যুবলীগের সম্রাট জেলে

সহযোগী আরমানও কারাগারে দিনভর অফিস-বাসায় অভিযান

প্রকাশ : ০৭ অক্টোবর ২০১৯, ০০:০০

নিজস্ব প্রতিবেদক

অবশেষে ক্যাসিনো-কাণ্ডে আলোচিত ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগের সভাপতি ইসমাইল চৌধুরী সম্রাট ও সহসভাপতি এনামুল হক আরমানকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব। দুজনকে আলাদা দুটি মামলায় সাজা দিয়ে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। আরমানকে সকালে এবং সম্রাটকে রাতে ঢাকার কেরানীগঞ্জের কেন্দ্রীয় কারাগারে নিয়ে যাওয়া হয়। আজ সোমবার তাদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অভিযোগে মামলা হলে রিমান্ড চেয়ে আদালতে তোলা হতে পারে। কারণ তাদের দুজনের বিরুদ্ধেই ক্যাসিনো কারবার, মাদক, অস্ত্র এবং মানিলন্ডারিংয়ের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এদিকে, সম্রাট ও আরমানের গ্রেফতারের খবর প্রকাশ্যে আসার পর দুজনকে বহিষ্কারের ঘোষণা দেয় কেন্দ্রীয় যুবলীগ।

গত শনিবার গভীর রাতে কুমিল্লার চৌদ্দগ্রাম উপজেলার আলকরা ইউনিয়নের কুঞ্জশ্রীপুর গ্রামের ওই বাড়ি থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়। পরে দুজনের ঢাকার একাধিক বাসা ও অফিসে অভিযান চালানো হয়। অভিযানে সম্রাটের কাকরাইলের অফিস থেকে অবৈধ অস্ত্র, মাদক ও বন্যপ্রাণীর চামড়া জব্দ করা হয়। এর মধ্যে দুটি ক্যাঙ্গারুর চামড়া জব্দের ঘটনায় সম্রাটকে ছয় মাসের কারাদণ্ডাদেশ দেয় র‌্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালত। আর কুমিল্লায় গ্রেফতারের সময় আরমান ‘মদ্যপ’ থাকায় তাকে সেখানেই ছয় মাসের সাজা দেয় আদালত। আরমানের মিরপুরের বাসায় অভিযান চালিয়ে সেটি সিলগালা করে দিয়েছে র‌্যাব। একই সঙ্গে গতকাল সম্রাটের ডিওএইচএস ও শান্তিনগরের বাসায়ও অভিযান চালায় র‌্যাব। তবে সেখান থেকে অবৈধ কিছুই পাওয়া যায়নি।

র‌্যাব জানিয়েছে, কুমিল্লায় যে বাসা থেকে দুজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে, সেটি সম্রাটের এক আত্মীয়ের বাড়ি। গত তিন দিন ধরে তারা সেখানে অবস্থান করছিলেন। তাদের গ্রেফতার করতে ‘অনেক কষ্ট করতে’ হয়েছে মন্তব্য করে র‌্যাব মহাপরিচালক বেনজীর আহমেদ বলেন, আত্মগোপনে থাকার জন্য সম্রাট বিভিন্ন পন্থা অবলম্বন করেছিল। মূলত ক্যাসিনো ব্যবসায় জড়িত থাকার অভিযোগে তাদের গ্রেফতার করা হয়েছে। র‌্যাব জানিয়েছে, ফেনীর ওই বাড়ির মালিক মনির হোসেন স্টারলাইন পরিবহনের একজন পরিচালক। যিনি সম্রাটের দূর সম্পর্কের আত্মীয়। সম্রাট যুবলীগের নেতা হলেও মনির ফেনীতে শিবিরের রাজনীতিতে সক্রিয় ছিলেন। এখন জামায়াতের সঙ্গে জড়িত।

