কিংবা বাংলাদেশ পুলিশ নামের কিছু অংশ ব্যবহার করে ফেক পেজ অথবা গ্রুপ খুলেছেন। অনেকেই ওইসব ফেক পেজকে বাংলাদেশ পুলিশের আসল পেজ মনে করে যেমন লাইক-শেয়ার দিচ্ছেন। এছাড়া ওইসব পেজে দেওয়া নানা প্রলোভনে পড়ে বিভ্রান্ত ও প্রতারিত হচ্ছেন। এআইজি সোহেল রানা বলেন, ‘বিষয়টি বাংলাদেশ পুলিশের দৃষ্টিতে আসায় এসব পেজ, গ্রুপ ও সাইটের ব্যাপারে সবাইকে সতর্ক থাকার জন্য অনুরোধ করা হলো। এ ধরনের কোনো ফেক পেজ কারো চোখে পড়লে সেই পেজের লিংক বাংলাদেশ পুলিশের অফিশিয়াল ফেসবুক পেজ (https:/ww/w.facebook.com/BangladeshPoliceOfficialPage/) এর মেসেঞ্জারে পাঠানোর জন্য অনুরোধ করা হলো।’

এআইজি মিডিয়া আরো বলেন, ‘এমন ফেক পেজ, গ্রুপ ও সাইট খোলা বেআইনি ও দ-নীয় অপরাধ। সংশ্লিষ্ট সবাইকে এ ধরনের ফেক ও অননুমোদিত পেজ, গ্রুপ ও সাইট অনতিবিলম্বে বন্ধ করার জন্য আহ্বান জানানো হচ্ছে।’ এরই মধ্যে এসব ফেক পেজ, গ্রুপ ও সাইট খুঁজে বের করে সেগুলোর অ্যাডমিনসহ জড়িতদের বিরুদ্ধে কঠোর আইনি ব্যবস্থা গ্রহণের উদ্যোগ নিয়েছে বাংলাদেশ পুলিশ।

গুজব যাচাইয়ে র‌্যাবের সাইবার সেল : কেউ গুজব ছড়ালে তা র‌্যাবের সাইবার ভেরিফিকেশন সেলে যাচাই করা হবে। যাচাই শেষে গুজব ছড়ানো ব্যক্তির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবে র‌্যাব। এ প্রক্রিয়ায় এখন পর্যন্ত সারা দেশে ১০ জন গুজব ছড়ানো ব্যক্তিকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব।

র‌্যাবের গণমাধ্যম শাখার পরিচালক লেফটেন্যান্ট কর্নেল সারোয়ার বিন কাশেম হোয়াটসঅ্যাপের মাধ্যমে সাংবাদিকদের জানান, গুজব ছড়াচ্ছে এরকম আরো প্রায় অর্ধশত ব্যক্তিকে নজরদারিতে রাখা হয়েছে। তারা গুজব ছড়ানো বন্ধ না করলে যেকোনো সময় তাদের গ্রেফতার করা হবে। কাজেই সব ধরনের মিথ্যা তথ্য সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে না ছড়িয়ে করোনাভাইরাস প্রতিরোধে সবাইকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানাচ্ছে র‌্যাব।

তিনি বলেন, করোনায় এখন পর্যন্ত বিশ্বে প্রায় ৯০ হাজার লোকের প্রাণহানি ঘটেছে। আর ১৫ লাখেরও বেশি মানুষ এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে। সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার করে একটি কুচক্রি মহল পরিবেশ ঘোলাটে করতে চাইছে। গত কয়েক দিনে ‘সড়কে লাশ পরে আছে দেখার কেউ নেই’ এরকম পোস্ট দিয়ে বিভ্রান্তি তৈরি করা হয়েছে। আমরা সেসব পোস্ট ভেরিফিকেশন সেলে দিয়ে যাচাই করেছি। পোস্টের তথ্য ভুয়া ছিল।

সারোয়ার বিন কাশেম বলেন, করোনার বিস্তার রোধে এই মুহূর্তে সবার কাজ হলো সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করতে ঘরে অবস্থান করা। অযথা যারা ঘরের বাইরে বের হচ্ছেন, তাদের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের মাধ্যমে অর্থদ- দেওয়া হচ্ছে। এটা অব্যাহত থাকবে।

র‌্যাবের গণমাধ্যম শাখার এই পরিচালক বলেন, করোনাভাইরাসে বাংলাদেশেও চার শতাধিক ব্যক্তি আক্রান্ত হয়েছেন, মারা গেছেন ২৭ জন মানুষ। দেশের সব আইনশৃঙ্খলা বাহিনী এই ভাইরাসের বিস্তার রোধে কাজ করে যাচ্ছে। তবে এই ভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের কৌশল হলো ঘরে থাকা। আপনারা ঘরে থাকুন, আমরা সব ধরনের কাজ করছি।

 

"