দেশে আক্রান্ত ২০০ ছাড়াল

মৃত্যু বেড়ে ২০

প্রকাশ : ০৯ এপ্রিল ২০২০, ০০:০০

নিজস্ব প্রতিবেদক

এক দিনেই ৫৪ জনের মধ্যে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ধরা পড়ায় দেশে আক্রান্তের সংখ্যা একলাফে বেড়ে ২১৮ জন হয়েছে। আক্রান্তদের মধ্যে গত মঙ্গলবার সকাল ৮টা থেকে গতকাল বুধবার সকাল ৮টা পর্যন্ত আরো তিনজনের মৃত্যু হয়েছে, তাতে দেশে কোভিড-১৯ এ মৃতের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ২০ জন। ঠিক এক মাস আগে দেশে প্রথমবারের মতো কারো দেহে সংক্রমণ ধরা পড়ার পর এক দিনে আক্রান্তের এটাই সর্বোচ্চ সংখ্যা। আর আক্রান্তদের মধ্যে মোট ৩৩ জন এ পর্যন্ত সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরে গেছেন। গতকাল বুধবার করোনাভাইরাস পরিস্থিতি নিয়ে অনলাইন ব্রিফিংয়ে স্বাস্থ্য অধিদফতরের রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (আইইডিসিআর) পরিচালক ডা. মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা এ তথ্য জানান।

তিনি জানান, গত মঙ্গলবার সকাল ৮টা থেকে গতকাল বুধবার সকাল ৮টা পর্যন্ত সারা দেশে ৯৮১টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। এর মধ্যে ৫৪টি নমুনায় করোনাভাইরাস বা কোভিড-১৯ এর উপস্থিতি পাওয়া গেছে। নতুন করে ৫৪ জনের দেহে এই ভাইরাসের সংক্রমণ শনাক্ত হওয়ায় দেশে করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়াল ২১৮ জনে।

ডা. ফ্লোরা জানান, দেশে করোনায় আক্রান্ত আরো তিনজনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে দেশে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ২০ জনে। এছাড়া উল্লেখিত সময়ে দেশে আগে থেকে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত কেউ সুস্থ হননি। ফলে এখন পর্যন্ত সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরে যাওয়া মানুষের সংখ্যা ৩৩ জনই রইল।

নতুন করে যে ৫৪ জনের দেহে করোনার সংক্রমণ পাওয়া গেছে তাদের মধ্যে পুরুষের সংখ্যাই বেশিÑ এ তথ্য জানিয়ে ডা. ফ্লোরা বলেন, নতুন আক্রান্তদের মধ্যে ৩৩ জন পুরুষ ও ২১ জন নারী। এই ৫৪ জনের মধ্যে ৩৯ জন ঢাকার এবং একজন ঢাকার পার্শ্ববর্তী জেলার। বাকিরা ঢাকার বাইরে বিভিন্ন জেলার। এছাড়া নতুন আক্রান্তদের মধ্যে ১৫ তরুণ ও পাঁচ কিশোর রয়েছে। এর আগে গত মঙ্গলবার করোনায় পাঁচজনের মৃত্যু ও ৪১ জনের আক্রান্ত হওয়ার খবর জানায় আইইডিসিআর। প্রসঙ্গত করোনাভাইরাস মহামারিতে অচল গোটা বিশ্ব। হুহু করে বাড়ছে আক্রান্ত রোগী ও মৃত্যুর সংখ্যা। বিশ্বের অন্তত ১৩১ দেশে চলছে লকডাউন। থেমে নেই মৃত্যুর মিছিল, প্রতি মুহূর্তেই বাড়ছে মৃত্যুর সংখ্যা। করোনায় প্রাণহানি ও অসুস্থদের পরিসংখ্যান রাখা প্রতিষ্ঠান ওয়ার্ল্ডওমিটারের তথ্যানুযায়ী, গতাকল বুধবার বিকাল ৩টা পর্যন্ত গোটা বিশ্বে করোনায় আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ১৪ লাখ ৩৫ হাজার ৩১০ জন। মারা গেছে ৮২ হাজার ২১০ জন। সবচেয়ে খারাপ অবস্থা ইউরোপ ও আমেরিকায়। বেশির ভাগ মৃত্যু হয়েছে এ দুই মহাদেশে। বিশেষ করে যুক্তরাষ্ট্র, ইতালি ও স্পেনে প্রতিদিন মৃত্যুর নতুন রেকর্ড হচ্ছে।

 

"