সম্রাটের অফিস ও দুই বাসায় অভিযান : শনিবার রাতে কুমিল্লা থেকে গ্রেফতার করে সম্রাট ও আরমানকে গতকাল ভোরে ঢাকায় আনা হয়। পরে দুপুরে একযোগে সম্রাটের কাকরাইলের অফিস এবং মহাখালী ডিওএইচএস ও শান্তিনগরের বাসায় অভিযান চালায় র‌্যাব। দুই বাসায় তেমন কিছু না মিললেও অফিস থেকে অবৈধ অস্ত্র, মাদক ও পশুর চামড়া পাওয়া গেছে। সন্ধ্যায় অভিযান শেষে কাকরাইলের অফিস থেকে ১১০০ পিস ইয়াবা, ১৫ বোতল বিদেশি মদ, দুটি ইলেকট্রিক টর্চার মেশিন, চাইনিজ পিস্তল, ৫ রাউন্ড গুলি, ক্যাঙ্গারুর চামড়া জব্দ দেখায় র‌্যাব। বণ্যপ্রাণী সংরক্ষণ ও নিরাপত্তা আইনের আওতায় সম্রাটের ছয় মাসের বিনাশ্রম কারাদ- দিয়ে কারাগারে পাঠানো হয়। একই সঙ্গে মাদক ও অস্ত্র আইনে নিয়মিত মামলার প্রক্রিয়া চলছে। কাকরাইল মোড়ের ভূইয়া ম্যানশনে দুপুরে শুরু হওয়া অভিযান শেষ হয় সন্ধ্যায়। অভিযানের পুরো সময়টা র‌্যাবের সঙ্গে ছিলেন যুবলীগের সম্রাট। একসময় এই অফিসে বসেই সাম্রাজ্য চালিয়েছেন সম্রাট।

আরমানের মিরপুরের বাসা সিলগালা : যুবলীগের ঢাকা মহানগর দক্ষিণের বহিষ্কৃত সহসভাপতি এনামুল হক আরমান আলীর রাজধানীর মিরপুরের বাসায় ৪ ঘণ্টা অভিযান শেষে সিলগালা করে দিয়েছে র‌্যাব। গতকাল দুপুর ২টার দিকে মিরপুর-২ এর মসজিদ মার্কেটের ১৬ নম্বর বাড়িতে র‌্যাব তল্লাশি অভিযান শুরু করে। সন্ধ্যায় র‌্যাব-৪’র অধিনায়ক অতিরিক্ত ডিআইজি মোজাম্মেল হক সাংবাদিকদের জানান, ৪ ঘণ্টা অভিযানে ১২টি চেক বই জব্দ করা হয়েছে। একই ব্যাংকের একাধিক চেক রয়েছে। ১২টির মধ্যে ১০টি তার স্ত্রীর নামে এবং দুটি আরমানের নামে রয়েছে। এই বাসাটি তার নিজস্ব নয়। এটি ভাড়া বাসা এখানে তার দ্বিতীয় স্ত্রী ও তার সন্তানরা থাকতেন। মাঝে মাঝে তিনি এখানে আসতেন। তার স্ত্রীকেও খুঁজছে র‌্যাব।

গত ১৮ সেপ্টেম্বর ঢাকার মতিঝিলের ক্লাবপাড়ায় র‌্যাবের অভিযানে অবৈধ ক্যাসিনো চলার বিষয়টি প্রকাশ্যে আসার পর থেকেই আলোচনায় ছিলেন সম্রাট ও আরমান। সেদিন র‌্যাবের অভিযানের সময় মুক্তিযোদ্ধা ক্রীড়া চক্রের ভেতরে সম্রাটের বিশাল ছবি দেখা যায়। ওই ক্লাবের ক্যাসিনো তিনিই চালাতেন এবং মতিঝিল ক্লাবপাড়ায় অন্য ক্যাসিনোগুলো থেকেও প্রতিদিন নির্দিষ্ট হারে চাঁদা তার কাছে যেত বলে গণমাধ্যমে খবর আসে। সম্রাটের অত্যন্ত ঘনিষ্ঠ হিসেবে পরিচিত যুবলীগ নেতা আরমানও দীর্ঘদিন ধরে ক্যাসিনোর কারবারে জড়িত বলে অভিযোগ রয়েছে। সম্প্রতি তিনি ঢাকাই সিনেমাতেও টাকা লগ্নি করেছিলেন। চলমান অভিযানে ২৪ সেপ্টেম্বর সম্রাট ও আরমান ছাড়াও যুবলীগের অনেকের বিদেশ ভ্রমণের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করে সরকার।

 

"